হত্যার ১৬ দিন পর বাংলাদেশির লাশ ফেরত দিল ভারত

চাঁপাইনবাবগঞ্জের শিবগঞ্জ উপজেলার তেলকুপি সীমান্তে বিএসএফের গুলিতে নিহত বাংলাদেশি যুবক মো. বাদশাহর (২৭) লাশ ফেরত দিয়েছে বিএসএফ।

নিহত হওয়ার ১৬ দিন পর আজ সোমবার (২১ সেপ্টেম্বর) বিকেল পাঁচটায় শিবগঞ্জের কিরণগঞ্জ সীমান্তে বিএসএফ-বিজিবির উপস্থিতিতে বাংলাদেশ পুলিশের কাছে লাশ হস্তান্তর করে ভারতীয় পুলিশ।

শিবগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শামসুল আলম শাহ এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। ভারতীয় বিএসএফ কর্তৃক হত্যার শিকার হওয়া বাদশাহ উপজেলার তেলকুপি লম্বাপাড়া গ্রামের মো. রফিকের ছেলে।

৫ সেপ্টেম্বর রাতে সীমান্তের প্রায় ১০০ গজ ভারতের অভ্যন্তরে কাঁটাতারের বেড়ার কাছে তেলকুপি মাঠ এলাকায় সীমান্তের ১৮০/৪ এস ও ১৮০/৩ এস–এর মধ্যে বিএসএফের গুলিতে নিহত হন মো. বাদশাহ।

লাশটি নিজেদের হেফাজতে নিয়ে যায় ভারতীয় বিএসএফের সদস্যরা।

৫৯ বিজিবি ব্যাটালিয়ন (রহনপুর ব্যাটালিয়ন) অধিনায়ক লে. কর্নেল মাহমুদুল হাসান বলেন, ভারতীয় পুলিশ তাদের নিজস্ব প্রক্রিয়া সম্পন্ন করতে দেরি করায় লাশ ফেরত পেতে দেরি হয়েছে।

শাহবাজপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান তোজাম্মেল হক জানান, সন্ধ্যা সাড়ে সাতটায় গ্রামের গোরস্তানে মো. বাদশাহর দাফন সম্পন্ন হয়েছে।

(প্রথম আলো, ঘাটাইল ডট কম)/-

গোপালপুরে শিশুকে যৌন নির্যাতনের পর মা ও ফুপুকে মারপিট, আটক দুর্বত্ত

টাঙ্গাইলের গোপালপুরে চার বছরের এক শিশুকে যৌন নির্যাতনের পর তার মা ও ফুপুকে মারপিটের ঘটনা ঘটেছে। পুলিশ ঘটনার সাথে জড়িত থাকার অভিযোগ তোতা মিয়া (৪৫) নামক এক দুর্বত্তকে গ্রেফতার করেছে।

তিন সন্তানের জনক তোতা একই গ্রামের মৃত আব্দুল হামিদের পুত্র।

উপজেলার ধোপাকান্দি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আব্দুল হাই জানান, আজ সোমবার (২১ সেপ্টেম্বর) দুপুরে উপজেলার গাড়ালিয়া পাড়া গ্রামের এক প্রবাসীর চার বছর বয়সী কন্যাকে যৌন নির্যাতন করেন একই গ্রামের মৃত আব্দুল হামিদের পুত্র তোতা মিয়া।

শিশুটি বাড়ির আঙ্গিনায় খেলা করার সময় পড়শি তোতা মিয়া পাশের জঙ্গলে নিয়ে যৌন নির্যাতন চালায় বলে জানান তিনি।

শিশুর মা রমিছা বেগম জানান, শিশুটি কান্নাকাটি শুরু করলে তোতা মিয়া কেটে পড়েন।

সে সময় পাড়াপড়শিরা প্রকৃত ঘটনা জানার জন্য বাড়ি থেকে তোতা মিয়াকে ডেকে আনলে ক্ষিপ্ত হয়ে লাঠি নিয়ে হামলা চালায় তোতা। তার লাঠির আঘাতে শিশুর ফুপু আজিরন বেগমের মাথা ফেটে যায়। আহত হন শিশুর মা রমিছা বেগম।

ওই শিশুসহ তিনজনই এখন গোপালপুর উপজেলা হাসপাতালে চিকিৎসা নিচ্ছেন।

গোপালপুর উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাক্তার আলীম আল রাজী জানান, হাসপাতালের একজন গাইনী ডাক্তার দিয়ে শিশুটির চেকআপ করানো হয়েছে। তাতে যৌন নির্যাতনের আলামত মিলেছে।

গোপালপুর থানার ওসি তদন্ত কাইয়ুম খান ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে জানান, ওই শিশুর দাদী জরিনা বেগম বাদী হয়ে থানায় যৌন ও শিশু নির্যাতনের ধারায় মামলা করেছেন। ঘটনার দুই ঘন্টার মধ্যেই পুলিশ অভিযান চালিয়ে আসামী তোতা মিয়াকে গ্রেফতার করেছে।

(কে এম মিঠু, ঘাটাইল ডট কম)/-

পচা পেঁয়াজে ভারতের প্রতারণার শিকার বাংলাদেশ

ভারত থেকে সর্বশেষ আসা পেঁয়াজের চেহারা দেখে ফিট লাগার অবস্থা আমদানিকারকদের। পেঁয়াজের ঝাঁঝে চোখে জ্বালা ধরার বদলে এবার পেঁয়াজের বস্তার ওই চেহারা দেখেই আমদানিকারকদের চোখ দিয়ে ঝরছে কান্না।

