ghatail.com
ঢাকা সোমবার, ২৩ শ্রাবণ, ১৪২৯ / ০৮ আগস্ট, ২০২২
ghatail.com
yummys

৬ মাসে হিন্দু সম্প্রদায়ের ৭৯ জনকে হত্যা


ghatail.com
স্টাফ রিপোর্টার, ঘাটাইল ডট কম
০৩ জুলাই, ২০২২ / ৯৮ বার পঠিত
৬ মাসে হিন্দু সম্প্রদায়ের ৭৯ জনকে হত্যা

চলতি বছরের ৩০ জুন পর্যন্ত দেশের সংখ্যালঘু হিন্দু সম্প্রদায়ের ৭৯ জনকে হত্যা করা হয়েছে জানিয়ে বাংলাদেশ জাতীয় হিন্দু মহাজোটের মহাসচিব গোবিন্দ চন্দ্র প্রামাণিক দাবি করেছেন, এ সময়ে আরও ৬২০ জনকে হত্যার হুমকি, ১৪৫ জনকে হত্যার চেষ্টা, ১৮৩ জনকে জখম-আহত ও ৩২ জন নিখোঁজ হয়েছেন।

গত ১ জানুয়ারি থেকে ৩০ জুন পর্যন্ত ২৭ কোটি ২ লাখ ৩০ হাজার টাকা চাঁদাবাজি এবং ১৫৬টি পরিবার ও মন্দির লুট হয়েছে।

গতকাল শনিবার (২ জুলাই) সকালে ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটি নসরুল হামিদ মিলনায়তনে এক সংবাদ সম্মেলনে হিন্দু মহাজোটের পক্ষ থেকে লিখিত বক্তব্যে এসব তথ্য জানান তিনি। সারা দেশে সংগঠনটির শাখা কমিটির মাধ্যমে এসব তথ্য পাওয়ার দাবি করেছেন তিনি।

সংবাদ সম্মেলনে হিন্দু সম্প্রদায়ের অস্তিত্ব রক্ষায় সহিংসতা ও নির্যাতন নিরোধ, গণতন্ত্র অর্থবহ করতে তাদের প্রতিনিধিত্ব সুনিশ্চিতের লক্ষ্যে জাতীয় সংসদে ৬০টি সংরক্ষিত আসন এবং পৃথক নির্বাচন ব্যবস্থা “পুনঃপ্রতিষ্ঠা”র দাবি জানিয়েছে বাংলাদেশ জাতীয় হিন্দু মহাজোট। এছাড়া একটি পৃথক সংখ্যালঘু বিষয়ক মন্ত্রণালয়ও প্রতিষ্ঠার দাবি করেছে সংগঠনটি।

গোবিন্দ চন্দ্র প্রামাণিক বলেন, চলতি বছরের প্রথম ছয় মাসে ৪৬৮টি বসতবাড়ি হামলা ভাঙচুর ও লুটপাট, ৩৪৩টি অগ্নিসংযোগ, ৯৩টি ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে হামলা, ২১৫৯.৩৬ একর ভূমি দখল এবং ৪১৯.৬৩ একর দখলের তৎপরতা চালানো হয়েছে। ঘরবাড়ি দখল হয়েছে ১৭টি, ব্যবসাপ্রতিষ্ঠান ২৯টি, মন্দিরের জমি দখল ২৯টি, বসতবাড়ি উচ্ছেদ হয়েছে ১৩২টি। এছাড়া ৭১৭টি পরিবারকে উচ্ছেদের চেষ্টা, ৮ হাজার ৯৪৩টি পরিবারকে উচ্ছেদের হুমকি, ১৫৪টি পরিবারকে দেশত্যাগের বাধ্যকরণ, ৩ হাজার ৮৯৭টি পরিবারকে দেশত্যাগে হুমকির শিকার এবং ১ লাখ ১৫ হাজার ৪২৯টি পরিবার নিরাপত্তাহীনতায় রয়েছে।

