রিমান্ড শেষে শরিয়ত বয়াতি কারাগারে

টাঙ্গাইলের মির্জাপুরে মহানবী (সা.) ও ইসলাম ধর্ম নিয়ে কটূক্তি করার অভিযোগে গ্রেপ্তার শরিয়ত বয়াতিকে তিন দিনের রিমান্ড শেষে কারাগারে পাঠানো হয়েছে। মঙ্গলবার (১৪ জানুয়ারি) বিকাল ৩টার দিকে টাঙ্গাইলের সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আমলি আদালতে (মির্জাপুর) হাজির করলে বিচারক আকরামুল ইসলাম তাকে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন।

গত শনিবার ভোরে ময়মনসিংহ জেলার ভালুকা উপজেলার বাশিল এলাকা থেকে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়। ওই দিন পুলিশ তার ১০ দিনের রিমান্ড চেয়ে আদালতে পাঠালে বিচারক তিন দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

শরিয়ত বয়াতি টাঙ্গাইল জেলার মির্জাপুর উপজেলার জামুর্কী ইউনিয়নের আগধল্যা গ্রামের বাসিন্দা। গত ৯ জানুয়ারি ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মির্জাপুর থানায় শরিয়ত বয়াতির বিরুদ্ধে মামলাটি করেন একই উপজেলার আগধল্যা দারুস সুন্নাহ ফোরকানিয়া হাফিজিয়া মাদ্রাসার প্রধান শিক্ষক মাওলানা মো. ফরিদুল ইসলাম।

আসামি পক্ষের আইনজীবী জিনিয়া বক্স বলেন, ‘মহানবী (সা.) ও ইসলাম ধর্ম নিয়ে কটূক্তি করার অভিযোগে শরিয়ত বয়াতির বিরুদ্ধে মামলাটি করা হয়েছে। তিন দিনের রিমান্ড শেষে মঙ্গলবার দুপুরে তাকে আদালতে উঠালে বিচারক তাকে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন। বিচারক আগামী ১২ ফেব্রুয়ারি এই মামলার পরবর্তী তারিখ নির্ধারণ করেছেন। ওইদিন শরিয়ত বয়াতির জামিন আবেদন করা হবে। আশা করছি, ওই দিন তার জামিন মঞ্জুর হবে।

এজাহারে অভিযোগ করা হয়, শরিয়ত সরকার ২০১৯ সালের ২৪ ডিসেম্বর ঢাকা জেলার ধামরাই থানার রোহারটেক এলাকায় পালাগানের একটি অনুষ্ঠানে মহানবী (সা.), মসজিদের ইমাম ও ইসলামের নানা বিষয়ে আপত্তিকর মন্তব্য করেন। পরে তাকে গ্রেপ্তার ও বিচারের দাবিতে ফুঁসে ওঠে স্থানীয় মুসলিম জনতা। তারা মানববন্ধন ও সমাবেশ করেন।

(রেজাউল করিম, ঘাটাইলডটকম)/-