তাদের অভিযোগ, ডলার দিয়ে করা এলসির বিনিময়ে তাদের পেঁয়াজের বদলে পাঠানো হয়েছে পচা পেঁয়াজের জুস। তারা প্রতিবেশী রাষ্ট্রের সরকারের প্রতারণার শিকার।

এরইমধ্যে অর্ধ কোটি টাকার ক্ষতির সম্মুখীন হয়েছেন বলে দাবি হিলির আমদানিকারকদের।

কিছু আমদানিকারক পেঁয়াজের করুণ অবস্থা দেখে ক্ষতি পোষাতে, ওপারেই তার মাল খালাস করে বিক্রি করে যা পাওয়া যায় সেটুকুই বাঁচাতে রফতানিকারকদের অনুরোধ করছেন।

সর্বশেষ গত শনিবার হিলি সীমান্ত দিয়ে ১১ ট্রাক ভারতীয় পেঁয়াজ এসেছে। তবে এসব ট্রাক বাংলাদেশ স্থলসীমান্ত দিয়ে ঢোকার সময়েই দুর্গন্ধ ছড়াতে থাকে। এগুলো গুদামে তুলতে গিয়ে আমদানিকারকদের এখন কপাল চাপড়ানোর দশা। লাভের চেয়ে ক্ষতি বেড়ে যাওয়াতে চোখে অন্ধকার দেখছেন তারা।

আমদানিকারকরা বলছেন, কাঁচামাল, তাই আমদানির সময় বস্তায় সামান্য কিছু পেঁয়াজ নষ্ট থাকতে পারে এটা ধরেই নিয়েছিলেন তারা। কিন্তু, ভারত সরকারের হুট করে পেঁয়াজ রফতানি বন্ধ করে দেওয়ার হঠকারী সিদ্ধান্তে টানা ১০ থেকে ১২দিন ত্রিপল ঢাকা ট্রাকে বস্তাবন্দি থাকাবস্থায় অর্ধেকের বেশি পেঁয়াজ সেদ্ধ হয়ে বিক্রির অনুপযুক্ত হয়ে গেছে।

এ অবস্থায় পরে যে এলসি তারা করেছেন সেগুলো না পেলে এই ক্ষতি পুষিয়ে ওঠা সহজ হবে না। এদিকে গতকাল রবিবার ও আজ সোমবার দুপুর পর্যন্ত কোনও পেঁয়াজ রফতানি করেনি ভারত।

হিলি স্থলবন্দরে গিয়ে দেখা গেছে, আমদানিকারকদের গুদামে ভারত থেকে আনা পেঁয়াজগুলো বাছাই করছে বেশ কয়েকজন শ্রমিক। প্রতিটি বস্তা থেকে প্রচুর পরিমাণ নষ্ট পেঁয়াজ বের হচ্ছে। ভালো পেঁয়াজগুলো বাছাই করে এক পাশে রাখলেও নষ্ট পেঁয়াজের পুঞ্জীভূত পরিমাণ ভালোর প্রায় সমান।

যেগুলো কোনমতে চলতে পারে সেগুলো ১শ’ থেকে ২শ’ টাকা বস্তা দরে বিক্রির জন্য হাঁকডাক চলছে, কিন্তু এর ক্রেতা নেই।

হিলি স্থলবন্দরের আড়তগুলোতে পেঁয়াজ কিনতে আসা আব্দুল খালেক ও সিরাজুল ইসলাম বলেন, আমদানি হওয়া বেশিরভাগ পেঁয়াজই পচা ও নষ্ট। আড়তগুলোতে যেসব পেঁয়াজ ঢেলে রেখেছে সেখানে তেমন ভালো পেঁয়াজ নেই বললেই চলে। আমরা এসব পেঁয়াজ কেনা নিয়েও দ্বিধা দ্বন্দ্বের মধ্যে পড়ে গিয়েছি। কী দামে কিনবো আর কী দামে বেচবো! এক বস্তার ভেতর অর্ধেকের বেশি পেঁয়াজ পচা বের হচ্ছে, কমদামে কিনলেও পুঁজিই হারানোর সম্ভাবনা আছে, পেঁয়াজের অবস্থা খুবই খারাপ।

সিদ্দিক হোসেন নামে আরেক ব্যক্তি বলেন, এক বস্তা পেঁয়াজ আড়াইশ’ টাকা দিয়ে কিনে নিয়ে বাড়িতে যাচ্ছি। দেখি বাড়িতে গিয়ে এসব পেঁয়াজ বাছাই করে কতদূর ভালো বের হয়! গরিব মানুষ, তাই কিনলাম যদি বাজারের ৫ কেজির চেয়ে কিছু বেশি বের হয় এক বস্তা থেকে এই আশায়। তবে ৫০ কেজির বস্তা থেকে ৫/৭ কেজি ভালো পেঁয়াজ বের হবে কিনা তাতেই সন্দেহ হচ্ছে। বারবার মনে হচ্ছে, ঠকলাম না তো আবার!

