‘মৃত্যুর ৪২ বছর পর কালিহাতীতে আবিষ্কৃত হয় শামসুল হকের কবর’

আওয়ামী মুসলিম লীগের প্রতিষ্ঠাতা সাধারণ সম্পাদক ও ভাষা সৈনিক শামসুল হকের ৫৫তম মৃত্যু বার্ষিকী আজ শুক্রবার (১১ সেপ্টেম্বর)। ১৯১৮ সালের ১ ফেব্রুয়ারি টাঙ্গাইল জেলার দেলদুয়ার উপজেলার মাইঠান গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন তিনি। ১৯৬৪ সালে শামসুল হক হঠাৎ করেই নিখোঁজ হন এবং ১৯৬৫ সালের ১১ সেপ্টেম্বর (শনিবার) ইন্তেকাল করেন।

শামসুল হক গবেষণা পরিষদ অনেক খুঁজে মৃত্যুর ৪২ বছর পর ২০০৭ সালে টাঙ্গাইলে কালিহাতী উপজেলার কদিম হামজানিতে মরহুমের কবর আবিষ্কার করেন।

ভাষা সৈনিক শামসুল হক পূর্ব পাকিস্তানের সরকারবিরোধী রাজনীতিতে ছিলেন প্রথম সারির নেতা। বায়ান্ন’র ভাষা আন্দোলনে তার অশেষ অবদান রয়েছে।

১৯৪৩ সালের শেষ দিকে বঙ্গীয় প্রাদেশিক মুসলিম লীগের কাউন্সিল অধিবেশনে আবুল হাশিম সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন। ১৯৪৫ সালে নভেম্বর মাসে কেন্দ্রীয় আইন পরিষদের নির্বাচনে পূর্ববঙ্গের মুসলিম লীগ মনোনীত প্রার্থীরা প্রায় সকলেই জয়লাভ করেন। ১৯৪৬ সালের প্রাদেশিক আইনসভার নির্বাচনে মুসলিম লীগ শতকরা ৯৭ ভাগ আসনেই জয়লাভ করে। ওই সময় প্রাদেশিক মুসলিম লীগের কর্মিশিবিরের নেতৃত্বে ছিলেন শামসুল হক। এ সব বিবেচনায় পাকিস্তান সৃষ্টিতে শামসুল হকের গুরুত্বপূর্ণ অবদান অনস্বীকার্য। এ ছাড়া সিলেটকে পাকিস্তানভুক্ত করার গণভোটে তার অবদান রয়েছে।

নতুন রাষ্ট্র পাকিস্তানে মুসলিম লীগ ক্ষমতাসীনদের পকেট প্রতিষ্ঠানে পরিণত হয়। এর প্রতিবিধানে ১৯৪৮ সালের জানুয়ারি মাসে ১৫০নং মোগলটুলির অফিসে শামসুল হক, কামরুদ্দীন আহমদ, শেখ মুজিবুর রহমান ও খন্দকার মোশতাক আহমেদ এক কর্মী সম্মেলন আহ্বান করেন। পরে আতাউর রহমান খান, শামসুল হক, শেখ মুজিবুর রহমান, মিসেস আনোয়ারা খাতুন ও খন্দকার মোশতাক আহমেদের সমন্বয়ে গঠিত একটি প্রতিনিধি দল মাওলানা আকরম খানের সঙ্গে দেখা করেন মুসলিম লীগে সদস্য হওয়ার রশিদ বই পাওয়ার জন্য; কিন্তু কোনো লাভ হয় না। আতাউর রহমান খান ও আনোয়ারা খাতুন একই উদ্দেশ্যে করাচি গিয়ে মুসলিম লীগের সংগঠক চৌধুরী খালেকুজ্জামানের সঙ্গেও দেখা করেন কিন্তু কোনো লাভ হয় না। ফলে কর্মীরা নতুন সংগঠনের প্রয়োজনীয়তা তীব্রভাবে অনুভব করেন।

১৯৪৮ সালের ১১ মার্চ ছাত্ররা সারা প্রদেশে রাষ্ট্রভাষা বাংলার দাবিতে ধর্মঘটের ডাক দেয়। সেদিন সচিবালয়, নীলক্ষেত ও হাইকোর্টের সামনে ছাত্র-পুলিশ সংঘর্ষ ঘটে। বহু ছাত্র আহত এবং গ্রেফতার হন। যে সব নেতৃস্থানীয় ব্যক্তি সেদিন গ্রেফতার হন তাদের মাঝে ছিলেন শামসুল হক, শেখ মুজিবুর রহমান, অলি আহাদ প্রমুখ।

১৯৪৯ সালের ২৩ জুন থেকে ২৪ জুন ঢাকা রোজ গার্ডেনে মওলানা ভাসানীর সভাপতিত্বে মুসলিম লীগের কর্মী সম্মেলনে পূর্ব পাকিস্তানে মুসলিম লীগের বিরোধী রাজনৈতিক দল পূর্ব-পাকিস্তান আওয়ামী মুসলিম লীগ গঠিত হয়। মওলানা ভাসানী ছিলেন এই দলের সভাপতি। শামসুল হক সাধারণ সম্পাদক। শেখ মুজিবুর রহমান ও খন্দকার মোশতাক আহমেদ যুগ্ম-সম্পাদক নির্বাচিত হন।

পরবর্তীতে মুসলিম শব্দটি বাদ দেওয়া হয় এবং বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ আত্মপ্রকাশ করে।

১৯৪৯ সালের মার্চ মাসে টাঙ্গাইলের দক্ষিণ মুসলিম কেন্দ্র থেকে মওলানা ভাসানীর সদস্য পদ বাতিল ঘোষণা এবং উপনির্বাচনের ব্যবস্থা করা হয়। এই উপনির্বাচনে মুসলিম লীগের প্রার্থী ছিলেন করটিয়ার জমিদার খুররম খান পন্নী। শামসুল হক তার বিরুদ্ধে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে জয়লাভ করেন। এই নির্বাচনেই পূর্ব পাকিস্তানের জনগণ প্রথম মুসলিম লীগের বিরুদ্ধে ভোট দেয়।

১৯৫২ সালের ২১ ফেব্রুয়ারি সকালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ঐতিহাসিক আমতলায় ছাত্রদের সভার শুরুতে শামসুল হক সেখানে উপস্থিত হন। তিনি ছাত্রদের বোঝাতে চেষ্টা করেন ওই মুহূর্তে প্রত্যক্ষ সংঘর্ষে যাওয়ার পরিণতি- যা ভবিষ্যৎ আন্দোলন ও অন্যান্য কাজের জন্য সুফল বয়ে আনবে না। কিন্তু ছাত্ররা সবাই ১৪৪ ধারা ভঙ্গের পক্ষে ছিলেন। ২১ ফেব্রুয়ারির পর সরকার মাওলানা আবদুর রশীদ তর্কবাগীশ, খয়রাত হোসেন, আবুল হাশিম, মনোরঞ্জন ধর, শামসুল হকসহ কয়েকজনকে জননিরাপত্তা আইনে গ্রেফতার করে। ১৯৫৩ সালে শরীর ও মানসিক অসুস্থতা নিয়ে তিনি মুক্তি পান। ওই সময়ই তাকে আওয়ামী লীগ থেকে বহিষ্কার করা হয়।

১৯৬৪ সাল পর্যন্ত মানসিক ভারসাম্যহীন শামসুল হককে পথে পথে ঘুরতে দেখেছেন অনেকেই। তারপর হঠাৎ তিনি নিখোঁজ হন। এই নেতার নিখোঁজ নিয়ে জাতীয় রাজনীতিতে রহস্যের সৃষ্টি হয়।

