ghatail.com
ঢাকা সোমবার, ২৩ শ্রাবণ, ১৪২৯ / ০৮ আগস্ট, ২০২২
ghatail.com
yummys

নড়াইলে ফের ধর্ম অবমাননার অভিযোগে হিন্দু বাড়িতে হামলা


ghatail.com
নিজস্ব প্রতিবেদক, ঘাটাইল ডট কম
১৬ জুলাই, ২০২২ / ৫৯ বার পঠিত
নড়াইলে ফের ধর্ম অবমাননার অভিযোগে হিন্দু বাড়িতে হামলা

নড়াইলের মির্জাপুরের ঘটনার রেশ না কাটতেই ধর্ম অবমাননার অভিযোগে ফের লোহাগড়ায় হিন্দু বাড়িতে হামলা ও আগুন দেয়ার ঘটনা ঘটেছে। শুক্রবার (১৫ জুলাই) বিকেলে উপজেলার দিঘলিয়া গ্রামের সাহা পাড়ায় এ হামলার ঘটনা ঘটে। এক শিক্ষার্থীর বিরুদ্ধে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকের এক পোস্টের নিচে ধর্মীয় অবমাননামূলক মন্তব্য করার অভিযোগ তুলে তার বাড়িতে হামলা ও আগুন দেয় উত্তেজিত জনতা। অভিযুক্ত ওই শিক্ষার্থী ও তার বাবাকে আটক করে নিরাপত্তা হেফাজতে নিয়েছে পুলিশ।

এলাকা ও পুলিশ সূত্রে জানা যায়, ওই শিক্ষার্থী গত ১৪ জুলাই ফেসবুকে একটি ধর্মীয় পোস্টের নিচে মন্তব্য করেন। পরের দিন বিকেলে এলাকার লোকজন তার বাড়ির সামনে গিয়ে বিক্ষোভ শুরু করে। এক পর্যায়ে তারা ৫-৬টি ঘর ভাংচুর করে। পরে একটি ঘরে আগুন ধরিয়ে দেয়। আগুনে দুই রুম বিশিষ্ট টিনের ঘর পুড়ে গেছে। এছাড়া সাহাপাড়ার মন্দিরের চেয়ার ও সাউন্ডবক্স ভাংচুরসহ ইট ছুঁড়েছে বিক্ষুদ্ধরা।

পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে ঘটনাস্থলে বিপুল সংখ্যক পুলিশ ও র‌্যাব মোতায়েন রয়েছে।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, শুক্রবার জুমার নামাজের পর গুজব ছড়িয়ে পরে দীঘলিয়া সাহাপাড়ার কলেজছাত্র আকাশ সাহা (২২) ফেসবুকে মহানবী (সা.)কে নিয়ে কটূক্তি করেছেন। এরপর বিক্ষুব্ধ লোকজন আকাশ সাহার গ্রেপ্তার ও বিচারের দাবিতে তাঁদের বাড়ির সামনে বিক্ষোভ করেন। পরে বিকেলে উত্তেজনা আরও বাড়তে থাকে।

বিক্ষুব্ধ লোকজন একপর্যায়ে সাহাপাড়ার গোবিন্দ সাহা, তরুণ সাহা, দিলীপ সাহা, পলাশ সাহাসহ পাঁচ-ছয়টি বাড়ি ভাঙচুর করে। এর মধ্যে গোবিন্দ সাহার বাড়িতে আগুন ধরিয়ে দেয়। এ ছাড়া সাহাপাড়ার মন্দিরের চেয়ার ও সাউন্ডবক্স ভাঙচুরসহ সেখানে ইট ছুড়েছে বিক্ষুব্ধরা।

পরে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে ঘটনাস্থলে বিপুলসংখ্যক পুলিশ ও র‍্যাব সদস্য মোতায়েন করা হয়। 