পেঁয়াজ কিনতে আসা শরিফুল ইসলাম নামে আরেক ব্যক্তি বলেন, গতকালকে ভালো মানের কিছু পেঁয়াজ বেচাকেনা হয়েছে ৪০ থেকে ৫০ টাকা কেজি দরে। কিন্তু পেঁয়াজ আর না ঢোকার কারণে সেই পেঁয়াজেরও দাম বেড়ে গেছে। প্রতি কেজি বর্তমানে ৬০ টাকা থেকে শুরু করে ৭০/৮০ টাকা দরেও বিক্রি হচ্ছে। অনেকের গুদামেই ভালো পেঁয়াজ রয়েছে, তারা স্টক করে রেখেছেন। ব্যবসায়ীরা দাম কমিয়ে বিক্রি করছেন না।

হিলি স্থলবন্দরের পেঁয়াজ আমদানিকারক বাবলুর রহমান বলেন, গতবছরও একইসময়ে একই অবস্থা করেছিল ভারত। তার ঘা ব্যবসায়ীদের এখনও শুকায়নি, এর ওপর এবছরও একই ধরনের কার্যক্রম চালিয়েছে তারা। আমরা বেশি পরিমাণে পেঁয়াজ আমদানির জন্য এলসি খুলেছিলাম, অনেক পেঁয়াজও লোড হয়ে দেশে প্রবেশের অপেক্ষায় ছিল। তবে হঠাৎ করে ভারত সরকার গত ১৪ সেপ্টেম্বর থেকে পেঁয়াজ রফতানি বন্ধ করে দিয়ে আবার ঝামেলায় ফেললো।

হিলি স্থলবন্দর আমদানি রফতানিকারক গ্রুপের সভাপতি হারুন উর রশীদ বলেন, গত শনিবার আসা ১১ ট্রাক পেঁয়াজের অবস্থা অত্যন্ত করুণ ছিল। অধিকাংশ পেঁয়াজই বেশ কয়েকদিন আটকে থাকার কারণে পচে নষ্ট হয়ে গেছে, পেঁয়াজ দিয়ে পানি ঝড়ছিল। যার কারণে আমাদের অনেক পেঁয়াজ ফেলে দিতে হয়েছে।

তিনি বলেন, অধিকাংশ পেঁয়াজ কম দামে বিক্রি করতে হয়েছে, কিছু কিছু পেঁয়াজ প্রতি বস্তা (৫০ কেজি) ১ ‘ থেকে ২শ’ টাকা দরে বিক্রি করতে হয়েছে। আর বাছাই করা কিছু পেঁয়াজ একটু বেশি দামে বিক্রি করা গেছে। তবে ভারতের এমন আচরণে এই ১১ ট্রাক পেঁয়াজে আমাদের অর্ধকোটি টাকার ওপরে লোকসান গুনতে হয়েছে। বাকি পেঁয়াজ তারা এখনও পাঠায়নি। যদি আরও পরে সেগুলো পাঠায় তাহলে হয়তো ৭৫ ভাগের বেশি নষ্ট পাবো! এমন ক্ষতি মেনে নেওয়া সম্ভব হবে না।

আমরা ভারতীয় রফতানিকারকদের চাপ সৃষ্টি করছি, যেহেতু আমরা ১০ হাজার টনের এলসি দিয়েছি আপনারা এসব পেঁয়াজ রফতানি করেন।

উল্লেখ্য, কোনও নোটিশ না দিয়ে গত ১৪ সেপ্টেম্বর থেকে পেঁয়াজ রফতানি বন্ধ করে ভারত সরকার। টানা ৫ দিন বন্ধ থাকার পর গত শনিবার হিলি, সোনা মসজিদ ও ভোমরা বন্দর দিয়ে অল্প কিছু ট্রাক প্রবেশ করলেও লোড থেকে আনলোড পডন্ত ১০ থেকে ১২ দিন এসব পেয়াজ ত্রিপল ঢাকা ট্রাকে বস্তাবন্দি অবস্থায় আটকে থাকায় নষ্ট হয়ে গেছে।

আমদানিকারকদের দাবি, ৩০ থেকে ৫০ শতাংশ পেঁয়াজই নষ্ট অবস্থায় পেয়েছেন তারা। এরপরও ক্ষতি পোষাতে সীমান্তগুলোর ওপারে দাঁড়িয়ে থাকা পেঁয়াজবাহী সব ট্রাকসহ এই বন্দর দিয়ে এলসি করা বাকি ১০ হাজার টন পেঁয়াজ রফতানির অনুরোধ জানিয়ে যাচ্ছেন তারা।

(হালিম আল রাজি, ঘাটাইল ডট কম)/-

করটিয়া সা’দত কলেজের গাড়ী চালক সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত

ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়কের করটিয়ার মাদারজানি এলাকায় রাস্তা পারাপারের সময় দ্রুতগামী সি.এন.জি’র ধাক্কায় করটিয়া সা’দত বিশ্ববিদ্যালয় কলেজের গাড়ী চালক নিহত হয়েছেন। নিহত গাড়ী চালক বাসাইল উপজেলার করাতি পাড়া গ্রামের মৃত তমির উদ্দিনের ছেলে মো. রমিজ উদ্দিন (৫০)।

রোববার (২০ সেপ্টেম্বর) সন্ধ্যায় টাঙ্গাইল সদর উপজেলার করটিয়ার মাদারজানি এলাকায় এ দুর্ঘটনা ঘটে।

প্রত্যক্ষদর্শী ও গোড়াই হাইওয়ে অফিসার্স ইনচার্জ মো. মোজাফ্ফর হোসেন জানান, রোববার সন্ধ্যায় রাস্তা পারাপার হওয়ার সময় মহাসড়কের রাস্তায় টাঙ্গাইল থেকে ছেড়ে আসা মির্জাপুরগামী একটি সি.এন.জি চালিত অটোরিক্সা ধাক্কা দিয়ে চলে যায়। গুরুতর আহত অবস্থায় তাকে টাঙ্গাইল জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে আসলে কর্তব্যরত ডাক্তার তাকে মৃত ঘোষনা করেন।

