সৌদিতে ঈদ রোববার

সৌদি আরবে পবিত্র ঈদুল ফিতর আগামী রোববার উদযাপিত হবে। দেশটির আকাশে আজ শুক্রবার পবিত্র শাওয়াল মাসের চাঁদ দেখা যায়নি। অর্থাৎ এ বছর সৌদি আরবসহ মধ্যপ্রাচ্যের দেশগুলোতে কাল শনিবার ৩০ রমজান পূর্ণ হবে।

গালফ নিউজ, খালিজ টাইমস ও আরব টাইমসে প্রতিবেদনে বলা হয়, শুক্রবার সৌদি আরবের কোথাও শাওয়াল মাসের চাঁদ দেখা যায়নি। তাই আগামী রোববার ঈদুল ফিতর উদযাপিত হবে বলে জানিয়েছে সৌদি কর্তৃপক্ষ।

এবার সৌদি আরবে ঈদের নামাজ নিজ নিজ ঘরে আদায় করতে হবে। কারণ করোনা পরিস্থিতিতে ঈদের ছুটির সময় সেখানে কারফিউ ঘোষণা করা হয়েছে। ঈদের সময় মসজিদগুলো বন্ধ থাকবে।

(অনলাইন ডেস্ক, ঘাটাইল ডট কম)/-

নতুন ৮ জন সহ টাঙ্গাইলে করোনা আক্রান্ত ৯৬

টাঙ্গাইলে গত ২৪ ঘন্টায় শুক্রবার (২২ মে) পর্যন্ত নতুন করে ৮ জন করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছে। আক্রান্তের মধ্যে দেলদুয়ারের দেউলী ইউনিয়নের বাবুপর ও টেউরিয়া গ্রামের ২ জন, মির্জাপুরে সদরে ও উয়ার্সী ইউনিয়নের মাশদাই গ্রামে ২ জন, টাঙ্গাইল শহরের আকুরটুকুর পাড়ায় ১ জন, গোপালপুরে ১ জন, ভুঞাপুরের বামনহাটায় ১ জন ও ঘাটাইল উপজেলার ডাবড় কাশতলা গ্রামের ১ জন।

টাঙ্গাইল জেলায় মোট এ পর্যন্ত ৯৬ জনের দেহে করোনার ভাইরাসে শনাক্ত হয়েছে। এর মধ্যে ভূঞাপুরে ৬, সখীপুরে ৬, নাগরপুরে ৪, মির্জাপুরে ২, সদরে ১ ও মধুপুরে ১ জনসহ মোট ২০ জন সুস্থ হয়েছে।

আর ঘাটাইলে ২, মির্জাপুরে ১ ও ধনবাড়ীতে ১ জন করোনা রোগীর মৃত্যু হয়েছে।

এদিকে গত (৭ এপ্রিল) থেকে টাঙ্গাইল জেলা লকডাউন ঘোষনা করা হয়। শুক্রবার (২২ মে) পর্যন্ত লকডাউনের ৪৫তম দিন অতিবাহিত হয়েছে।

এছাড়া করোনা ভাইরাসের পরীক্ষার জন্য টাঙ্গাইলের বিভিন্ন উপজেলা থেকে ৪২৬৩ জনের নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে। শুক্রবার (২২ মে) নতুন করে কোন নমুনা ঢাকায় পাঠানো হয়নি। গত ২৪ ঘন্টায় নতুন করে ৮ জন করোনা আক্রান্ত হয়েছে। হোম কোয়ারেন্টাইনের আওতায় আনা হয়েছে ৫১ জনকে। ছাড়পত্র দেয়া হয়েছে ৪১ জনকে। এর মধ্যে বৃহস্পতিবার (২১ মে) ১২৩ জনের নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছিল।

সোমবার (১৮ মে) পাঠানো ১০১ টি স্যাম্পলের রেজাল্ট আজ শুক্রবার (২২ মে) পাওয়া গেছে। এর মধ্যে ৮ জনের করোনার রেজাল্ট পজেটিভ এসেছে। এখন পর্যন্ত ৩৮৬০ জনের রিপোর্ট হাতে পেয়েছে জেলা স্বাস্থ্য বিভাগ। এদের মধ্যে ৯৬ জনের ফলাফল পজেটিভ এসেছে। বাকিগুলোর ফলাফল নেগেটিভ এসেছে।

