মির্জাপুরে মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্সে শোকের মাসে কনসার্ট; সমালোচনা

টাঙ্গাইলের মির্জাপুরে শোকের মাসে মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্স ভবনের সামনে মঙ্গলবার (১৩ আগস্ট) রাতে ওপেন কনসার্ট অনুষ্ঠিত হয়েছে। ওই কনসার্টে স্থানীয় আওয়ামী লীগের কতিপয় নেতাকর্মী উপস্থিত ছিলেন। এ ঘটনায় উপজেলা জুড়ে আলোচনা-সমালোচনার ঝড় বইছে। ইউএনও বলেছেন কনসার্টের অনুমতি নেয়া হয়নি।

জানা যায়, ঈদুল আযহা উপলক্ষে ঈদের পরদিন মঙ্গলবার রাতে হঠাৎ করে মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্সের সামনে স্থানীয় যুবকরা ওপেন কনসার্টের আয়োজন করে। আওয়ামী লীগ ও সহযোগী সংগঠনের কিছু নেতাকর্মীর উপস্থিতিতেই বিভিন্ন ধরনের উদ্ভট গান- বাজনা পরিবেশিত হয়। গানের তালে হয় উশৃঙ্খল নৃত্য। বিভিন্ন আইডি ফেসবুকে কনসার্টের ছবিও পোষ্ট করা হয়। শোকের মাসে কনসার্টের খবর ছড়িয়ে পড়লে তীব্র নিন্দা প্রকাশ করেন আওয়ামী লীগের দায়িত্বশীল নেতৃবৃন্দ ও এলাকার সাধারণ মানুষ। তারা কনসার্টের আয়োজকদের কঠোর সমালোচনা করে শাস্তিও দাবি করেন।

মির্জাপুর পৌর ছাত্রলীগের সভাপতি আবু বকর সিদ্দিক বলেন, আমরা বন্ধুরা মিলে এই কনসার্টের আয়োজন করি। বিষয়টি মেয়র সাহেবকে অবগত করা হয়। তিনি কনসার্টে এসেছিলেন।

মির্জাপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক সৈয়দ ওয়াহেদ ইকবাল বলেন, আমার বাসার কাছে মুক্তিযোদ্ধা ভবনের সামনে কনসার্টটি অনুষ্ঠিত হয়েছে। কনসার্টের মঞ্চ করা হয় মুক্তিযোদ্ধা ভবনের বারান্দায়। এসময় মেয়র সুমনসহ আওয়ামী লীগের কিছু নেতাকর্মী উপস্থিত ছিলেন।

মির্জাপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মীর শরীফ মাহমুদ বলেন, আমি পরস্পর শুনেছি মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্সের সামনে কনসার্ট হয়েছে এবং সেখানে মেয়র শাহাদৎ হোসেন সুমনসহ আরো কিছু নেতাকর্মী উপস্থিত ছিলেন। শোকের মাসে যারাই কনসার্ট করুক না কেন- এটা ঠিক হয়নি।

মির্জাপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের ভারপ্রাপ্ত কমান্ডার আব্দুল মালেক বলেন, শোকের মাসে মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্সের সামনে কনসার্ট করার অনুমতি দেয়া হয়নি। কানসার্টের বিষয়টি আমাকে জানানো হয়নি। প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।

মির্জাপুর পৌরসভার মেয়র ও উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক শাহাদৎ হোসেন সুমনকে সংবাদকর্মীরা মোবাইলে একাধিকবার কল করলে তিনি রিসিভ করেন নি।

এ বিষয়ে টাঙ্গাইল-৭(মির্জাপুর) আসনের আওয়ামীলীগ দলীয় এমপি মো. একাব্বর হোসেন বলেন, কনসার্ট হওয়ার বিষয়টি আমি জানি না। যদি হয়ে থাকে তবে শোকের মাসে যারা করেছেন- এটা ঠিক হয়নি।

(মির্জাপুর সংবাদদাতা, ঘাটাইলডটকম)/-