এ ব্যাপারে করটিয়া ইউনিয়ন আওয়ামী যুবলীগের সভাপতি এমদাদুল হক এনামুল বলেন, করটিয়া থেকে দেলদুয়ার যাওয়ার রাস্তায় মাদারজানি মহাসড়ক পারাপার হতে হয়। ইতোপূর্বে এখানে সড়ক দুর্ঘটনায় অনেক লোকের প্রাণ কেড়ে নিয়েছে। তাই এলাকাবাসী উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের নিকট সি.এন.জি চলাচলকারী রাস্তাটিতে গতিরোধক স্থাপনের দাবি জানান।

এ বিষয়ে গোড়াই হাইওয়ে পুলিশ ফাঁড়ি অফিসার ইনচার্জ মো. মোজাফফর হোসেন ঘটনার সত্যতা স্বীকার করেন। তিনি আরও বলেন, খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে যায়। এসময় ঘাতক সি.এন.জি ও ড্রাইভার পালিয়ে যেতে সক্ষম হয়।

(টাঙ্গাইল সংবাদদাতা, ঘাটাইল ডট কম)/-

কালিহাতীতে পুকুরের আধিপত্য নিয়ে সংঘর্ষে আহত ৭, এলাকায় চরম উত্তেজনা

টাঙ্গাইলে বাংলাদেশ সেতু কর্তৃপক্ষের (বাসেক) একটি পুকুরে আধিপত্য বিস্তার নিয়ে দু’পক্ষের সংঘর্ষে অন্তত ৭ জন আহত হয়েছেন। এ ঘটনায় উভয় পক্ষই মামলা দায়ের করেছে এবং পুলিশ একজনকে গ্রেপ্তার করে জেল-হাজতে পাঠিয়েছে।

এ নিয়ে এলাকায় চরম উত্তেজনা বিরাজ করছে। যে কোন সময় পুনরায় রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষের আশঙ্কা দেখা দিয়েছে।

জানা গেছে, বঙ্গবন্ধুসেতু-ঢাকা মহাসড়কে কালিহাতী উপজেলার আনালিয়াবাড়ি নামক স্থানে (৮নং কালভার্টের পশ্চিমে) বাসেক’র নিয়ন্ত্রণাধীন ধলাটেঙ্গর মৌজার ১.২০ একর পরিমাপের একটি পুকুর গ্রামীণ মৎস্য ফাউন্ডেশন নামক একটি সংগঠনকে ২৫ বছরের জন্য বন্দোবস্ত দেয়।

কয়েক বছর আগে গ্রামীণ মৎস্য ফাউন্ডেশনের বন্দোবস্ত চুক্তির মেয়াদ শেষ হয়।

এরপর থেকে আনালিয়াবাড়ি গ্রামের মোল্লা, ফকির ও প্রামাণিক পরিবারের যাদের জমি বাসেক অধিগ্রহন করেছিল তারা ওই পুকুরে মাছ চাষ করছিল।

গত ৪ সেপ্টেম্বর দিনগত রাতে স্থানীয় ইউপি সদস্য শফিকুল ইসলাম মন্ডল সোনার নেতৃতে ওই পুকুরের মাছ চুরি করা হয়।

এ নিয়ে গত ১৮ সেপ্টেম্বর (শুক্রবার) আনালিয়াবাড়ি ঈদগাঁ মাঠে গ্রাম্য সালিশি বৈঠকের আয়োজন করা হয়।

সালিশি বৈঠকে সল্লা ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুল আলীমের সভাপতিত্বে কালিহাতী উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান আক্তারুজ্জামান, উপজেলা আ’লীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক ও দশকিয়া ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুল মালেক ভূঁইয়া সহ স্থানীয় গন্যমাণ্য ব্যক্তিরা অংশ নেয়।

বৈঠকে মন্ডল পরিবারের পক্ষে শফিকুল ইসলাম মন্ডল সোনা পুকুরের মাছ চুরি করার কথা স্বীকার করে বক্তব্য উপস্থাপন করেন। এ সময় শফিকুল ইসলাম মন্ডল সোনার ভাই হালিমুজ্জামান মন্ডল হিরোর নেতৃত্বে ১০-১২ ব্যক্তি লাঠি-সোটা নিয়ে সালিশি বৈঠকে হামলা চালায়। এক পর্যায়ে উভয়পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ বাঁধে।

সংঘর্ষে ইউপি সদস্য শফিকুল ইসলাম মন্ডল সোনা (৪২), হারুন মন্ডল (২৮), জয়নাল প্রামাণিক (৩৫), মিজানুর প্রামাণিক (৪২) ও শহিদুল ইসলাম মন্ডল (৩৫) আহত হন। আহতদের টাঙ্গাইল জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

এ ঘটনায় প্রামাণিক ও মন্ডল পরিবারের পক্ষ থেকে কালিহাতী থানায় অভিযোগ দাখিল করে। থানা পুলিশ মন্ডল পরিবারের অভিযোগটি এজাহার হিসেবে গ্রহন করে। পরদিন ১৯ সেপ্টেম্বর (শনিবার) সকালে পুলিশ ময়ছের প্রামাণিককে গ্রেপ্তার করে।

ওইদিন দুপুরে মন্ডল পরিবারের লোকজন আবারও প্রামাণিক পরিবারের সদস্যদের বাড়িতে হামলা চালিয়ে গ্রেপ্তারকৃত ময়ছের প্রামাণিকের স্ত্রী শিউলী বেগম ও শহিদুল প্রামাণিকের স্ত্রী নুরুন্নাহার বেগমকে পিটিয়ে আহত করে। তাদেরকে পুলিশের সহায়তায় উদ্ধার করে টাঙ্গাইল জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