বর্তমানে জেলায় মোট ৯৬ জন ব্যক্তি করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। আক্রান্তদের মধ্যে ৮ জনকে টাঙ্গাইল জেনারেল হাসপাতালের ৫০ বেডের করোনা ডেডিকেডেট ইউনিটে ভর্তি করা হয়েছে। আক্রান্ত বাকি ৬৪ জন ঢাকা, ময়মনসিংহ হাসপাতালে ও বাসায় চিকিৎসাধীন রয়েছে।

এ ব্যাপারে টাঙ্গাইলের সিভিল সার্জন ডা. মোহাম্মদ ওয়াহিদুজ্জামান বলেন, টাঙ্গাইল জেলায় এ পর্যন্ত ৯৬ জন করোনা ভাইরাস রোগী সনাক্ত হয়েছে। এদের মধ্যে মির্জাপুরে ১৮, দেলদুয়ারে ১৬, নাগরপুরে ১০, ভূঞাপুরে ৯, সখীপুরে ৭, গোপালপুরে ৮, ধনবাড়ীতে ৬, টাঙ্গাইল সদরে ৬, কালিহাতীতে ৫, মধুপুরে ৫, ঘাটাইলে ৫ ও বাসাইলে ১ জন রয়েছে। এদের মধ্যে ভূঞাপুরে ৬, সখিপুরে ৬, নাগরপুরে ৪, মির্জাপুরে ২, সদরে ১ ও মধুপুরে ১ জনসহ মোট ২০ জন সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন।

এছাড়া জেলার ঘাটাইলে মহিউদ্দিন, আব্দুল মান্নান খান, মির্জাপুরে রেনু বেগম ও ধনবাড়ীতে আব্দুল করিম ভুইয়া নামে ৪ জন মারা গিয়েছে।

জেলায় এখন পর্যন্ত ৯২৮৫ জনকে হোম কোয়ারেন্টাইনের ও হাসপাতালে কোয়ারেন্টাইনের আওতায় আনা হয়েছিল। এদের মধ্যে ৭ হাজার ৪৩২ জনকে কোয়ারেন্টাইন থেকে ছাড়পত্র নিয়েছে। বর্তমানে কোয়ারেন্টাইনে রয়েছে ১ হাজার ৮৫৩ জন। করোনায় আক্রান্ত হয়ে টাঙ্গাইল জেনারেল হাসপাতালের ৫০ বেডের করোনা ডেডিকেডেট ইউনিটে ভর্তি রয়েছে ৮ জন।

উল্লেখ্য, গত (১ মার্চ) থেকে রবিবার (১৭ মে) পর্যন্ত বিদেশে থেকে জেলায় এসেছে ৫ হাজার ৭০৫ জন। কোভিড-১৯ চিকিৎসায় প্রস্তুত রয়েছে জেলার সরকারী হাসপাতালের ৫০টি বেড, উপজেলা পর্যায়ে আইসোলেশন বেড রয়েছে ৫৮টি। ডাক্তার রয়েছে ২৪২ জন, নার্স রয়েছে ৪১৯ জন, ব্যক্তিগত সুরক্ষা সমগ্রী পিপিই মজুদ রয়েছে ৬ হাজার ৭৩৮টি ও করোনা আক্রান্ত রোগী আনা নেয়া করার জন্য এ্যাম্বুুলেন্স রয়েছে ২টি। এছাড়া জেলায় এখন পর্যন্ত ১ লাখ ৭১ হাজার পরিবারের মধ্যে ২০২০ মে.টন চাল ও ৫২ হাজার ৭৫২টি পরিবারের মধ্যে নগদ ১ কোটি ৫ লাখ ৫০ হাজার ৩৬৭ টাকা ও শিশু খাদ্য বাবদ ১৫ হাজার ৯২৫ পরিবারকে ২৭ লাখ ৬০ হাজার ১৮৫ টাকা প্রদান করেছে জেলা প্রশাসন।