২০০৭ সালে তার নিখোঁজ রহস্য উন্মোচিত হয়। বলা হয়ে থাকে, ১৯৬৫ সালের মাঝামাঝি সময়ে টাঙ্গাইলের কালিহাতী উপজেলার জোকারচর গ্রামের মহিউদ্দিন আনসারী (তৎকালীন নামকরা কংগ্রেস নেতা) কলকাতা থেকে সিরাজগঞ্জ হয়ে বাড়ি ফেরার পথে কোনো এক স্থান থেকে শামসুল হককে বাড়িতে নিয়ে আসেন। তখন শামসুল হক শারীরিক ও মানসিকভাবে ভীষণ অসুস্থ ছিলেন। মহিউদ্দিন আনসারীর বাড়িতে ৭ দিন থাকার পর তার হঠাৎ খুব জ্বর হয়। স্থানীয় হোমিও চিকিৎসক শুকলাল দাস তার চিকিৎসা করেন। প্রচণ্ড জ্বরে শামসুল হক ১৯৬৫ সালের ১১ সেপ্টেম্বর (শনিবার) দুপুর ২টা থেকে আড়াইটার মধ্যে মারা যান।

সাহিত্যিক আবু জাফর শামসুদ্দীন ‘আত্মস্মৃতি : সংগ্রাম ও জয়’ গ্রন্থে লিখেছেন, ‘১৯৫২ সালের ভাষা আন্দোলনে তাকে (শামসুল হককে) আটক করা হয়। তখন তিনি বিবাহিত, একটি কন্যা সন্তানের পিতা। স্ত্রী নরসিংদীর সেকান্দার মাস্টার সাহেবের কন্যা আফিয়া খাতুন এমএ কলেজের লেকচারার। জেলখানায় শামসুল হকের মস্তিষ্ক বিকৃতি ঘটে। নিজ পরিবারের প্রতি তার মনে সন্দেহ দানা বাঁধে। আফিয়া খাতুন তাকে ত্যাগ করেন। আফিয়া এখন পাকিস্তানে মিসেস আফিয়া দিল।

‘শামসুল হক সম্পূর্ণ বিকৃতমস্তিষ্ক অবস্থায় জেলখানা থেকে বেরিয়ে আসেন। আওয়ামী মুসলিম লীগের প্রতিষ্ঠাতা সম্পাদক শামসুল হকের চিকিৎসায় আওয়ামী মুসলিম লীগ কোনো উদ্যোগ নিয়েছিল বলেও মনে পড়ে না। শামসুল হক ঢাকার রাস্তায় রাস্তায় ঘুরে বেড়াতেন- কখনও বন্ধু-বান্ধবদের বাড়িতে উপস্থিত হয়ে টাকা ধার চাইতেন, কেউ সমাদর করলে আহার করতেন।’

‘টাঙ্গাইলের ওয়ার্টারলু বিজয়ী শামসুল হকের মৃত্যু কোথায় কি অবস্থায় হলো তার কোনো বিবরণ সংবাদপত্রে প্রকাশিত হতে দেখিনি। শোকসভাও করেনি কোনো রাজনৈতিক দল বা অন্যরা। অথচ এই শামসুল হক একদিন ছিলেন বাংলার তরুণ মুসলিম ছাত্রসমাজের প্রিয় নেতা- ১৯৫২ সালেও ভাষাসংগ্রামী এবং আওয়ামী মুসলিম লীগের প্রতিষ্ঠাতা সাধারণ সম্পাদক।’

দীর্ঘদিন ধরেই আওয়ামী লীগ থেকে তার বহিষ্কার, মানসিক ভারসাম্য হারিয়ে নিখোঁজ হওয়া ও মৃত্যু রহস্য হয়েই ছিল। এর মধ্যেই ২০০৭ সালে টাঙ্গাইলের কালিহাতির কদিম হামজানিতে তার কবর আবিষ্কার হয়। একইসঙ্গে জোকারচরের জনপ্রিয় কংগ্রেস নেতা মহিউদ্দীন আনসারির বাড়িতে তার মৃত্যুর বিষয়টি প্রকাশিত হয়।

এ বিষয়ে যোগাযোগ করা হলে প্রয়াত মহিউদ্দীন আনসারীর নাতি সেলিম আনসারী জানান, ১৯৬৫ সালে শামসুল হক তাদের বাড়িতেই মারা যান। তিনি জানান, বিপরীতমুখী রাজনীতি করলেও ১৯৬৫ সালের মাঝামাঝিতে তার দাদা মহিউদ্দিন আনসারী কলকাতা থেকে বাড়ি ফেরার পথে কোথাও থেকে শারীরিক ও মানসিকভাবে অত্যন্ত অসুস্থ বন্ধু শামসুল হককে দেখে বাড়িতে নিয়ে আসেন। কিন্তু রাজনৈতিক পরিস্থিতির কারণে শামসুল হকের তথ্য গোপনই থেকে যায়। শারীরিক ও মানসিকভাবে ভেঙ্গে পড়া এই নেতা ‘পাগলের মত’ জীবনযাপন করতেন। একসময়ের তীব্র জনপ্রিয় নেতা সামনে থাকলেও তাকে কেউই চিনতে পারেননি, এমনকি তার মৃত্যুও সেই রহস্য ভেদ করতে পারেনি।

বর্তমানে স্থানীয় শ্রমিক লীগের রাজনীতিতে সম্পৃক্ত সেলিম আনসারী বলেন, ‘আমাদের বয়স তখন ৭-৮ বছর হবে। তিনি বেশ কিছুদিন আমাদের বাড়িতে ছিলেন, ৪-৫ মাস হবে। একসময় প্রচন্ড জ্বরে তিনি মারা যান।’

আওয়ামী লীগ ও কংগ্রেসের বিপরীতমুখী রাজনৈতিক অবস্থানের কারণেই বিতর্ক এড়াতে শামসুল হকের মৃত্যুর ঘটনা গোপন করা হয়েছিল বলে জানান তিনি। সেলিম আনসারী বলেন, ‘আমরা তো তখন ছোট, তিনি যে শামসুল হক সেটা বুঝতে পারি নাই। আমাদের বাড়িতে অনেক নেতা থাকতেন, অনেক ফকির থাকতো সবসময়। পরে বুঝতে পেরেছি যে, তিনি সেই বিখ্যাত নেতা ছিলেন। শুধু আমরা না, এলাকার কেউই তাকে চিনতেন না।’

মধ্যবিত্ত পরিবারের সন্তান হয়েও এই টাঙ্গাইলেই সাধারণ নির্বাচনে জমিদার কুরুম খান পন্নীকে পরাজিত করে সারা ভারতে আলোচনায় এসেছিলেন শামসুল হক। ১৯৪৯ সালে মওলানা ভাসানীর সংসদ সদস্যপদ বাতিল হওয়ার পর উপনির্বাচনে জমিদার খুররম খান পন্নীকে বিপুল ভোটে পরাজিত করেন শামসুল হক খান, এটিই ছিল পূর্ব পাকিস্তানে মুসলিম লীগের বিরুদ্ধে জনগণের প্রথম ভোটাধিকার প্রয়োগ। এই জনপ্রিয় নেতাকে তার জেলার মানুষরা চিনতে না পারার কারণ কি জানতে চাইলে সেলিম আনসারী বলেন, ‘তাকে কেউ চিনতো না, কারণ তিনি যেভাবে একসময় টাঙ্গাইলে আসতেন, শেষ বয়সে তো সেভাবে ফেরেননি। দুই সময়ের অনেক তফাত ছিল। আগে যে পোশাক ছিল, সেই পোশাকও তো ছিল না।’

তিনি বলেন, ‘শেষে তো এসেছেন ছিন্ন পোশাকে, এক দাড়ি-টুপিওলা মানুষ। আমাদের বাসায় অনেক পাগল থাকতো, সবাই মনে করতো তিনিও এমন একজন পাগল। পুরো ছদ্মবেশ যেটাকে বলে, বলতে পারেন সেটি তেমনি ছিল।’

রাজনৈতিক কারণে মহিউদ্দীন আনসারীও তার পরিচয় গোপন রাখতেন জানিয়ে তিনি বলেন, ‘দাদা তার (শামসুল হক) পরিচয় প্রকাশ করতেন না। আমাদের সঙ্গেও শেয়ার করতেন না।’