পরে প্রামাণিক পরিবারের পক্ষ থেকে মো. সুমন প্রামাণিক বাদি হয়ে রোববার (২০ সেপ্টেম্বর) টাঙ্গাইলের জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট (কালিহাতী আমলী) আদালতে মামলা (নং-৩২৬/২০২০ইং) দায়ের করে।

পাল্টাপাল্টি মামলা দায়ের করায় এলাকায় চরম উত্তেজনা বিরাজ করছে। যেকোন সময় পুনরায় উভয়পক্ষের মধ্যে রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষের আশঙ্কা দেখা দিয়েছে।

বাসেক বঙ্গবন্ধু সেতু সাইট অফিস সূত্রে জানা যায়, পুকুরটি তাদের মালিকানাধীন। গ্রামীণ মৎস্য ফাউন্ডেশনের বন্দোবস্তের মেয়াদ শেষ হওয়ার পর পুকুরটি পরিত্যক্ত অবস্থায় রয়েছে।

কেউ যাতে মাছ না ছাড়ে বা অন্য কোনভাবে দখল-জবরদখল না করে সেজন্য কালিহাতী থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি করা হয়েছে।

সংঘর্ষে আহত ইউপি সদস্য শফিকুল ইসলাম মন্ডল সোনা জানান, সালিশি বৈঠকে উভয়পক্ষে সংঘর্ষ বাঁধে। গ্রামের কেউ তাকে আঘাত করতে পারেন তা তিনি বিশ্বাস করতে পারছেন না।

সালিশি বৈঠকের সভাপতি সল্লা ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুল আলীম জানান, সরকারি পুকুরের মাছ ধরাকে কেন্দ্র করে প্রামাণিক ও মন্ডল পরিবারের মধ্যে বিরোধ। ওই বিরোধ মিমাংসার জন্য সালিশি বৈঠকের আয়োজন করা হয়।

বৈঠকে ইউপি সদস্য শফিকুল ইসলাম মন্ডল সোনা বক্তব্য উপস্থাপনের সময় তার ভাই হালিমুজ্জামান মন্ডল হিরো বৈঠকে হামলা চালায়। এ সময় উভয় পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ বাঁধে।

কালিহাতী থানার অফিসার ইনচার্জ(ওসি) সওগাতুল আলম জানান, আনালিয়াবাড়িতে সংঘর্ষের ঘটনায় উভয় পরিবারের পক্ষ থেকে থানায় অভিযোগ দিয়েছে।

গুরুত্বর আহত বিবেচনা করে মন্ডল পরিবারের অভিযোগটি এজাহার হিসেবে গ্রহন করা হয়েছে। তবে, দুটি অভিযোগেরই তদন্ত চলছে।

কালিহাতী উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান মো. আক্তারুজ্জামান জানান, সালিশি বৈঠকে সংঘর্ষের ঘটনাটি অত্যন্ত দুঃখজনক। সালিশে এ ধরণের সংঘর্ষ সামাজিক অবক্ষয়ের অংশ। তিনি এ ঘটনার তীব্র নিন্দা জানান।

(স্টাফ রিপোর্টার, ঘাটাইল ডট কম)/-

টাঙ্গাইল-২ আসনের এমপি ছোটমনি করোনা পজিটিভ

টাঙ্গাইল জেলা আওয়ামী লীগের বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিষয়ক সম্পাদক টাঙ্গাইল-২ (গোপালপুর-ভূঞাপুর) আসনের সংসদ সদস্য তানভীর হাসান ছোটমনি করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন।

সোমবার (২১ সেপ্টেম্বর) নমুনার ফলাফলে তার করোনা পজেটিভ আসে। এ নিয়ে জেলায় মোট ৩ জন সংসদ সদস্য করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হলেন।

সোমবার (২১ সেপ্টেম্বর) দুপুরে তানভীর হাসান ছোটমনি তার নিজের ফেসবুকে এক স্ট্যাটাসের মাধ্যমে করোনায় আক্রান্ত হওয়ার বিষয়টি জানান।

তিনি ফেসবুকে লিখেন, ‘আমার করোনা পজিটিভ এসেছে। আমার জন্য সবাই দোয়া করবেন। আমি যেন সুস্থ হয়ে আবার আপনাদের মাঝে ফিরে এসে আপনাদের পাশে দাড়াতে পারি।’

উল্লেখ্য, তানভীর হাসান ছোটমনি করোনাকালীন সময় তার নিজ সংসদীয় আসনে গরীব এবং অসহায়দের পাশে দাঁড়িয়েছেন। করোনার ঝুঁকি নিয়ে ছুটে গিয়েছেন এসব অসহায় এবং গরীব মানুষের কাছে।

এছাড়াও তানভীর হাসানের বড় ভাই এবং তাদের মা করোনায় আক্রান্ত হয়েছিলেন। চিকিৎসা শেষে তারা বর্তমানে সুস্থ আছেন।

(স্টাফ রিপোর্টার, ঘাটাইল ডট কম)/-

ভিপি নুরুলের বিরুদ্ধে ঢাবি ছাত্রীর ধর্ষণ মামলা

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদের (ডাকসু) সহ-সভাপতি (ভিপি) নুরুল হক নুরের বিরুদ্ধে ধর্ষণের অভিযোগে মামলা দায়ের করেছেন ঢাবির এক শিক্ষার্থী।

গতকাল রোববার (২০ সেপ্টেম্বর) রাতে ওই ছাত্রী ঢাকার লালবাগ থানায় মামলাটি দায়ের করেন। বাদী শিক্ষার্থী ঢাবির বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব হলে থাকেন।