(টাঙ্গাইল সংবাদদাতা, ঘাটাইল ডট কম)/-

বাসাইলে শিশুকে শ্লীলতাহানীর অভিযোগে স্বাস্থ্য সহকারী সুবোধ কুমারকে জুতাপেটা

টাঙ্গাইলের বাসাইলে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসা নিতে আসা এক শিশুকে শ্লীলতাহানীর অভিযোগ উঠেছে উপজেলা স্বাস্থ্য সহকারী সুবোধ কুমার দাসের বিরুদ্ধে। এ ঘটনায় বিক্ষুব্দ জনতা অভিযুক্ত ওই স্বাস্থ্য সহকারীকে জুতাপেটা করেন।

শুক্রবার (২২ মে) দুপুরে বাসাইল উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে এ ঘটনা ঘটে।

অভিযুক্ত সুবোধ কুমার দাস উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে উপ-সহকারী কমিউনিটি মেডিকেল অফিসার হিসেবে কর্মরত রয়েছেন। শ্লীলতাহানীর শিকার ওই শিশু বাসাইল পৌরসভার বালিনা গ্রামের বাসিন্দা।

ভিকটিমের পরিবার ও হাসপাতাল সূত্রে জানা যায়, ওই শিশুটির কানে ব্যথা অনুভব হলে শুক্রবার (২২ মে) সকালে তার মা তাকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যায়। হাসপাতালের জরুরি বিভাগে কর্তব্যরত উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে উপ-সহকারী কমিউনিটি মেডিকেল অফিসার সুবোধ কুমার দাস ওই শিশুটির কানে চিকিৎসা দেয়ার জন্য প্রাথমিক পরীক্ষা করেন।

পরে আউটডোরে রোগী দেখাতে হলে টাকা লাগে এমন অযুহাতে একপর্যায়ে শিশুটির মায়ের কাছে পাঁচ টাকা দাবি করে অভিযুক্ত সুবোধ কুমার দাস। এ সময় ওই শিশুটির মা টাকা ভাংতি করতে হাসপাতালের বাইরে যায়। এ সুযোগে শিশুটিকে শ্লীলতাহানী করেন তিনি। শিশুটির মা হাসপাতালে ফিরে এলে শিশুটি তাকে শ্লীলতাহানীর কথা জানায়।

শিশুটির মা তাৎক্ষণিক প্রতিবাদ করলে হাসপাতাল এলাকায় উত্তেজনার সৃষ্টি হয়। খবর পেয়ে শিশুটির পরিবারের অন্যান্য সদস্যরা হাসপাতালে ছুটে যায়। এ সময় বিক্ষুব্দ জনতা অভিযুক্ত ওই স্বাস্থ্যসহকারীকে জুতাপেটা ও এলোপাথারিভাবে কিল ঘুষি দেয়।

পরে খবর পেয়ে উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান কাজী অলিদ ইসলাম ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শামছুন নাহার স্বপ্না ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়।

অভিযুক্ত স্বাস্থ্যসহকারী সুবোধ কুমার দাস বলেন, আমরা বিভিন্ন সময় রোগী দেখি। এতে করে যদি কেউ খারাপ কিছু মনে করে তাতে আমার কিছু বলার নাই। শিশু শ্লীলতাহানীর বিষয়টি তিনি অস্বীকার করেন।

উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. ফিরোজুর রহমান বলেন, অভিযুক্ত ওই স্বাস্থ্যসহকারীকে অন্যত্র বদলি করার ব্যবস্থা করা হচ্ছে। এ ঘটনায় বিক্ষুব্দ জনতা তাকে জুতাপেটা করে ও কিল ঘুষি দেয় বলেও তিনি জানান।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শামছুন নাহার স্বপ্না বলেন, ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে বিক্ষুব্দ জনতাকে শান্ত করি। এ সময় অভিযোগকারী কোন লিখিত অভিযোগ দেয়নি। এ ঘটনায় হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ ব্যবস্থা নিবে।