২০০৭ সালে বিষয়টি জানাজানির পর কোনো রাজনৈতিক দল বা অন্য কোনো সংগঠন শামসুল হকের বিষয়ে তাদের কাছে তথ্য জানতে চেয়েছে কিনা জানতে চাইলে সেলিম আনসারী বলেন, ‘না, কেউই তার খোঁজ নিতে যোগাযোগ করেনি।’

(নিজস্ব প্রতিবেদক, ঘাটাইল ডট কম)/-

যেভাবে দেশ ছাড়তে বাধ্য হয়েছিলেন তারেক

দু’হাজার সাত সালের মার্চ মাস। বাংলাদেশের রাজনীতিবিদ এবং ব্যবসায়ীদের তখন তাড়া করে ফিরছে গ্রেফতার আতঙ্ক।

জানুয়ারি মাসের ১১ তারিখ সেনাবাহিনীর হস্তক্ষেপে ফখরুদ্দীন আহমদের নেতৃত্বে তত্ত্বাবধায়ক সরকার গঠিত হওয়ার প্রথম দুই মাসে দেড়শো’ জনের বেশি রাজনীতিবিদ এবং ব্যবসায়ীকে আটক করা হয় দুর্নীতির অভিযোগে।

অনেকের মনে তখন একটা প্রশ্নই ঘুরপাক খাচ্ছিল – তারেক রহমান কি গ্রেফতার হতে যাচ্ছেন?

তারেক রহমানের সম্ভাব্য গ্রেফতার নিয়ে সংবাদ মাধ্যমেও তখন নানা রিপোর্ট প্রকাশিত হচ্ছে। বিভিন্ন সংবাদমাধ্যমে এমন রিপোর্টও প্রকাশিত হয়েছিল যে যেকোন সময় আটক হতে পারেন তারেক রহমান।

ঢাকা সেনানিবাসের ভেতরে মইনুল রোডের বাড়িতে তারেক রহমান তখন অস্থির সময় পার করছেন, এমন একটি চিত্রও ফুটে উঠেছিল সংবাদপত্রের খবরগুলোতে।

সব জল্পনা-কল্পনার অবসান ঘটিয়ে ২০০৭ সালের ৭ই মার্চ তারেক রহমানকে গ্রেফতার করা হয়।

অথচ মাত্র মাস ছয়েক আগেও প্রধানমন্ত্রীর পুত্র হিসেবে তারেক রহমানের ছিল দোর্দন্ড প্রতাপ।

সমালোচনা রয়েছে, ২০০১ সালে বিএনপি ক্ষমতায় আসার পর খালেদা জিয়া প্রধানমন্ত্রী হলেও তারেক রহমান হয়ে উঠেছিলেন সমান্তরাল আরেকটি ক্ষমতার কেন্দ্র – হাওয়া ভবন-কেন্দ্রীক।

বিএনপি ক্ষমতায় আসার পর বেশ দ্রুততার সঙ্গেই তারেক রহমানকে দলের সিনিয়র যুগ্ম-মহাসচিব পদে নিয়োগ দেয়া হয়। সেই সিদ্ধান্তের মাধ্যমে খালেদা জিয়া কার্যত তখনই তারেক রহমানকে দলের ভবিষ্যত নেতা হিসেবে তুলে ধরেন।

রিমান্ড ও তারেক রহমান

গ্রেফতারের পর মি. রহমানকে যেভাবে আদালতে উপস্থাপন করা হয়েছিল, সেটি দেখে অনেকেই চমকে উঠেছিলেন। র‍্যাব-এর বুলেটপ্রুফ জ্যাকেট এবং হেলমেট পরিয়ে ঢাকার একটি আদালতে তোলা হয়েছিল তাকে।।

এরপর তারেক রহমানকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ১০ দিনের রিমান্ডে নেয়া হয়েছিল।

তারেক রহমান এবং বিএনপির তরফ থেকে এরপর অভিযোগ তোলা হয়েছিল যে রিমান্ডে তার উপর ‘অমানুষিক নির্যাতন’ চালানো হয়েছে।

আদালতে দেয়া তারেক রহমানের বক্তব্যকে উদ্ধৃত করে ভারতের দ্য ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস পত্রিকা ২০০৮ সালের ১০ই জানুয়ারি লিখেছিল, “রিমান্ডের সময় আমাকে ২৪ ঘণ্টার মধ্যে ১৮ ঘণ্টাই হাত ও চোখ বেঁধে রাখা হয়েছিল … আমাকে বেঁধে রুমের ছাদের সাথে ঝুলিয়ে আবার ফেলে দেয়া হয় এবং শারীরিকভাবে নির্যাতন করা হয়।”

কারাগারে থাকা অবস্থায় মি. রহমানের উপর নির্যাতনে অভিযোগ তখন বেশ জোরালোভাবে দলের পক্ষ থেকে তোলা হয়েছিল।

খালেদা জিয়ার সাথে সেনা কর্মকর্তাদের দরকষাকষি

তারেক রহমান গ্রেফতার হওয়ার প্রায় ছয়মাস পরে খালেদা জিয়া নিজেও আটক হন। তারও আগে ১৬ই জুলাই গ্রেফতার হয়েছিলেন আওয়ামী লীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনা।

খালেদা জিয়া ছিলেন সদ্য বিদায়ী প্রধানমন্ত্রী। কিন্তু শেখ হাসিনাকে গ্রেফতারের পর খালেদা জিয়াকেও গ্রেফতারের জন্য তৎকালীন সেনা-সমর্থিত সরকারের উপর চাপ বাড়তে থাকে।

অনেকে ধারণা করেছিলেন যে সরকারের সাথে সমঝোতা করে দুই ছেলেকে নিয়ে খালেদা জিয়া হয়তো দেশের বাইরে চলে যেতে পারেন।

তৎকালীন নির্বাচন কমিশনার, অবসরপ্রাপ্ত ব্রিগেডিয়ার জেনারেল এম সাখাওয়াত হোসেন ‘নির্বাচন কমিশনে পাচ বছর’ বইতে এ সংক্রান্ত একটি ধারণাও দিয়েছেন।

“আওয়ামী লীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনার গ্রেফতারের পর গুঞ্জন হচ্ছিল বিএনপি চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়াকে নিয়ে। অনেকে সন্দেহ পোষণ করেছিলেন যে খালেদা জিয়া শেষ পর্যন্ত তার দুই পুত্রকে নিয়ে দেশের বাইরে চলে যাবেন,” লিখেছেন মি. হোসেন।

তবে ওই গুঞ্জন পরে আর সত্য বলে প্রমাণিত হয়নি।

দু’হাজার আট সালের গোড়ার দিকেই অনেকটা পরিষ্কার হয়ে যায় যে সেনা-সমর্থিত তত্ত্বাবধায়ক সরকারকে সে বছরের শেষ নাগাদ সাধারণ নির্বাচনের আয়োজন করতে হবে। সব দলের অংশগ্রহণে একটি অবাধ নির্বাচন অনুষ্ঠানের ব্যাপারে সরকার ও সেনাবাহিনীর প্রধানের উপর আন্তর্জাতিক চাপও বাড়তে থাকে।

তখন থেকেই রাজনৈতিক দলগুলোর সাথে আলাপ-আলোচনার প্রয়োজন অনুভব করে তত্ত্বাবধায়ক সরকার। বস্তুতঃ পর্দার আড়াল থেকে সামরিক গোয়েন্দা সংস্থা বা ডিজিএফআই-এর কর্মকর্তারা রাজনৈতিক দলগুলোর সাথে যোগাযোগ শুরু করে।

দু’হাজার আট সালের মে মাস থেকে রাজনৈতিক দলগুলোর সাথে অপ্রকাশ্যে আলোচনা চালায় সরকার, যদিও সবকিছুর মূল চাবিকাঠি ছিল সেনাবাহিনীর উর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের হাতে।

কিন্তু দুই ছেলে তারেক রহমান এবং আরাফাত রহমানের মুক্তি ছাড়া কোন ধরণের আলোচনায় রাজী ছিলেন না খালেদা জিয়া।