দিঘলিয়া ইউনিয়নের ৮নম্বর ওয়ার্ডের সাবেক সদস্য প্রভাত কুমার ঘোষ বলেন, উত্তেজিত জনতা বাড়িঘরে ভাংচুর ও মন্দিরে হামলা করেছে। একটি বাড়িতে আগুন দিয়েছে। শুক্রবার জুমার নামাজের পর থেকে সন্ধ্যা অবদি এসব হামলার ঘটনা ঘটে। হামলায় পাঁচ থেকে ছয়টি সনাতন ধর্মাবলম্বীদের (হিন্দু) বাড়িতে ভাঙচুর এবং একটিতে আগুন ধরিয়ে দেওয়া হয়। এ ছাড়া স্থানীয় একটি মন্দিরের চেয়ার ও সাউন্ডবক্স ভাঙচুরসহ ইট ছুড়েছে বিক্ষুব্ধরা।

লোহাগড়া থানার পরিদর্শক (তদন্ত) হারান চন্দ্র পাল বলেন, যে বাড়িতে আগুন ধরিয়ে দেয়া হয়েছিল, তা নেভানো সম্ভব হয়েছে। ওই শিক্ষার্থী ও তার বাবাকে জিজ্ঞাসাবাদ চলছে। তদন্তসাপেক্ষে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।


পুলিশ সুপার প্রবীর কুমার রায় বলেন, ঘটনাস্থলে আইন-শৃঙ্খলাবাহিনী মোতায়েন রয়েছে। ধর্ম অবমাননার বিষয়টি তদন্ত করে দেখা হচ্ছে। দোষীদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে। আপাতত পরিস্থিতি স্বাভাবিক রয়েছে।

লোহাগড়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. আজগর আলী বলেন, অভিযুক্ত আকাশ সাহার বাবা অশোক সাহাকে পুলিশ হেফাজতে নেওয়া হয়েছে। তাঁকে ছেলে আকাশ সাহার বিষয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। অভিযুক্ত আকাশ পলাতক রয়েছেন।

এদিকে নড়াইলে লোহাগড়ায় দিঘলিয়া গ্রামে হিন্দুদের বাড়িঘর ও মন্দিরে হামলা ও অগ্নিসংযোগের ঘটনায় জড়িতদের শাস্তির দাবি জানিয়েছে সম্মিলিত সামাজিক আন্দোলন। আইন ও সালিশ কেন্দ্র (আসক) এই ঘটনায় উদ্বেগ প্রকাশ করে আরেক বিবৃতি দিয়েছে। শনিবার দেওয়া বিবৃতিতে সামাজিক আন্দোলনের সাধারণ সম্পাদক সালেহ আহমেদ হামলাকারীদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়ার পাশাপাশি ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারের নিরাপত্তা এবং আহতদেরও চিকিৎসার দাবি জানান।

ফেইসবুককেন্দ্রিক আরেক পোস্টকে কেন্দ্র করে গত মাসে এক অধ্যক্ষের গলায় জুতার মালা পরানোর খবরে বেশ কিছু দিন থেকে আলোচনায় রয়েছে নড়াইল। গত ১৭ জুন নড়াইলের মির্জাপুর ইউনাইটেড ডিগ্রি কলেজের এক ছাত্র ভারতের বিজেপি নেত্রী নূপুর শর্মার বিতর্কিত এক বক্তব্য নিয়ে ফেইসবুকে পোস্ট দেওয়ার পরদিন কলেজে গেলে কিছু মুসলমান ছাত্র তাকে ওই পোস্ট মুছে ফেলতে বলেন। এ নিয়ে উত্তেজনা দেখা দিলে ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ স্বপন কুমার বিশ্বাস পুলিশে খবর দেন।

ওই সময় ধর্ম অবমাননার অভিযোগ তুলে কলেজের ছাত্র ও স্থানীয়রা ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষের গলায় জুতার মালা পরিয়ে দেয়। ওই ঘটনার কিছু ছবি ও ভিডিও ফেইসবুকে আসে, যাতে পুলিশের উপস্থিতিও দেখা যায়। এ নিয়ে দেশজুড়ে প্রতিবাদের মধ্যে এ ঘটনায় সঙ্গে জড়িত থাকার অভিযোগে কয়েকজনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

নড়াইলে মির্জাপুর ঘটনার রেশ না কাটতেই ধর্ম অবমাননার অভিযোগে ফের লোহাগড়ায় হিন্দু বাড়িতে হামলা ও আগুন দেয়ার ঘটনা ঘটলো।

(নিজস্ব প্রতিবেদক, ঘাটাইল ডট কম)/-