মাদক থেকে ফেরাতে নাগরপুর থানা পুলিশের ব্যতিক্রমী উদ্যোগ

টাঙ্গাইলের নাগরপুর থানা পুলিশ মাদকাসক্তদের জন্য এক ব্যতিক্রম উদ্দ্যোগ গ্রহণ করেছে। শুক্রবার (১৪ ফেব্রুয়ারি) নাগরপুর থানা পুলিশের পক্ষে অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো. আলম চাঁদ ও তদন্ত কর্মকর্তা গোলাম মোস্তাফা মন্ডল দুজন মাদকাসক্ত ব্যক্তিকে সুস্থ জীবনে ফিরিয়ে আনতে স্ব স্ব ধর্মীয় অনুশাসন মেনে চলার পরামর্শ প্রদান করেন এবং তাদের হাতে ধর্মীয় পোশাক পাঞ্জাবী, পায়জামা ও টুপি তুলে দেন।

মাদকাসক্তরা হলেন- উপজেলা ধুবড়িয়া পূর্ব পাড়া গ্রামের নূরু মিয়ার ছেলে (১) মজনু মিয়া ও একই গ্রামের বদ্দু মিয়ার ছেলে (২) শাহালম মিয়া।

মাদকসেবী মজনু ও শাহালম বলেন, মাদক গ্রহণের কারণে পরিবারের সুখ শান্তি ও অর্থ নষ্ট করেছি। আমরা আমাদের ভুল বুঝতে পেরেছি। আমরা প্রতিজ্ঞা করছি ভবিষতে আমরা আর মাদক গ্রহণ করবো না। আমরা আমাদের ধর্মীয় অনুশাসন মেনে চলবো। এরকম পুলিশ অফিসার প্রত্যেক থানায় থাকুক। তারা আমাদের (মাদকসেবীদের) সঠিক পথ দেখিয়ে দিক। সমাজ থেকে চিরতরে বিদায় নিক মাদক।

এ প্রসঙ্গে তদন্ত কর্মকর্তা গোলাম মোস্তাফা মন্ডল বলেন, বিভিন্ন হত্যা মামলা তদন্ত করতে গিয়ে দেখেছি, যত হত্যা, ধর্ষণ ও ছিনতাইসহ যাবতীয় ক্রাইম সব কিছুর মূলে এই মাদক। মাদক থেকে মাদকাসক্তদের ফেরাতে আমরা বিভিন্ন ব্যতিক্রমী পদক্ষেপ গ্রহণ করেছি, এটা তারই একটা অংশ। মাদক আমাদের দেশে ভয়াবহ রুপধারণ করেছে। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী মাদকের বিরুদ্ধে যুদ্ধ ঘোষণা করেছেন। নাগরপুর থানা পুলিশ তাঁর সাথে একাত্বতা ঘোষণা করে মাদক নির্মূলে কাজ করে যাচ্ছে।

নাগরপুর থানা অফিসার ইনচার্জ (ওসি) জানান, তদন্ত কর্মকর্তা গোলাম মোস্তাফা মন্ডল ২০০১ সালে বাংলাদেশ পুলিশ বাহিনীতে সাব-ইন্সেপেক্টর হিসেবে যোগদান করেন। তিনি ১৩ নভেম্বর ১৮ইং নাগরপুর থানায় যোগদান করেন। সম্প্রতি অল্প সময়ে নাগরপুরের ক্লু-লেস বিপ্লব হত্যা মামলার রহস্য উদঘাটন ও হত্যাকাণ্ডে জড়িতদের আদালতে সোপর্দ করে বাংলাদেশ পুলিশের ভাবমূর্তি উজ্জল করেছেন।

চৌকস এ পুলিশ কর্মকর্তা দীর্ঘ আঠারো বছর বাংলাদেশের বিভিন্ন থানায় কর্মরত থাকাকালীন দক্ষতার সাথে বিভিন্ন জটিল মামলা নিস্পত্তি করেছেন। এর আগে তিনি মধুপুর থানায় কয়েকটা গুরত্বপূর্ণ হত্যাকাণ্ডের রহস্য উন্মোচন করেন। তার মাদক নির্মূলের আজকের এই প্রয়াসকে সাধুবাদ জানাই।

(নাগরপুর সংবাদদাতা, ঘাটাইলডটকম)/-