সরকার দেশকে গৃহযুদ্ধের দিকে ঠেলে দিচ্ছে, সাধারণ মানুষ হাতে অস্ত্র তুলে নেবে : ভিপি নূর

সরকার দেশকে গৃহযুদ্ধের দিকে ঠেলে দিচ্ছে বলে মন্তব্য করেছেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদের (ডাকসু) ভিপি নুরুল হক নূর। তিনি বলেন, সরকার ক্ষমতা হারানোর ভয়ে পাগল হয়ে গেছে। তাই ভিন্নমতের মানুষের ওপর দমন-নিপীড়ন চালাচ্ছে। শুধু বিরোধী রাজনৈতিক দলের নেতাকর্মীরাই নয়, যারা সরকারের অন্যায়-অনিয়ম, লুটপাট-দুর্নীতির বিরুদ্ধে কথা বলছে তাদেরও অত্যাচার-নির্যাতন করা হচ্ছে।এভাবে মানুষকে আর দমন করতে পারবেন না। সাধারণ মানুষ হাতে অস্ত্র তুলে নেবে।

শুক্রবার (৮ নভেম্বর) বিকালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের রাজু ভাস্কর্যের পাদদেশে প্রতিবাদ সমাবেশে ভিপি নূর এসব কথা বলেন। নোয়াখালী জেলা সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদের নেতাকর্মীদের ওপর ছাত্রলীগ ও পুলিশের নির্যাতনের প্রতিবাদে বিক্ষোভের আয়োজন করা হয়। বিক্ষোভ মিছিলের আগে সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়।

এতে বাংলাদেশ সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদের যুগ্ম আহ্বায়ক মো. রাশেদ খান, মোল্লা বিন ইয়ামিন, মো. আতাউল্লাহসহ সংগঠনের কেন্দ্রীয় নেতারা বক্তব্য দেন।

সরকারের উদ্দেশে ডাকসু ভিপি নূর বলেন, এভাবে মানুষকে আর দমন করতে পারবেন না। সাধারণ মানুষ হাতে অস্ত্র তুলে নেবে। প্রয়োজনে আপনাদের দেশছাড়া করবে। দেশের স্বাধীনতা, গণতন্ত্র ও মুক্তিযুদ্ধের চেতনা রক্ষা, আইনের শাসন প্রতিষ্ঠা ও সুশাসন নিশ্চিত করার জন্য প্রয়োজনে মানুষ হাতে অস্ত্র তুলে নেবে। তিনি বলেন, রাষ্ট্রের প্রতিটি সাংবিধানিক প্রতিষ্ঠানকে ধ্বংস করা হচ্ছে। নগ্ন হস্তক্ষেপের কারণে কোনো সাংবিধানিক প্রতিষ্ঠান ঠিকমতো কাজ করতে পারছে না। সরকারের নিয়ন্ত্রণে বিচার বিভাগ।

তিনি বলেন, একজন মুক্তিযোদ্ধা দেশে মৃত্যুবরণ করার আকুতি জানিয়েছিলেন। কিন্তু ভিন্নমতের রাজনীতি করার কারণে তাকে আসতে দেয়া হয়নি। দেশের সর্বোচ্চ বিদ্যাপীঠের ভিপি হয়েও আমি পাসপোর্ট পাইনি।

ভিপি নূর আরও বলেন, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসির সুস্পষ্ট দুর্নীতির কারণে সেখানের শিক্ষার্থী-শিক্ষকরা আন্দোলন করছেন। ভিসি অপসারণের সেই আন্দোলনে ছাত্রলীগ ন্যক্কারজনকভাবে হামলা চালিয়েছে। শিক্ষা উপমন্ত্রী তাদের পক্ষেই একরকম সাফাই গেয়েছেন। সরকারের সর্বোচ্চ পর্যায়ের ব্যক্তিবর্গ থেকেও এ আন্দোলনের বিরুদ্ধে অপপ্রচার চালানো হচ্ছে।

নুর বলেন, আজকে মানুষের মনে ক্ষোভ, সেই ক্ষোভ আপনারা বুঝতে বারবার ব্যর্থ হচ্ছেন। আপনারা নিরাপদ সড়ক আন্দোলন, কোটা সংস্কার আন্দোলনসহ প্রত্যেকটি আন্দোলনে দেখেছেন জনগণের স্বতঃস্ফূর্ত প্রতিবাদ। সেই প্রতিবাদগুলো শুধুমাত্র ওই ঘটনাকে কেন্দ্র করে নয় আপনাদের যে ব্যর্থতা, আপনাদের যে দুঃশাসন, আপনাদের যে নির্যাতন, নিপীড়ন সে নির্যাতনের বিরুদ্ধে ছিল। আপনারা আজকে যদি সময় থাকতে সংশোধন হোন, না হলে জনগণ কিন্তু আপনাদের বিতাড়িত করতে স্বতঃস্ফূর্তভাবে রাজপথে নেমে আসবে। আমরা বলে দিতে চাই জনগণ, সাধারণ ছাত্র, শিক্ষক, যেকোনো মানুষের আন্দোলনে ষড়যন্ত্র না খুঁজে যুক্তিকতা দিয়ে বিবেচনা করে আন্দোলনের সমাধানের চেষ্টা করুন।

(যুগান্তর, ঘাটাইলডটকম)/-