সখীপুরে এক সপ্তাহে নবম শ্রেণির ২ বান্ধবীর বিয়ে

টাঙ্গাইলের সখীপুরে সাতদিনের ব্যবধানে বড়চওনা উচ্চ বিদ্যালয়ের নবম শ্রেণিতে পড়ুয়া দুই বান্ধবীর বিয়ে অনুষ্ঠিত হয়েছে।

উপজেলার বড়চওনা কলেজ মোড় বিন্নরীপাড়া গ্রামে গত ১৫ আগস্ট শনিবার এবং ২৩ আগস্ট রবিবার এ দুটি বিয়ে অনুষ্ঠিত হয়।

এ দুটি বাল্যবিয়েরই রেজিস্ট্রি করেন পার্শ্ববর্তী ভালুকা উপজেলার উথুরা ইউনিয়ন কাজী আবদুস সালামের ছেলে নূরুজ্জামান।

সরেজমিন ওই এলাকায় গিয়ে বাল্যবিয়ে দুটির সত্যতা মিলে।

জানা যায়, গত ১৫ আগস্ট শনিবার রাতে উপজেলার বড়চওনা উচ্চ বিদ্যালয়ের নবম শ্রেণিতে পড়ুয়া বড়চওনা কলেজ মোড় বিন্নরীপাড়া গ্রামের হালেম মিয়ার মেয়ে হালিমা আক্তারের (১৪) সঙ্গে নামদারপুর সুলতান নগর গ্রামের আবদুল গফুরের ছেলে আজাহার উদ্দিনের ৫ লাখ ৫০ হাজার টাকা কাবিনে বিয়ে হয়।

সাত দিনের মাথায় ২৩ আগস্ট রাতে তারই বান্ধবী একই এলাকার মানিক মিয়ার মেয়ে মুক্তা আক্তারের (১৪) সঙ্গে ৪ লাখ ৫০ হাজার টাকা কাবিনে ভালুকা উপজেলার কৈয়াদি গ্রামের এক প্রবাসীর বিয়ে হয়।

এ ব্যাপারে স্থানীয় ইউপি সদস্য মজিবর রহমান ফকির ওই দুটি বাল্যবিয়ের বিষয়ে তিনি কিছু জানেন না বলে দাবি করেন।

বড়চওনা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মোহাম্মদ লাল মিয়া জানান, করোনা ভাইরাসের কারণে বিদ্যালয় বন্ধ থাকায় এ বিষয়ে কিছু জানতে পারেননি।

কাজী আবদুস সালামের ছেলে নূরুজ্জামানের মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি বিয়ে দুটি রেজিস্ট্রি করার বিষয়ে অস্বীকার করেন।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আসমাউল হুসনা লিজা বলেন, খোঁজ নিয়ে দায়ীদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে। কাজীর বাড়ি ভালুকা উপজেলায় হওয়ায় তিনি সংশ্লিষ্ট উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাকে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে অনুরোধ করবেন বলেও জানান।

বাল্যবিবাহ আইন

১৯২৯ সালের বাল্যবিবাহ আইন ২০১৭ সালে বাল্যবিবাহ নিরোধ আইনে রূপান্তরিত হয়।

বাল্যবিবাহ আইন, ১৯২৯ অনুযায়ী, কোনো ব্যক্তি কোনো শিশুকে বাল্যবিবাহ করতে বা বাল্যবিবাহ করাতে বাধ্য করতে পারবে না।

অবশ্যই বিয়ের ক্ষেত্রে মেয়ের বয়স ১৮ এবং ছেলের বয়স ২১ হতে হবে।

২০১৫ সালে এই নীতিমালা সংশোধন করে মেয়েদের বিয়ের বয়স ১৮ রাখা হয়েছে এবং ১৬ বছর বয়সে পরিবারের পক্ষ থেকে বিয়ে দিতে পারবে।

১৯২৯ এর ১৯ ধারা মতে, কোনো পরিবার যদি ১৮ বছরের নিচে কোনো মেয়ে শিশুকে এবং ২১ বছরের নিচে কোনো ছেলে শিশুকে বিয়ে দেয় তবে ১ মাসের কারাদণ্ড এবং ১ হাজার টাকা জরিমানা হবে।

বাল্যবিবাহ আইনের নতুন খসড়াতে বলা হয়েছে ছেলের বয়স ২১ বছরের কম এবং মেয়ের বয়স ১৬ বছরের কম হলে সেই বিয়ে বাল্যবিবাহ বলে গণ্য হবে এবং শাস্তিযোগ্য হবে।

এ আইনে নারীদের কারাদণ্ডের কোনো বিধান রাখা হয়নি। এ ধরনের বিয়ে যেকোনো এলাকায় সংঘটিত হলে সে এলাকার নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটের মাধ্যমে তাৎক্ষণিক ভাবে এ ধরনের বিয়ে বন্ধ করবেন এবং দোষীদের আইনের মাধ্যমে শাস্তির ব্যবস্থা করবেন। বিয়ে বাতিলের কোনো বিষয় থাকলে তা পারিবারিক আদালত করবে।

নতুন খসড়াতে আরও বলা হয়, বাল্যবিবাহ সংঘটিত করলে ১ মাস জেল এবং ১০ হাজার টাকা জরিমানা করা হবে।

(সখীপুর সংবাদদাতা, ঘাটাইল ডট কম)/-