সেনাবাহিনীর কর্মকর্তারা বিভিন্ন সময় সাব-জেলে খালেদা জিয়ার বৈঠক করেন। বৈঠকের একমাত্র উদ্দেশ্যে ছিল নির্বাচনে অংশ নিতে খালেদা জিয়াকে রাজি করানো।

বিএনপি’র সিনিয়র নেতা মওদুদ আহমদ তখন কারাগারে ছিলেন। তবে ওই সময়ের বিভিন্ন বিষয় নিয়ে তিনি পরে যে বইটি লিখেছেন, তাতে তিনি খালেদা জিয়া ও সেনা কর্মকর্তাদের মধ্যে দরকষাকষি নিয়ে বিস্তারিত বর্ণনাও দিয়েছেন।

মি. আহমদ তাঁর ‘কারাগারে কেমন ছিলাম (২০০৭-২০০৮)’ বইতে লিখেছেন, সেনাকর্মকর্তারা শুধু আলোচনার উপর নির্ভর করেননি। একই সাথে খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে ‘জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট’ এবং ‘জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট’ মামলার প্রস্তুতিও গ্রহণ করে।

দু’হাজার আট সালের ২৬শে জুন নাইকো দুর্নীতি মামলায় কারাগার থেকে আদালতে নেয়া হয়েছিল খালেদা জিয়া এবং মওদুদ আহমদকে। শুনানীর সময় খালেদা জিয়া এবং মওদুদ আহমদ পাশাপাশি বসে ছিলেন। তখনই খালেদা জিয়ার সঙ্গে মওদুদ আহমদের কিছু কথা হয়।

খালেদা জিয়াকে উদ্ধৃত করে মওদুদ আহমদ তাঁর বইতে লিখেছেন, “নাইকো মামলায় এজলাসে আমি ছিলাম তাঁর পাশে। চিকিৎসার জন্য তাঁর দুই ছেলেকে বিদেশ পাঠানো না হলে গুরুত্বপূর্ণ কোন বিষয়ে কোন আলোচনায় তিনি অস্বীকৃতি জানিয়েছেন। আমার সাথে আলোচনার সময় তিনি এমনটাই ইঙ্গিত দিয়েছেন।”

“বেগম জিয়া আমাকে বললেন যে সেনা অফিসাররা মাঝরাতে এসে নানা কথা বলছেন ও নানা শর্ত দেখাচ্ছেন।”

কারাগারে খালেদা জিয়ার সাথে দরকষাকষির এক পর্যায়ে সেনা কর্মকর্তারা ছোট ছেলে আরাফাত রহমানকে মুক্তি দিতে সম্মত হলেও তারেক রহমানের ব্যাপারে ছাড় দিতে রাজী হননি।

কিন্তু খালেদা জিয়া চেয়েছিলেন উভয় ছেলের মুক্তি এবং তাদের বিদেশে চিকিৎসা।

তারেক রহমানের মুক্তি এবং চিকিৎসার জন্য বিদেশে যাওয়ার বিষয়টি খালেদা জিয়ার কাছে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ হয়ে উঠেছিল বলেই মনে হয়।

সেনা কর্মকর্তাদের সাথে খালেদা জিয়ার সমঝোতা

দু’হাজার সাত সালে সেনা-সমর্থিত তত্ত্বাবধায়ক সরকার ক্ষমতাসীন হওয়ার পেছনে ঢাকায় নিযুক্ত পশ্চিমা কূটনীতিকদের একটি নিরব সমর্থন ছিল। ওই সরকারের যারা উপদেষ্টা ছিলেন, তারা বিভিন্ন দেশের কূটনীতিকদের সাথে নিয়মিত যোগাযোগ রাখতেন।

এছাড়া, বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের নেতারাও তাদের মনোভাব প্রকাশ করতেন ঢাকায় অবস্থানরত কূটনীতিকদের কাছে।

দু’হাজার আট সালে ঢাকায় নিজের দায়িত্বে যোগদান করেন মার্কিন রাষ্ট্রদূত জেমস এফ মরিয়ার্টি।

তৎকালীন তত্তাবধায়ক সরকার এবং বিএনপির মধ্যে যে এক ধরণের দরকষাকষি চলছিল, তা পরিষ্কার বোঝা যায় মি. মরিয়ার্টির পাঠানো গোপন তারবার্তা থেকে।

ঢাকা থেকে ওয়াশিংটনে তিনি যেসব তারবার্তা বিভিন্ন সময় পাঠিয়েছিলেন, সেগুলোর মধ্যে বেশ কিছু উইকিলিকস সাইটে ফাঁস হয়েছে।

দু’হাজার আট সালের ২১শে অগাস্ট মি. মরিয়ার্টির পাঠানো এমন এক তারবার্তায় বলা হয়, সাবেক প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়া এবং তাঁর ছেলে তারেক রহমানের কারামুক্তি নিয়ে যে দরকষাকষি চলছে, সেটিকে কেন্দ্র করে বাংলাদেশের রাজনৈতিক বিতর্ক আবর্তিত হচ্ছে।

মি. মরিয়ার্টি লেখেন, “খালেদা জিয়ার অনুগত এবং তত্ত্বাবধায়ক সরকারের কর্মকর্তা – উভয়পক্ষ আমাদের বলেছে যে একটি সমঝোতা খুব নিকটবর্তী। তবে পরষ্পরের প্রতি অবিশ্বাসের কারণে চূড়ান্ত সমঝোতা হচ্ছে না।”

তারেক রহমানকে নিয়ে খালেদা জিয়ার সঙ্গে আলোচনার বিষয়টি তৎকালীন মার্কিন রাষ্ট্রদূতের কাছে স্বীকার করেছিলেন তত্ত্বাবধায়ক সরকারের দুই উপদেষ্টা হোসেন জিল্লুর রহমান এবং গোলাম কাদের। একটি তারবার্তায় এমনটাই লিখেছিলেন মি. মরিয়ার্টি।

তাঁর বর্ণনা অনুযায়ী, ২০০৮ সালের ২৮শে অগাস্ট তৎকালীন বিএনপি মহাসচিব খন্দকার দেলোয়ার হোসেন এবং জামায়াতে ইসলামীর সেক্রেটারি জেনারেল আলী আহসান মোহাম্মদ মুজাহিদ কারাগারে খালেদা জিয়ার সাথে একটি বৈঠক করেন। ওই বৈঠকে উপস্থিতি ছিলেন প্রতিরক্ষা গোয়েন্দা সংস্থা বা ডিজিএফআই-এর তৎকালীন উচ্চপদস্থ কর্মকর্তা ব্রিগেডিয়ার এটিএম আমিন।

দু’হাজার আট সালের ৩রা সেপ্টেম্বর মি. মরিয়ার্টি ওয়াশিংটনে যে তারবার্তা পাঠান, সেখানে এ কথা উল্লেখ করা হয়েছে।

মি. মরিয়ার্টি জানান, ওই বৈঠকে খালেদা জিয়ার সঙ্গে ব্রিগেডিয়ার আমিনের আলোচনা হয়। খালেদা জিয়া ও তারেক রহমানের মুক্তি এবং মুক্তির পর তারেক রহমানকে চিকিৎসার জন্য বিদেশে পাঠানোর বিষয় ওই আলোচনায় উঠে আসে। এছাড়া, রাজনীতি থেকে তারেক রহমানের কিছু সময়ের জন্য বিরতিতে যাওয়ার কথাটিও তখন আলোচিত হয়।

কারাগারে খালেদা জিয়ার সাথে খন্দকার দেলোয়ার হোসেন এবং আলী আহসান মুজাহিদের বৈঠকের বিষয়টি মওদুদ আহমদও তাঁর বইয়ে লিখেছেন।

“খন্দকার দেলোয়ার হোসেন এবং আলী আহসান মুজাহিদকে সাব-জেলে খালেদার সঙ্গে দু’ঘণ্টার জন্য দেখা করতে দেয়া হয়েছে। এতে বোঝা যায় যে, এখন সিরিয়াস ধরণের রাজনৈতিক দেন-দরবারের পালা চলছে। “

শুধু দুই ছেলের মুক্তি নয়, তাদেরকে বিদেশে পাঠানোর বিষয়েও খালেদা জিয়া ছিলেন অনড়। এবং শেষ পর্যন্ত সেটাই হয়েছে।

তবে খালেদা জিয়ার সাথে সরকারের কী ধরণের সমঝোতা হয়েছিল, সে সম্পর্কে বিস্তারিত বিএনপির নেতারাও জানেন না বলে মনে হচ্ছে।

‘বাংলাদেশ: ইমার্জেন্সি অ্যান্ড দ্যা আফটারম্যাথ (২০০৭-২০০৮)’ শিরোনামের আরেকটি বইতে মওদুদ আহমদ অনুমান করেছেন যে ছেলেদের মুক্তি এবং বিদেশ পাঠানোর বিনিময়ে খালেদা জিয়া হয়তো নির্বাচনে অংশগ্রহণের শর্ত মেনে নিয়েছিলেন।

রাজনীতি থেকে তারেক রহমানের সাময়িক বিরতি?