আজ সোমবার (২১ সেপ্টেম্বর) দুপুরে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন লালবাগ থানার ওসি কে এম মুস্তাফিজ।

তিনি বলেন, গতকাল রোববার রাতে ভুক্তভোগী ওই শিক্ষার্থী ভিপি নুরের নামে ধর্ষণের একটি অভিযোগ দায়ের করেন। আমরা বিষয়টি তদন্ত করে দেখছি। বিস্তারিত পরে জানানো হবে।

লালবাগ বিভাগের উপকমিশনার বিপ্লব বিজয় তালুকদার বলেন, অভিযোগকারী ও অভিযুক্তদের সবাই ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী। এ ঘটনায় আসামি একাধিক। রোববার রাতে বাদী হয়ে অভিযোগকারী লালবাগ থানায় মামলা করেন।

মামলার প্রধান আসামি করা হয়েছে বাংলাদেশ ছাত্র অধিকার পরিষদের আহ্বায়ক হাসান আল মামুনকে। ধর্ষণের স্থান হিসেবে লালবাগ থানার নবাবগঞ্জ বড় মসজিদ রোডে হাসান আল মামুনের বাসার কথা উল্লেখ করা হয়েছে।

নুর ও মামুন ছাড়া মামলার অন্য আসামিরা হলেন- বাংলাদেশ ছাত্র অধিকার পরিষদের যুগ্ম-আহ্বায়ক নাজমুল হাসান সোহাগ, বাংলাদেশ ছাত্র অধিকার পরিষদের যুগ্ম-আহ্বায়ক (২) মো. সাইফুল ইসলাম, ছাত্র অধিকার পরিষদের সহ-সভাপতি মো. নাজমুল হুদা এবং ঢাবি শিক্ষার্থী আবদুল্লাহ হিল বাকি।

নুরুল হক নূর ২০১৮ সালে সরকারি চাকরিতে কোটা সংস্কারের দাবিতে গড়ে ওঠা মঞ্চের যুগ্ম আহ্বায়ক ছিলেন। পরে বছর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদ নির্বাচনে তিনি ভিপি নির্বাচিত হয়েছিলেন।

(স্টাফ রিপোর্টার, ঘাটাইল ডট কম)/-

ক্রীড়া সংগঠকের আড়ালে প্রতারণা করতেন টাঙ্গাইলের পীরজাদা মুনীর

এলপিজি গ্যাস ও মদের বারের লাইসেন্স পাইয়ে দেওয়া এবং মানুষকে বিদেশে পাঠানোর কথা বলে টাকা আত্মসাৎসহ নানা ধরনের প্রতারণার অভিযোগ উঠেছে সাইক্লিং ফেডারেশনের সভাপতি শফিউল্লাহ আল মুনীরের বিরুদ্ধে। চেক প্রতারণার একটি মামলায় রিমান্ডে থাকা শফিউল্লাহ আল মুনীরকে জিজ্ঞাসাবাদ করে এসব তথ্য পেয়েছে পুলিশ।

শফিউল্লাহ আল মুনীরের বাড়ি টাঙ্গাইলের সদর উপজেলার বাঘিল ইউনিয়নের ঢালান শিবপুর গ্রামে।

ঢাকার বনানী থানায় করা চেক প্রতারণার অভিযোগে করা একটি মামলায় মুনীরকে গত ২৭ আগস্ট গ্রেপ্তার করা হয়। তাঁকে এ মামলায় সাত দিনের রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করছে মহানগর গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি)। গতকাল রোববার তাঁর রিমান্ডের চতুর্থ দিন ছিল।

ইনডেক্স গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক শফিউল্লাহ আল মুনীরের বিরুদ্ধে চেক প্রতারণার মামলাটি করেছেন জয়ন্ত কুমার দেব নামের এক ব্যক্তি। মামলাটি তদন্ত করছে ডিবি। তাঁর বিরুদ্ধে প্রতারণাসহ আরও তিনটি মামলার খোঁজ পেয়েছে ডিবি।

মুনীরকে ২০০৮ সালের ৪ সেপ্টেম্বর পর্নো সিডি তৈরির অভিযোগে ঢাকার সেগুনবাগিচার একটি অ্যাপার্টমেন্ট থেকে মাদক, চার কথিত মডেলসহ গ্রেপ্তার হয়েছিলেন।

বনানী থানায় সর্বশেষ দায়ের হওয়া মামলার বরাত দিয়ে পুলিশ জানায়, মুনীর উত্তরবঙ্গের ১৪টি জেলায় এলপিজি গ্যাসের লাইসেন্স পাইয়ে দেওয়ার কথা বলে জয়ন্ত দেবের কাছ থেকে ৩ কোটি টাকা নেন। কিন্তু তিনি লাইসেন্স দেওয়া নিয়ে টালবাহানা করতে থাকেন।

একপর্যায়ে মুনীর জয়ন্ত দেবকে ১ কোটি ৭২ লাখ টাকার একটি চেক দেন। ব্যাংকে জমা দিলে চেকটি প্রত্যাখ্যাত হয়।

জয়ন্ত কুমার দেব বলেন, তিনি আমদানি ও রপ্তানির ব্যবসায় যুক্ত। আর শফিউল্লাহ মুনীর এলপিজি গ্যাসের ব্যবসা করেন। তিন বছর আগে মুনীরের কাছ থেকেই তিনি ডিলারশিপ নিয়েছিলেন।