(বাসাইল সংবাদদাতা, ঘাটাইল ডট কম)/-

ঘাটাইলে ড. শহীদুল ইসলামের ঈদ উপহার বিতরণ

করোনাভাইরাসের কারণে সৃষ্ট জনদুর্ভোগে টাঙ্গাইলের ঘাটাইলে আজ শুক্রবার (২২ মে) সাবেক ডেপুটি অ্যার্টনি জেনারেল ও সুপ্রীম কোর্টের এডভোকেট ড. মো. শহীদুল ইসলামের পক্ষে পবিত্র ঈদুল ফিতর উপলক্ষে এলাকার দুঃস্থদের মাঝে ঈদ উপহার বিতরণ করা হয়েছে।

আজ শুক্রবার সকাল দশটার সময় উপজেলার কাইতকাই ঈদগাহ ময়দানে এই ঈদ উপহার বিতরণ করা হয়।

সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণ পরিবেশে ঈদ উপহার বিতরণ করা হয়।

বৃষ্টিস্নাত সকালে অসহায় দরিদ্র কর্মহীন মানুষগুলো ঈদ উপহার সামগ্রী পেয়ে আবেগে আপ্লুত হয়ে পরে এবং তাদের চোখেমুখে এক অপূর্ব তৃপ্তির হাসি ফুটে উঠে।

ড. শহীদুল ইসলাম বর্তমান লকডাউন পরিস্থিতিতে উপহার সামগ্রী বিতরণ অনুষ্ঠানে উপস্থিত থাকতে পারেননি। তার সাথে ঘাটাইল ডট কম মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করলে তিনি বলেন, ইতোপূর্বেও দূর্দিনে তিনি এলাকার জনগনের মাঝে ছিলেন এবং ভবিষ্যতেও থাকবেন।

স্থানীয় সমাজ সেবক সাব্বির হাসানের সার্বিক ব্যবস্থাপনায় সে সময় উপস্হিত ছিলেন ড. শহীদুল ইসলামের চাচা বীর মুক্তিযোদ্ধা জনাব আব্দুস সালাম, আমিনুল ইসলাম, মো. হেলাল, ফজলুর রহমান, রমজান আলী প্রমুখ।

(স্টাফ রিপোর্টার, ঘাটাইল ডট কম)/-

ঘাটাইলের সড়কে জলাবদ্ধতা ও যানজটে দুর্ভোগ

টাঙ্গাইল-ময়মনসিংহ মহাসড়কের ঘাটাইল উপজেলার হামিদপুরে নির্মাণ কাজের ধীরগতির কারণে চরম দুর্ভোগে পথযাত্রী ও জনসাধারণ।

স্থায়ী জলাবদ্ধতা, রাস্তার সিমেন্ট ও পিচের ঢালাই তুলে ফেলায় গর্তে ধুলোর ঝড় ও দুর্ঘটনাসহ সংকটের মধ্যে দিনাতিপাত করছেন পথযাত্রীরা। রাস্তাটা বর্তমানে এতই নাজেহাল যে, হাঁটু পর্যন্ত পানি মাড়িয়ে রাস্তা পারাপার হতে হচ্ছে। তার উপর নিত্যদিনের সড়ক দুর্ঘটনা লেগেই আছে।

আর এ সবের জন্য এলেঙ্গা-জামালপুর মহাসড়ক নির্মাণ কাজের ধীরগতিকেই দায়ি করছেন ভুক্তভোগী এসব মানুষ।

সড়কের এক পাশ যানবাহন চালু রেখে অপরপাশে পেভমেন্ট ঢালাইয়ের কাজ করায় যানবাহন চলাচল বন্ধ রয়েছে। ভাঙ্গাচোরা অংশ দিয়ে যানবাহন চলাচল করছে। যানবাহনের চাপে সড়কের অনেক অংশ দেবে গেছে। সামান্য বৃষ্টিতেই হাঁটু পানি জমে যান চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। কখনো কখনো যানবাহন কাদায় আটকে ফেঁসে যায়। তখন দীর্ঘ যানজট দেখা দেয়।

ফলে ৪০০ গজ রাস্তা পার হতে দেড় থেকে দুই ঘণ্টা সময় লাগছে।

সড়কের এক পাশ যান চলাচলের উপযোগী না করে অপরিকল্পিতভাবে অন্য অংশের কাজ শুরু করায় এ অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে বলে অভিযোগ ভুক্তভোগী ও এলাকাবাসীদের।