মুক্তি পাওয়ার পর তারেক রহমান ২০০৮ সালের ১১ই সেপ্টেম্বর লন্ডনের উদ্দেশ্যে ঢাকা ছাড়েন পরিবারের সদস্যদেরকে সাথে নিয়ে।

আর ওই দিনই কারাগার থেকে মুক্তি পান খালেদা জিয়া। মুক্তি পাওয়ার কিছু সময়ের মধ্যেই চিকিৎসাধীন ছেলেকে দেখতে খালেদা জিয়া বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় হাসপাতালে যান। প্রায় দুই ঘণ্টা ছেলের পাশে অবস্থান করেন তিনি।

লন্ডন যাত্রার কয়েকঘণ্টা আগে তারেক রহমান দলের সিনিয়র যুগ্ম-মহাসচিবের পদ থেকে পদত্যাগ করার খবর বিভিন্ন গণমাধ্যমে বেরিয়েছিল।

ঢাকায় বিবিসি বাংলার সংবাদদাতা কাদির কল্লোল বলেন, এ কথা ঠিক যে একটি রাজনৈতিক সমঝোতার মাধ্যমে তারেক রহমান বাংলাদেশ ছেড়ে গিয়েছিলেন।

তারেক রহমান অন্তত তিন বছর রাজনীতি না করার শর্তে রাজীও হয়েছিলেন বলে তিনি উল্লেখ করেন।

বিএনপি নেতা মওদুদ আহমদ তাঁর ‘কারাগারে কেমন ছিলাম (২০০৭-২০০৮)’ বইতে লিখেছেন, “এমনও হতে পারে তিনি (খালেদা জিয়া) জেনারেলদের সাথে এই সমঝোতা করেছিলেন যে, তারেক রহমান আপাতত নিজেকে রাজনীতিতে জড়াবেন না এবং এ মর্মে তারেক রহমান কোন সম্মতিপত্রে স্বাক্ষরও দিয়ে থাকতে পারেন।”

মি. রহমান লন্ডন যাত্রার আগে তার মা খালেদা জিয়া গণমাধ্যমকে জানিয়েছিলেন যে সুস্থ না হয়ে উঠা পর্যন্ত তারেক রহমান রাজনীতির বাইরে থাকবেন।

খালেদ জিয়াকে উদ্ধৃত করে বিবিসি নিউজ তখন লিখেছিল, “চিকিৎসকরা বলেছেন তার পুরোপুরি সুস্থ হয়ে উঠতে কমপক্ষে দুই থেকে তিন বছর লাগবে।”

মওদুদ আহমদের পর্যবেক্ষন হচ্ছে, খালেদ জিয়া বেশ ভালো করেই বুঝেছিলেন যে তারেক রহমান যদি সে মুহুর্তে মুক্তি না পান, তাহলে আর কখনোই দেশ ছেড়ে যেতে পারবেন না। যেকোন একটি মামলায় দণ্ডপ্রাপ্ত হলেই তার কারাবাস অনেক দীর্ঘ হতে পারতো।

“তারেক রহমান চিকিৎসার জন্য বিদেশে গেলে অন্ততঃপক্ষে তার বিরুদ্ধে আনীত ফৌজদারি মামলার মুখোমুখি হওয়া থেকে রেহাই পাবে এবং তাতে করে পরবর্তীকালে সে আরো অনুকূল পরিবেশে রাজনীতিতে ফিরে আসতে পারবে,” লিখেছিলেন মওদুদ আহমদ।

তারেক রহমানের মুক্তি ও লন্ডন যাত্রা

আঠারো মাস কারাগারে থাকার পর ২০০৮ সালের ৩রা সেপ্টেম্বর তারেক রহমানকে মুক্তি দেয়া হয়। এ সময় তিনি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে চিকিৎসাধীন ছিলেন। এর আগে ১৩টি মামলায় জামিন পান তারেক রহমান।

ওই সময়ে বেশ জোর আলোচনা ছিল যে বিএনপিকে নির্বাচনে যাবার শর্ত হিসেবে খালেদা জিয়ার দুই ছেলেকে কারাগার থেকে মুক্তি দিয়ে বিদেশে যাওয়ার সুযোগ দেয়া হয়েছে।

জেল থেকে ছাড়া পেলেও তারেক রহমানের সঙ্গে গণমাধ্যমের কেউ সাক্ষাৎ করতে পারেনি।

অন্যদিকে, কারাগার থেকে মুক্ত হয়ে খালেদা জিয়া ঘোষণা করেন যে বিএনপি নির্বাচনে অংশ নেবে। তবে এক্ষেত্রে কিছু শর্ত দেয় বিএনপি।

তারেক রহমানের মুক্তির পরদিন বাংলাদেশের শীর্ষস্থানীয় ইংরেজি দৈনিক দ্য ডেইলি স্টার এক প্রতিবেদনে জানায়, তারেক রহমানের মুক্তির বিষয়টি তার মা খালেদা জিয়া ও সরকারের মধ্যকার রাজনৈতিক সংলাপকে ত্বরান্বিত করবে।

মি. রহমানের মুক্তির পর ফিন্যান্সিয়াল টাইমস একটি রিপোর্ট করে, যাতে বলা হয় যে ডিসেম্বর মাসের নির্বাচনে খালেদা জিয়ার দলের অংশগ্রহণ নিশ্চিত করার জন্য সামরিক বাহিনী সমর্থিত সরকার তার বড় ছেলে তারেক রহমানকে মুক্তি দিয়েছে।

ফিন্যান্সিয়াল টাইমসের ওই রিপোর্টে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের রাষ্ট্রবিজ্ঞানের অধ্যাপক আতাউর রহমানকে উদ্ধৃত করে বলা হয়, “এটা উল্টো পথে যাত্রা। দুর্নীতির বিরুদ্ধে তত্ত্বাবধায়ক সরকারের যে প্রতিশ্রুতি, তা ধ্বংস হয়ে গেল।”

তারেক রহমান ১২ বছর ধরে লন্ডনে অবস্থান করছেন। ইতোমধ্যে বাংলাদেশে একাধিক মামলায় তার সাজা হয়েছে। তবে এখন তিনি লন্ডন থেকেই দল পরিচালনা করছেন।

তিনি লন্ডনে যাওয়ার পর থেকে বিএনপির তরফ থেকে বারবারই বলা হচ্ছিল যে তিনি সেখানে চিকিৎসার জন্য অবস্থান করছেন।

তবে ২০১৮ সালের ২৪শে এপ্রিল বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর প্রথমবারের মতো স্বীকার করেন যে ২০১২ সালে তারেক রহমান ব্রিটেনে রাজনৈতিক আশ্রয়ের আবেদন করেছিলেন এবং এক বছরের মধ্যেই সেটি গৃহীত হয়েছে।

(বিবিসি, ঘাটাইল ডট কম)/-

রাক্ষুসে পিরানহা ও আফ্রিকান মাগুর মাছগুলো কীভাবে আসছে বাংলাদেশে?