শফিউল্লাহ মুনীর তাঁকে লাইসেন্স করিয়ে দিতে পারবেন বলে তাঁর কাছ থেকে ৩ কোটি টাকা নিয়েছিলেন। কিন্তু লাইসেন্স করিয়ে না দিয়ে তাঁর দেওয়া সব টাকা আত্মসাৎ করেন।

এ মামলার তদন্ত তদারক কর্মকর্তা হলেন ডিবির গুলশান বিভাগের উপকমিশনার মশিউর রহমান। তিনি বলেন, শফিউল্লাহ মুনীরের বিরুদ্ধে আনা অভিযোগের বিষয়ে প্রাপ্ত তথ্য-উপাত্ত যাচাই-বাছাই করে দেখা হচ্ছে।

তদন্ত-সংশ্লিষ্ট অপর একটি সূত্র জানায়, শফিউল্লাহ আল মুনীরকে জিজ্ঞাসাবাদে নানা ধরনের প্রতারণার তথ্য পাওয়া যাচ্ছে। তিনি বারের লাইসেন্স করিয়ে দেওয়ার কথা বলেও একাধিক ব্যক্তি থেকে বিভিন্ন অঙ্কের টাকা নিয়েছেন। সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীদের কাঙ্ক্ষিত স্থলে বদলি করার কথা বলে টাকা নিয়ে প্রতারণা করেছেন বলে অভিযোগ আছে।

সাবেক তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সময় তিনি বিদেশি একটি কোম্পানির অফিস ও হোটেল নির্মাণের ঠিকাদারি নিয়েছিলেন মুনীর। কিন্তু কাজটি নিজে না করে অন্যকে দিয়ে করাতে যান। তখন তাঁর বিরুদ্ধে প্রতারণার মামলা করে ওই কোম্পানি।

ঢাকার অদূরে পূর্বাচলে ফায়ার সার্ভিসের জায়গায় আন্তর্জাতিক কনভেনশন সেন্টার নির্মাণের কাজ নিয়েছিলেন। ওই কাজ নিয়ে তাঁর বিরুদ্ধে চেক প্রতারণার মামলা করা হয়। মুনীরের কয়েকজন ব্যক্তিগত নিরাপত্তাকর্মী রয়েছে। অস্ত্রধারী নিরাপত্তাকর্মীদের দিয়ে তিনি অন্যদের ভয়ভীতি দেখাতেন বলে অভিযোগ আছে।

গত ২৮ জুন প্রাণনাশের হুমকি দেওয়ার অভিযোগে মুনীরের বিরুদ্ধে গুলশান থানায় সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করেন তাঁর সাবেক স্ত্রীর ভাই এম এম এহসান নিজামী। এর তিন দিন আগে ২৫ জুন এহসান নিজামী তাঁর গাড়ি ভাঙচুর করার অভিযোগে মুনীরের বিরুদ্ধে মোহাম্মদপুর থানায় আরেকটি জিডি করেছিলেন।

যুক্ত আরও ফেডারেশনের সঙ্গে

যাঁর বিরুদ্ধে প্রতারণার এত অভিযোগ, সেই শফিউল্লাহ আল মুনীর সাইক্লিং ফেডারেশনের পাশাপাশি আরও কয়েকটি ফেডারেশনের গুরুত্বপূর্ণ পদে আছেন। এসব ফেডারেশনের কর্মকর্তারাও মুনীরের কার্যক্রম নিয়ে অসন্তুষ্ট। বাংলাদেশ ভারোত্তোলন ফেডারেশন ও আর্চারি ফেডারেশনের বর্তমান কমিটির সহসভাপতি এই মুনীর।

সংশ্লিষ্ট একাধিক সূত্র জানায়, ২০১৭ সালে এশিয়ান হকি ফেডারেশনের (এএইচএফ) এক কর্মকর্তার সঙ্গে তদবির করে এই ফেডারেশনের সাব-কমিটিতে ঢোকেন মুনীর। বর্তমানে তিনি এশিয়ান হকি ফেডারেশনের ইভেন্ট, স্ট্র্যাটেজি ও ডেভেলপমেন্ট কমিটির চেয়ারম্যান।

২০১৭ সালে গঠনতন্ত্র অমান্য করে মোহামেডানের হকি কমিটির চেয়ারম্যান হন মুনীর। ২০১২ সালের আগপর্যন্ত টানা ১৬ বছর ক্লাবটির হকি কমিটির সম্পাদক ছিলেন সাজেদ এ এ আদেল। মোহামেডান ক্লাব লিমিটেড হওয়ার পরপরই আদেল হকি কমিটির চেয়ারম্যান হন। কিন্তু গঠনতন্ত্র উপেক্ষা করে তাঁকে সরিয়ে হকি কমিটির চেয়ারম্যান করা হয় শফিউল্লাহ আল মুনীরকে।

তখন ক্লাবের বেশ কয়েকজন কর্মকর্তা এ নিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করেছিলেন। অথচ মুনীর মোহামেডানের স্থায়ী সদস্যও ছিলেন না।

সাজেদ এ এ আদেল বলেন, ‘আমাকে সরিয়ে দিয়ে অবৈধভাবে মুনীরকে ওই সময় চেয়ারম্যান বানানো হয়েছিল। তাঁকে হকি কমিটির সম্পাদক বানালেও আমি মানতে পারতাম। কিন্তু তখন পুরো প্রক্রিয়াটাই করা হয়েছিল অবৈধভাবে।’

রাতারাতি জাপার কেন্দ্রীয় নেতা

শফিউল্লাহ আল মুনীরের পৈতৃক বাড়ি টাঙ্গাইলের সদর উপজেলার বাঘিল ইউনিয়নের ঢালান শিবপুর গ্রামে। বাবার চাকরির সুবাদে বড় হন ঢাকার এজিবি কলোনিতে।