তিনি দাবি করেন, চলতি বছরে ৫০১টি সংঘবদ্ধ হামলা, ৫৬টি মন্দিরে হামলা, ভাংচুর ও অগ্নিসংযোগ, ২১৯টি প্রতিমা ভাঙচুর, ৫০টি প্রতিমা চুরি, ৭৭ জনকে অপহরণ, ১৫ জনকে অপহরণের চেষ্টা করা হয়েছে। হিন্দু সম্প্রদায়ের ১৩ জন ধর্ষণ, ১০ জন সংঘবদ্ধ ধর্ষণের শিকার, ধর্ষণের পর তিন জনকে হত্যা, ১৯ জনকে ধর্ষণচেষ্টা, ৯৫ জনকে ধর্মান্তরিত করা, ২১ জনকে ধর্মান্তরের চেষ্টা, ৬৩টি ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাতের ঘটনাও ঘটেছে দেশে।

এছাড়া মিথ্যা মামলায় সম্প্রদায়টির ৯৬ জনকে গ্রেপ্তার, বরখাস্ত, চাকরিচ্যুত ও জেল-জরিমানা, ৮০২টি পরিবারকে অবরুদ্ধ করা, ৫৭টি ধর্মীয়প্রতিষ্ঠান অপবিত্রকরণ, ৬০টি ধর্মীয় অনুষ্ঠান পালনে বাধা, ১০০ জনকে ধর্মীয় নিষিদ্ধ গরুর মাংস খাওয়ানোর ঘটনা ঘটেছে। মোট ৬৩৮টি আলাদা ঘটনায় ক্ষতি হয়েছে ১৫২ কোটি ৩৫ লাখ ৫৫ হাজার টাকার।

গোবিন্দ চন্দ্র প্রামাণিক বলেন, “এসব ঘটনার ধারাবাহিকতায় প্রমাণিত হয় যে, এদেশে হিন্দুদের বসবাস দিনকে দিন কঠিনতর হচ্ছে।”

বাংলাদেশের সংখ্যালঘু সম্প্রদায় স্বস্তিতে নেই দাবি করে সংবাদ সম্মেলনে আরও বলা হয়, নির্যাতন নিপীড়নে অতিষ্ঠ হিন্দুরা দুর্বিষহ অবস্থায় রয়েছে। এর মধ্যে হিন্দু শিক্ষকদের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান থেকে বিতাড়িত করার অভিনব কৌশল নতুন উপসর্গ হয়ে দাঁড়িয়েছে। পুলিশ ও প্রশাসনের উপস্থিতিতে ও সক্রিয় সহযোগিতায় শিক্ষকের গলায় জুতার মালা পরানোসহ হেনস্তা করা হচ্ছে। ঢাকা, নারায়ণগঞ্জ, গোপালগঞ্জ, নড়াইল, সাভারসহ বিভিন্ন জায়গায় বিরামহীনভাবে প্রতিনিয়ত একটার একটা ঘটনা ঘটেই চলেছে।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন- হিন্দু মহাজোটের নির্বাহী সভাপতি দীনবন্ধু রায়, সিনিয়র সহসভাপতি প্রদীপ কুমার পাল, প্রধান সমন্বয়কারী বিজয় কৃষ্ণ ভট্টাচার্য, প্রেসিডিয়াম সদস্য অভয় কুমার রায়, যুগ্ম মহাসচিব নকুল কুমার মণ্ডল, পল্টন দাস, সাংগঠনিক সম্পাদক সুশান্ত চক্রবর্তী, মহিলা সম্পাদক প্রতীভা বাগচী, যুব সম্পাদক কিশোর বর্মণ, দপ্তর সম্পাদক কল্যাণ মণ্ডল প্রমুখ।

(স্টাফ রিপোর্টার, ঘাটাইল ডট কম)/-