এ ছাড়া পানি জমে থাকায় সড়কে বড় বড় গর্তের সৃষ্টি হয়েছে। এসব গর্তে যানবাহন আটকে যানজটের সৃষ্টি হচ্ছে। হাঁটু পানি ভেঙে সড়ক পারাপার হচ্ছে সাধারণ মানুষ। যানবাহনের চাকার মাধ্যমে পথচারীদের গায়ে লাগছে ময়লা পানি।

এ বিষয়ে আজ শুক্রবার (২২ মে) টাঙ্গাইল সড়ক ও জনপথ বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী আমিমুল এহসান বলেন, ‘কাজের গতি বাড়াতে তাগিদ দেয়া হয়েছে। ঈদ এর আগেই ভাঙ্গা অংশ মেরামত ও লেবেল করা হবে‘।

(রেজাউল করিম খান রাজু, ঘাটাইল ডট কম)/-

করোনায় মারা গেলেন সাবেক এমপি আ’লীগ নেতা পুতুল

করোনার উপসর্গ নিয়ে মারা গেলেন বগুড়ার সাবেক সংসদ সদস্য ও জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক নারী বিষয়ক সম্পাদক কামরুন্নাহার পুতুল (৬৫)। মৃত্যুর পর রিপোর্ট এসেছে তিনি করোনাভাইরাসে আক্রান্ত ছিলেন।

বৃহস্পতিবার ২১ মে) রাতে বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ (শজিমেক) হাসপাতালে তিনি মারা যান।

বগুড়া সদর উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. সামির হোসেন মিশু গণমাধ্যমকে জানান, গত কয়েকদিন ধরে জ্বর, কাশি, পাতলা পায়খানা এবং খাবারে অরুচি সমস্যায় ভুগছিলেন কামরুন্নাহার পুতুল।

তিনি বলেন, কদিন আগে অসুস্থ ছেলেকে দেখতে ঢাকায় গিয়েছিলেন কামরুন্নাহার পুতুল। সেখান থেকে আসার পর তিনি অসুস্থতা বোধ করেন। পরে তার নমুনা সংগ্রহ করা হয়। এখনো তার রিপোর্ট পাওয়া যায়নি।

কামরুন্নাহার পুতুল প্রয়াত এমপি মোস্তাফিজার রহমান পটলের স্ত্রী।

১৯৯৬ সালে আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আসার পর কামরুন্নাহার পুতুল বগুড়া-জয়পুরহাট জেলার সংরক্ষিত নারী আসনে সংসদ সদস্য মনোনীত হন। তার স্বামী মােস্তাফিজার রহমান পটল ১৯৭৩ সালে আওয়ামী লীগের মনোনয়নে বগুড়ার গাবতলী আসনের সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। কামরুন্নাহার পুতুল এমপি নির্বাচিত হওয়ার আগে রূপালী ব্যাংকে কর্মরত ছিলেন।

আইইডিসিআর নির্দেশ মোতাবেক সীমিত মুসল্লি নিয়ে শুক্রবার দুপুরে তার নামাজে জানাজা অনুষ্ঠিত হয়। জানাজার নামাজে জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক উপদপ্তর সম্পাদক মাশরাফি হিরো, বগুড়া পৌরসভার সাবেক প্যানেল মেয়র আমিনুল ফরিদ ও কোয়ান্টাম ফাউন্ডেশনের বেশ কয়েকজন অংশ নেন।

পরে কোয়ান্টাম ফাউন্ডেশন, বগুড়া শাখার ২ জন নারী সহ ৯জন স্বেচ্ছাসেবকের একটি টিম তার মরদেহ বগুড়া শহরের নামাজ গড় কবরস্থানে দাফন করে।

এদিকে কামরুন্নাহার পুতুলের মৃত্যুতে শোক প্রকাশ করেছেন জেলা আওয়ামী লীগের নেতৃবৃন্দ।

(ইত্তেফাক, ঘাটাইল ডট কম)/-