 

ঢাকার কাওরানবাজারে আজ শুক্রবার র‍্যাবের ভ্রাম্যমাণ আদালত অভিযান চালিয়ে বিপুল পরিমাণের আফ্রিকান মাগুর এবং পিরানহা মাছ উদ্ধার করেছে।

বাংলাদেশে কয়েক বছর আগে এই দুটি মাছ নিষিদ্ধ করা হলেও পিরানহা মাছ বিক্রি হচ্ছে রূপচাঁদার নামে অন্যদিকে ছোট আকারের নিষিদ্ধ আফ্রিকান মাগুর মাছ বিক্রি করা হচ্ছে দেশি মাগুর বলে।

এভাবে ক্রেতাদের প্রতারিত করার দায়ে ৫ জনকে বিভিন্ন মেয়াদে কারাদণ্ড দেয় ভ্রাম্যমাণ আদালত। বিশেষ কিছু কারণে এই মাছ দুটি নিষিদ্ধ করা হয়েছে।

পিরানহা মাছ দেখতে অনেকটা রূপচাঁদা মাছের মতো। তবে এর শরীরের রং কিছুটা লালচে এবং ধূসর।

এই মাছের প্রধান বৈশিষ্ট্য হল এর ছোট শক্তিশালী চোয়াল। এর দুই পাটিতে ত্রিশূলের মতো দাঁত এতোটাই ধারালো যে শিকারের দেহ এক নিমেষে ছিন্নভিন্ন করে দিতে পারে।

অন্যদিকে, আফ্রিকান মাগুর মাছ দেখতে অনেকটা দেশি মাগুর মাছের মতো হলেও আকারে অনেক বড় হয়। সর্বভুক হওয়ায় খুব দ্রুত এই মাছ বেড়ে ওঠে।

একটি পরিণত আফ্রিকান মাগুর মাছ ৪ ফুট পর্যন্ত দীর্ঘ হতে পারে। ওজন হতে পারে ১৫/১৬ কেজির মতো।

পিরানহা মাছ প্রজাতি ভেদে লম্বায় সাধারণত ৬ ইঞ্চি থেকে এক ফুট এমনকি দেড় ফুট পর্যন্ত হতে পারে।

এই দুটি মাছকেই রাক্ষুসে স্বভাবের মাছ বলা হয়।

বাংলাদেশ মৎস্য গবেষণা ইন্সটিটিউটের মহাপরিচালক ইয়াহিয়া মাহমুদের সাথে কথা বলে জানা গেছে পিরানহা এবং আফ্রিকান মাগুর দুটোই হল স্বাদু পানির মাংসাশী মাছ।

পিরানহা মাছ সবচেয়ে বেশি পাওয়া যায় দক্ষিণ আমেরিকা, উত্তর আমেরিকা এমনকি আফ্রিকার উষ্ণ অঞ্চলে নদীর অববাহিকা, খাল, হ্রদ বিশেষ করে অগভীর জলাশয়ে।

অনুকূল পরিবেশ পেলে পিরানহা মাছ ৮-১০ বছর পর্যন্ত বাঁচতে পারে।

আফ্রিকান মাগুর মূলত সারা বিশ্বের ছোট- বড় জলাশয়ে পাওয়া যায়।

ভীষণ নোংরা পানিতে এমনকি নর্দমা, পয়ঃনিস্কাশনের জলাধারে যেকোনো প্রতিকূল পরিবেশের সাথে লড়াই করে আফ্রিকান মাগুর স্বাচ্ছন্দ্যে জীবনধারণ করতে পারে।

এই দুই ধরণের মাঝ দল বেঁধে চলাফেরা করে এবং শিকারের ওপর আক্রমণ করে একসাথে।

এরা যেখানে থাকে সেখানকার ছোট বড় মাছ, মাছের ডিম, পোনা সেইসঙ্গে অন্যান্য জলজ প্রাণী মুহূর্তের মধ্যে খেয়ে নিঃশেষ করে ফেলতে পারে।

পিরানহা মাছ যদি কোন অবরুদ্ধ জায়গায় চাষ করা হয় এবং সেখানে যদি কোন মানুষ পড়ে যায় তাহলে পিরানহা ঝাঁক বেঁধে সেই জ্যান্ত ব্যক্তিকে এক নিমেষে খেয়ে সাবাড় করে ফেলতে পারবে।

বাংলাদেশে পিরানহা ও আফ্রিকান মাগুর মাছ নিষিদ্ধ কেন?

রাক্ষুসে স্বভাবের কারণে বিভিন্ন দেশের মতো বাংলাদেশ সরকারও পিরানহা মাছের উৎপাদন, বিপণন ও বিক্রি বাংলাদেশে নিষিদ্ধ করেছে।

২০০৮ সালের ফেব্রুয়ারি থেকে পিরানহা মাছ চাষ, উৎপাদন, পোনা উৎপাদন, বংশ বৃদ্ধি, বাজারে বিক্রি এবং বাজার থেকে ক্রয় সরকারীভাবে সম্পূর্ণ নিষিদ্ধ করা হয়। এবং ২০১৪ সালের জুন থেকে আফ্রিকান মাগুরের আমদানি, উৎপাদন, বিপণনের ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হয়।

মৎস্য ও প্রাণী সম্পদ মন্ত্রণালয় এ সংক্রান্ত প্রজ্ঞাপন জারি করে এই নিষেধাজ্ঞা আরোপ করে।

প্রটেকশন অ্যান্ড কনজারভেশন অব ফিস রুলস, ১৯৮৫ এর কয়েকটি ধারা সংশোধন করে আফ্রিকান মাগুরের উপর এ নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়।

এছাড়া বিদেশ থেকে আফ্রিকান মাগুর ও পিরানহা মাছ, মাছের রেণু ও পোনা আমদানি করলে জেল জরিমানার বিধান রেখে মৎস্য সংঘ নিরোধ আইন-২০১৭ এর খসড়ায় নীতিগত অনুমোদন দেয় মন্ত্রিপরিষদ।

এই আইন অমান্য করলে দুই বছরের জেল ও ৫ লাখ টাকা জরিমানা অথবা উভয় দণ্ডের বিধান রাখা হয়েছে।

কারণ এই দুই প্রজাতির মাছ চাষের ফলে দেশি প্রজাতির মাছ বিলুপ্ত হয়ে যেতে পারে। কোন ভাবে যদি পুকুর বা অবরুদ্ধ জলাশয় থেকে এই মাছ দুটি নদীতে বা মুক্ত জলাশয়ে চলে আসে তাহলে বাংলাদেশের মৎস্য সম্পদের জন্য মহা বিপর্যয় ডেকে আনতে পারে।

এ ব্যাপারে , মি. মাহমুদ বলেন, ” বাংলাদেশ বন্যা প্রবণ দেশ। এখন পুকুরে বা ঘে‌রে যদি পিরানহা মাছ বা আফ্রিকান মাগুর মাছ চাষ ক‌রা হয়। এবং সেই মাছ যদি পানিতে ভেসে অবরুদ্ধ স্থান থেকে মুক্ত জলাশয় যেমন নদী, খাল বিলে চলে আসে। তখন তাদের আক্রমণে দেশীয় ছোট বড় সব মাছ বিলুপ্ত হয়ে যেতে পারে।”

কিন্তু বাংলাদেশে এখনও এসব মাছ প্রকাশ্যেই উৎপাদন ও খোলা বাজারে বিক্রি হতে দেখা যায়।

যা বেশিরভাগ সময় থাই রূপচাঁদা বা সামুদ্রিক চান্দা নামে বিক্রি হয়। এর ছোট আকারের আফ্রিকান মাগুর মাছ, দেশি মাগুর মাছ বলে বিক্রি হতে দেখা যায়।

দামে কম হওয়ায় সেইসঙ্গে অন্য মাছের নামে বিক্রি করায় প্রতিনিয়ত প্রতারিত হচ্ছেন ক্রেতারা।

মূলত এই মাছ খেলে কোন স্বাস্থ্য ঝুঁকি নেই তবে পরিবেশগত ঝুঁকি রয়েছে অনেক। এমনটাই জানিয়েছেন মি. মাহমুদ।

তিনি আশঙ্কা প্রকাশ করে বলেন, পিরানহা মাছ ও আফ্রিকান মাগুর মাছের উৎপাদন, বিপণন, বিক্রি ও সংরক্ষণ স্থায়ীভাবে বন্ধ করা না গেলে বাংলাদেশের ২৬০ প্রজাতির স্বাদু পানির মাছ এবং ৪৭৫ প্রজাতির সামুদ্রিক মাছ অধিকাংশ বিলুপ্ত হয়ে যাবে।

বাংলাদেশে এই মাছ কিভাবে এলো?