তিনি ২০১৮ সালের ৩০ ডিসেম্বরের একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের আগে জাতীয় পার্টিতে (জাপা) যোগ দেন। এক মাসের মধ্যেই দলটির সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য ও টাঙ্গাইল জেলা জাপার আহ্বায়ক পদ লাভ করেন।

গত নির্বাচনে তিনি টাঙ্গাইল-৫ (সদর) আসনে জাপার প্রার্থী হিসেবে লাঙ্গল প্রতীক নিয়ে নির্বাচন করেন। অবশ্য এমপি নির্বাচিত হন আওয়ামী লীগের প্রার্থী ছানোয়ার হোসেন।

মুনীর এখনো টাঙ্গাইল জেলা জাতীয় পার্টির আহ্বায়ক পদে বহাল আছেন বলে জানান এই কমিটির সদস্যসচিব আবদুস সালাম চাকলাদার।  কেন্দ্রীয় সভাপতিমণ্ডলীতেও বহাল আছেন।

এ বিষয়ে জাতীয় পার্টির বর্তমান চেয়ারম্যান জি এম কাদের বলেন, ‘বড় ভাইয়ের (এরশাদ) সময় সে প্রেসিডিয়াম মেম্বার হয়েছে, সেটাই আমরা কন্টিনিউ করেছি। তিন-চার দিন আগে টাঙ্গাইলের কমিটি নিয়ে তার খবর নিতে গিয়ে শুনলাম, সে জেলে আছে। এর বেশি কিছু জানি না।’

(বিশেষ প্রতিবেদক, ঘাটাইল ডট কম)/-

ঘাটাইলে ক্ষুদ্র নৃতাত্বিক গোষ্ঠিকে উন্নত জাতের বকনা প্রদান

সোমবার (২১ সেপ্টেম্বর) সকালে টাঙ্গাইলের ঘাটাইল উপজেলায় বিভিন্ন ইউনিয়নে সমতল ভূমিতে বসবাসরত ৩৯ জন অনগ্রসর ক্ষুদ্র নৃ-তাত্বিক গোষ্ঠির আর্থ সামাজিক ও জীবন মানোন্নয়নের লক্ষ্যে সমন্বিত প্রানিসম্পদ উন্নয়ন প্রকল্পের আওতায় সুফল ভোগীদের মাঝে উন্নত জাতের ক্রসব্রিড বকনা, দানাদার খাদ্য ও গৃহনির্মাণ উপকরণ বিতরণ অনুষ্ঠিত হয়েছে।

উপজেলা প্রানী সম্পদ অধিদপ্তর আয়োজিত উপজেলা নির্বাহী অফিসার অঞ্জন কুমার সরকারের সভাপতিত্বে বিতরণ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন টাঙ্গাইল-৩ ঘাটাইল আসনের সংসদ সদস্য আতাউর রহমান খান।

এতে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন উপজেলা চেয়ারম্যান শহিদুল ইসলাম লেবু, পৌর মেয়র শহিদুজ্জামান খান, উপজেলা প্রানীসম্পদ কর্মকর্তা আব্দুল মান্নান, উপজেলা মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান শাহিনা সুলতানা শিল্পি সহ বিভিন্ন ইউনিয়নের চেয়ারম্যান বৃন্দ।

(রবিউল আলম বাদল, ঘাটাইল ডট কম)/-

রাণীনগরে ভিজিডির চাল আত্মসাতে ইউপি চেয়ারম্যান বরখাস্ত

নওগাঁর রাণীনগরে হত দরিদ্রদের জন্য বরাদ্দ করা ভিজিডির ৩৯৪০ কেজি চাল আত্মসাতের ঘটনা তদন্তে প্রমাণিত হওয়ায় একডালা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মোঃ রেজাউল ইসলামকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে।

সূত্রমতে, ওই ইউনিয়ন পরিষদ সংলগ্ন ভ্যান চালক জয়েন উদ্দিনের বাড়িতে যাত্রাপুর গ্রামের চাল ব্যবসায়ী মুজিবরের ছেলে বাবু ও চেয়ারম্যান সুবিধাভুগীদের কাছ থেকে চাল কিনে বস্তা পরিবর্তনের কাজ করছিলো।

স্থানীয়দের মাধ্যমে খবর পেয়ে সংবাদ মাধ্যমের কর্মীরা ঘটনাস্থলে গেলে চাল রেখে সবাই পালিয়ে যায়। পরে স্থানীয় প্রশাসন অভিযান পরিচালনা করেন। এ নিয়ে বিভিন্ন গণম্যাধমে ফলাও করে সংবাদ প্রচার হয়।

তদন্তে অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ায় সোমবার ২০ সেপ্টেম্বর স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয়ের স্থানীয় সরকার বিভাগের উপ-সচিব মো: ইফতেখার আহমেদ চৌধুরী স্বাক্ষরিত এক আদেশে বরখাস্তের প্রজ্ঞাপন জারি করা হয়েছে।

প্রসঙ্গতঃ গত ৫ আগস্ট উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আল মামুন একডালা ইউনিয়ন পরিষদ সংলগ্ন যাত্রাপুর গ্রামের বিভিন্ন বাড়িতে দিনব্যাপী অভিযান পরিচালনা করে ৩৯৪০কেজি ভিজিডির চাল উদ্ধার করেন।

(রাজেকুল ইসলাম, রাণীনগর, নওগাঁ/ ঘাটাইল ডট কম)/-