মির্জাপুরে একঘরে ও নিরাপত্তাহীনতায় শরীয়ত সরকারের পরিবার

বয়াতি শরীয়ত সরকারের পরিবারের সদস্যদের ‘একঘরে’ করে রেখেছেন তার নিজ গ্রামের মসজিদের ইমাম ফরিদ হোসেন ও কয়েকজন মাতব্বর। এতে গ্রেফতার হওয়া এই বয়াতির পুরো পরিবার চরম নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছেন। তার স্ত্রী শিরিন বেগম, পুত্র অনিক (১২) ও যমজ দুই কন্যা অনিকা (৭) ও কনিকা (৭) ঘর থেকেও বের হতে ভয় পাচ্ছে। এসব শিশুদের স্কুলে যাওয়া বন্ধ রয়েছে।

বয়াতির ভাই মারফত আলী অভিযোগ করেন, গ্রাম্য কিছু মাতব্বর এবং মসজিদের ইমাম ফরিদ হোসেন তাদের জিম্মি করে রেখেছেন।

এদিকে বয়াতি শরীয়ত সরকারকে মামলা থেকে অবিলম্বে মুক্তির দাবিতে মানিকগঞ্জ, সিংগাইর, রাজবাড়ি, রাজশাহী ও রাজধানী ঢাকায় মানববন্ধন বন্ধন ও প্রতিবাদ সমাবেশ করেছেন বাউল শিল্পী ও বিভিন্ন সংগঠন।

মানিকগঞ্জে একটি গানের আসরে আল্লাহ রাসুলের শানে বেয়াদবী, ইসলাম ও কোরআন সম্পর্কে কটুক্তি এবং কুরুচিপূর্ণ বক্তব্য দেয়ার অভিযোগে বয়াতি শরিয়ত সরকারকে ময়মনসিংহের ভালুকা থেকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। টাঙ্গাইলের মির্জাপুর উপজেলার আগধল্যা গ্রামে তার বাড়ি।

গত শুক্রবার আগধল্যা দারুস সুন্নাত হাফেজিয়া মাদ্রাসা ও আগধল্যা মধ্যপাড়া মসজিদের ইমাম মাওলনা মো. ফরিদ হোসেন বাদী হয়ে মির্জাপুর থানায় মামলা দায়ের করেন। মামলার পর ঐ দিন রাতে বয়াতি শরিয়ত সরকারকে গ্রেফতার করা হয় বলে মির্জাপুর থানার অফিসার ইনচার্জ মো. সায়েদুর রহামন জানান।

গ্রেফতারের পর ১০ দিনের রিমান্ড আবেদন করে গত শনিবার টাঙ্গাইল চিফ জুডিসিয়ার ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে হাজির করলে বিচারক তিন দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন। তিন দিনের রিমান্ড শেষে গত মঙ্গলবার তাকে জেল হাজতে প্রেরণ করা করা হয়েছে বলে আজ বৃহস্পতিবার মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা মো. মিজানুর রহমান জানিয়েছেন।

এর আগে বয়াতি শরিয়ত সরকারকে অবিলম্বে গ্রেফতার ও দৃষ্টান্ত মূলক শাস্তিসহ ফাঁসির দাবিতে মুসুল্লিরা প্রতিবাদ সমাবেশ করে। গত মঙ্গলবার বেলা ১১টার দিকে টাঙ্গাইলের মির্জাপুরে ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়ক সংলগ্ন কদিমধল্যা ড. আয়েশা রাজিয়া খোন্দকার স্কুল এন্ড কলেজ মাঠ প্রাঙ্গণে এ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। ধল্যা ঈমান-আকিদা সংরক্ষণ কমিটি এ প্রতিবাদ সমাবেশের আয়োজন করে।

এ ব্যাপারে মির্জাপুর থানার ওসি মো. সায়েদুর রহমান বলেন, মামলার পর বয়াতি শরিয়ত সরকারকে গ্রেফতার করা হয়েছে। গ্রেফতারের পর রিমান্ডে এনে তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করে জেলহাজতে প্রেরণ করা হয়েছে। মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা মো. মিজানুর রহমান জানান বয়াতি শরিয়ত সরকারের পরিবারকে পূর্ণ নিরাপত্তার ব্যবস্থা করা হয়েছে।

(মির্জাপুর সংবাদদাতা, ঘাটাইলডটকম)/-