বাংলাদেশে এই মাছ কীভাবে এসেছে সেটা নিয়ে একেক সূত্র থেকে একেকরকম তথ্য মিলছে।

মৎস্য গবেষণা ইন্সটিটিউট থেকে জানা গেছে, আফ্রিকান মাগুর আশির দশকের শুরুতে উৎপাদনের উদ্দেশ্যে থাইল্যান্ড বাংলাদেশে আনা হয়েছিল।

কিন্তু গবেষণায় এর আগ্রাসী আচরণের বিষয়টি সামনে এলে সরকার মাছটি নিষিদ্ধ করার সিদ্ধান্ত নেয়।

তবে পিরানহা মাছ কবে কিভাবে এসেছিল সে বিষয়ে নিশ্চিত কোন কোন তথ্য মেলেনি। মাছটি সরকারি ব্যবস্থাপনায় নয়, বরং চোরাই পথে আসতে পারে বলে ধারণা করা হয়।

জানা গেছে, থাইল্যান্ড থেকে প্রথম এই মাছ বাংলাদেশে আনা হয় এ্যাকুয়ারিয়ামের বাহারি মাছ হিসেবে।

পরে মাছ চাষিরা মাছগুলো খাওয়ার উদ্দেশ্যে বিভিন্ন অবরুদ্ধ জলাশয়ে চাষ করা শুরু করে।

মৎস্য অধিদপ্তর সূত্রে জানা যায়, নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে ময়মনসিংহের ও কুমিল্লার বিভিন্ন অঞ্চলের ডোবা বা পুকুরে পিরানহার উৎপাদন ও চাষ করার অভিযোগ পেয়েছেন তারা।

ঢাকার কামরাঙ্গীরচর ও নারায়ণগঞ্জে আফ্রিকান মাগুরের চাষ হচ্ছে বলেও অভিযোগ পাওয়া গেছে।

তবে এগুলোকে বিচ্ছিন্ন ঘটনা দাবি করে ইয়াহিয়া মাহমুদ বলছেন, অনেক মাছ চাষিরা না জেনেই এসব মাছ চাষ করছে। তবে সেটা খুবই সীমিত।

এসব মাছের উৎপাদন ও বিক্রি বন্ধে সরকারের পক্ষ থেকে কঠোর তদারকি করা হচ্ছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, আমরা যেখানেই এই মাছ চাষ হতে দেখেছি, সেখানেই ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে। মাছ চাষিদের আমরা বোঝানোর চেষ্টা করছি তারা যেন এই মাছ চাষ না করেন।

এই মাছগুলোর উৎপাদন ও বিপণন বন্ধে ভ্রাম্যমাণ আদালতের পাশাপাশি, গ্রাম থেকে শহরের মৎস্য অধিদফতরের কেন্দ্রগুলো মাঠ পর্যায়ে কাজ করছে। কিন্তু এ বিষয়ে আলাদা কোন কর্তৃপক্ষ নেই।

মূলত বাজার নিয়ন্ত্রণে যে সংস্থাগুলো কাজ করে তারাই সব তদারকি করছে।

তবে নিষিদ্ধ এই মাছ দুটির উৎপাদন ও বিক্রি নিয়ন্ত্রণ করা না গেলে বিকল্প স্থায়ী ব্যবস্থা নেয়ার আশ্বাস দেন মৎস্য ও প্রাণী সম্পদমন্ত্রী স ম রেজাউল করিম।

তিনি বলেন, “প্রত্যন্ত যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন অঞ্চলে, যে স্থানগুলো সাধারণ মানুষের দৃষ্টিতে পড়ে না যেমন ব্রিজের নীচে, বদ্ধ জলাশয়ে এই মাছগুলো গোপনে চাষাবাদ হতে পারে। এ বিষয়টি আমরা কঠোর নজরদারির আওতায় নিয়ন্ত্রণের চেষ্টা করছি। প্রয়োজনে বিকল্প ব্যবস্থা হাতে নেয়া হবে।”

পিরানহা মাছ চেনার উপায়:

  • পিরানহা মাছের তীক্ষ্ণ দাঁত দেখা যাবে।
  • পিরানহা মাছের কানকো থাকে। রূপচাঁদা মাছের কানকো মেশানো থাকে।
  • পিরানহা মাছের লেজের কাছে ছোট আরেকটি পাখনা বা এডিপোজ পাখনা থাকে। রূপচাঁদা মাছের এমন কোন পাখনা নেই।
  • গায়ের রং কিছুটা লালচে ও ধুসর বর্ণের হয়। রূপচাঁদার মতো চকচকে থাকে না।
  • পিরানহা মূলত স্বাদু পানির মাছ। রূপচাঁদা সামুদ্রিক মাছ।
  • জ্যান্ত পিরানহা মাছের স্বভাব রাক্ষুসে প্রকৃতির। রূপচাঁদা অনেক নিরীহ মাছ।

আফ্রিকান মাগুর মাছ চেনার উপায়:

  • আফ্রিকার মাগুর মাছ বেশিরভাগ ক্ষেত্রে নোংরা পানিতে চাষ হওয়ায় এর গায়ে কালো কালো ছোপ থাকতে পারে। যেটা দেশি মাগুরে নেই।
  • এছাড়া খেয়াল করতে দেখা যায় আফ্রিকান মাগুর মাছ কিছুটা ছাই বর্ণের হয় এবং পেটের দিকটা ধূসর সাদা রঙের থাকে। কিন্তু দেশি মাগুর মাছ কালচে এবং পেটের দিক হলদে বর্ণের হয়ে থাকে।
  • আফ্রিকান মাগুরের মাথা দেশি মাগুরের মতো সূচালো হয় না।
  • আফ্রিকার মাগুরের মাথা ও পেট বড় ও চোয়াল বিস্তৃত থাকে। দেশি মাগুর মাছের এমনটা থাকে না।

(বিবিসি, ঘাটাইল ডট কম)/-

 

ঘাটাইলে বাল্যবিয়ে বন্ধ, খাবার এতিমখানায়

টাঙ্গাইলের ঘাটাইল উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার হস্তক্ষেপে বাল্যবিবাহ থেকে রক্ষা পেল এক মাদরাসা ছাত্রী। আজ ১১ সেপ্টেম্বর শুক্রবার উপজেলার ঘাটাইল সদর ইউনিয়নের বাইচাইল গ্রামে ঘটনাটি ঘটে।

এ ঘটনায় সহায়তাকারীকে ২০ হাজার টাকা জরিমানা করে ভ্রাম্যমান আদালত।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা জানতে পারেন যে, উপজেলার ঘাটাইল ইউনিয়নের বাইচাইল গ্রামে আব্দুর রহমান তার নাবালিকা কন্যা জান্নাতুল ফেরদৌসী (১৩) কে বিবাহ দিচ্ছেন। মেয়েটি স্থানীয় বাইচাইল ইসলামিয়া দাখিল মাদরসার নবম শ্রেনির ছাত্রী।

একই উপজেলার দেউলাবাড়ি ইউনিয়নের পশ্চিম পাকুটিয়া ( খালপাড়া) গ্রামের সাজু মিয়ার ছেলে শাকিলের সাথে মেয়েটির বিয়ের আয়োজন করা হয়।

বাইচাইল গ্রামের মুক্তিযোদ্ধা মোতাহের হোসেনের বাড়িতে বিয়ের আয়োজনটি করা হয়। রান্না সহ বিয়ের সকল প্রস্তুতি সম্পন্ন করা হয়। শুধু বর আসার অপেক্ষা। এমন সময় খবর পেয়ে পুলিশ নিয়ে বিয়ে বাড়িতে গিয়ে উপস্থিত হন উপজেলা নির্বার্হী কর্মকর্তা অঞ্জন কুমার সরকার ও ইউপি চেয়ারম্যান হায়দর আলী। তাদের উপস্থিতি টের পেয়ে সটকে পরে আয়োজকরা।

এ সময় ইউএনও বিয়ের প্যান্ডেল ভেঙ্গে দেন এবং বরযাত্রীসহ বিয়ে বাড়ির আত্বীয় স্বজনের জন্য রান্না করা খাবার স্থানীয় এতিম খানায় পাঠিয়ে দেন। মেয়ে সাবালিকা না হওয়া পর্যন্ত বিয়ে দিবে না মর্মে কনের পরিবারের লোকজনের কাছ থেকে মুচেলেকা নিয়ে বাল্যবিবাহ বন্ধ করে দেন।

পরে তিনি ভ্রাম্যমান আদালত বসিয়ে বাল্যবিবাহ আয়োজন ও সহায়তা করার জন্য মোতাহের হোসেনের কন্যা মৌসুমীকে ২০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়।

(মাসুম মিয়া, ঘাটাইল ডট কম)/-

ঘাটাইলে আরও ২ জন করোনা আক্রান্ত

টাঙ্গাইলের ঘাটাইলে শুক্রবার (১১ সেপ্টেম্বর) প্রাপ্ত ফলাফলে আরও দুইজন নতুন করে করোনাভাইরাস পজিটিভ হয়েছেন। এ নিয়ে ঘাটাইলে মোট ১৮২ জন করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হলেন। শুক্রবার ঘাটাইল উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের মেডিকেল অফিসার (রোগ নিয়ন্ত্রণ) ডা. মো মমিনুল হাসান হিমেল ঘাটাইল ডট কমকে এই তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের তথ্য মতে গত জুলাই মাসে ঘাটাইলে করোনা আক্রান্ত হয়েছেন ৪০ জন। আগস্ট মাসে আগের রেকর্ড ভেঙ্গে ৯৪ জন করোনাভাইরাস পজিটিভ হয়েছেন। চলতি মাস সেপ্টেম্বরে ২৩ জন করোনা ভাইরাস পজিটিভ হলেন।

ঘাটাইল উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের মেডিকেল অফিসার (রোগ নিয়ন্ত্রণ) ডা. মো মমিনুল হাসান হিমেল জানান, ঘাটাইলে নতুন করে আরও দুইজন করোনা ভাইরাস পজিটিভ হয়েছেন।

উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স সুত্রে জানা যায়, ঘাটাইলে নতুন করে করোনা পজিটিভ হয়েছেন উপজেলার দেউলাবাড়ী ইউনিয়নের পাকুটিয়া এলাকার ৬২ বছর বয়স্ক একজন পুরুষ এবং ঘাটাইল ইউনিয়নের পোড়াবাড়ী এলাকার ৫৫ বছর বয়স্ক একজন নারী।

ডা. মো মমিনুল হাসান হিমেল জানান, গত বুধবার ঘাটাইল স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে তারা নমুনা দিলে দুইজনের ফলাফল করোনা পজিটিভ আসে। এ নিয়ে ঘাটাইলে মোট ১৮২ জন করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হলেন।

এদিকে ঘাটাইলে করোনায় মোট ছয়জনের মৃত্যু হয়েছে। সম্প্রতি ঘাটাইলে বীর মুক্তিযোদ্ধা মুজিবর রহমান এবং ঘাটাইল উপজেলা বিএনপির ভারপ্রাপ্ত সভাপতি বুলবুল ভূঁইয়া করোনা ভাইরাস সংক্রমনে মারা গেছেন।

ডা. মো মমিনুল হাসান হিমেল বলেন, করোনা হয়তো লম্বা সময় আমাদের মাঝে থাকবে। করোনার সাথে আমাদের বসবাস করতে হবে। এজন্য কিছু অভ্যাস তৈরী করুন। মাস্ক ব্যবহার করুন, নিয়মিত হাত ধৌত করুন, সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখুন।

(নিজস্ব সংবাদদাতা, ঘাটাইল ডট কম)/-

টাঙ্গাইল শহর ছাত্রলীগের সভাপতি তানজীল গ্রেফতার

 

টাঙ্গাইল শহর ছাত্রলীগের সভাপতি মীর ওয়াছেদুল হক তানজীলকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

এক আওয়ামী লীগ নেত্রীর ছেলের ওপর হামলার অভিযোগে হওয়া মামলায় বৃহস্পতিবার রাত সাড়ে ১১টার দিকে শহরের থানা পাড়া এলাকা থেকে তাঁকে গ্রেফতার করা হয়।

পুলিশ সূত্র জানায়, গত ৯ জুলাই শহরের ভিক্টোরিয়া রোডে শহর ছাত্রলীগের সদস্য ফাহিম খান ওরফে দ্বীপ সন্ত্রাসী হামলার শিকার হন। এ ঘটনায় ফাহিম খানের মা শহর আওয়ামী লীগের মহিলা বিষয়ক সম্পাদক শাহিন আরা বাদী হয়ে টাঙ্গাইল সদর থানায় মামলা করেন। ওই মামলায় মীর ওয়াছেদুলকে প্রধান আসামি করা হয়।

টাঙ্গাইল সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মীর মোশারফ হোসেন জানান, ফাহিম খানের ওপর হামলার ঘটনার মামলায় ছাত্রলীগ নেতা ওয়াছেদুলকে বৃহস্পতিবার রাতে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। শুক্রবার সকালে তাঁকে আদালতে পাঠানো হয়েছে।

(মোল্লা তোফাজ্জল, ঘাটাইল ডট কম)/-

মির্জাপুরে ২৫০ বোতল ফেনসিডিলসহ দুই মাদক কারবারিকে আটক

চোরাই পথে আসা ২৫০ বোতল ফেনসিডিলসহ টাঙ্গাইলের মির্জাপুরে দুই মাদক কারবারিকে আটক করেছে পুলিশ। ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়কে উপজেলার পাকুল্যা এলাকায় অভিযান চালিয়ে একটি ট্রাকে তল্লাশি করে ফেনসিডিলসহ দুই মাদক ব্যবসায়ীকে আটক করা হয়েছে বলে পুলিশ জানিয়েছেন।

শুক্রবার মির্জাপুর থানার এসআই মো. মোরাদ জাহান জানান, গোপন সংবাদ পেয়ে গতকাল বৃহস্পতিবার (১০ সেপ্টেম্বর) ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়কের পাকুল্যা এলাকায় অভিযান চালিয়ে উত্তরবঙ্গ থেকে ছেড়ে আসা গাজীপুর গামী একটি মালবাহী ট্রাকে তল্লাসী করে ২৫০ বোতল ফেনসিডিলসহ দুই মাদক কারবারিকে আটক করা হয়।

মাদক কারবারিরা হলেন, গাজীপুর জেলার কোনাবাড়ির বাইমাইল এলাকার শফি রহমানের ছেলে সোহেল রানা (২৫) এবং লালমনিরহাট জেলার হাতিবান্ধা উপজেলার আবজাল হোসেনের ছেলে আনিছুর রহমান (২৭)। তারা দীর্ঘ দিন ধরে অভিনব কায়দায় উত্তরাঞ্চল থেকে ফেনসিডিল, গাঁজাসহ বিভিন্ন মাদক এনে রাজধানী ঢাকাসহ আশপাশে পাইকারী বিক্রি করে আসছে বলে জিজ্ঞাসাবাদে পুলিশকে জানিয়েছে।

এ ব্যাপারে মির্জাপুর থানার অফিসার ইনচার্জ মো. সায়েদুর রহমান বলেন, ফেনসিডিলসহ আটক দুই মাদক কারবারির নামে প্রচলিত আইনে মামলার পর তাদের জেল হাজতে পাঠানো হয়েছে।

(মির্জাপুর সংবাদদাতা, ঘাটাইল ডট কম)/-