মধুপুরে ৪০ শতাংশ জমির কলা গাছ কেটে সাবাড়

টাঙ্গাইলের মধুপুর উপজেলার ১১ নং শোলাকুড়ী ইউনিয়নের পেগামারী গ্রামে একটি জমিতে দীর্ঘদিন যাবৎ আদিবাসীরা বংশপরম্পরায় বসবাস ও চাষাবাদ করে আসছেন। সোমবার (১৪ সেপ্টেম্বর) সকালে বিনা নোটিশে বন বিভাগের সহকারী কমিশনার জামাল হোসেন তালুকদারের নেতৃত্বে বাসন্তী রেমার ৪০ শতাংশ জমিতে আবাদি ফসল কলা গাছ কেটে ফেলার অভিযোগ উঠেছে। যার মূল্য ৩ লাখ টাকা হবে।

জমির ফসল কাটা ও জোড়পূর্বকভাবে জমি দখলের চেষ্টার প্রতিবাদে বাংলাদেশ গারো ছাত্র সংগঠন (বাগাছাস) এর কেন্দ্রীয় সংসদের সভাপতি জন যেত্রার নেতৃত্বে স্থানীয় আদিবাসী জনতা বনবিভাগের দোখলা বিট অফিস ঘেরাও কর্মসূচির মাধ্যমে প্রতিবাদ জানিয়েছে।

বন বিভাগের সহকারী কমিশনার জামাল হোসেন তালুকদার, রেঞ্জার আব্দুল আহাদ ও স্থানীয় ওয়ার্ড আওয়ামী সদস্য জাহাঙ্গীরের নেতৃত্বে বাসন্তী রেমার দীর্ঘদিন ধরে বসবাস ও চাষাবাদ করে আসা জমির কলা গাছ কেটে উজাড় করা হয়।

আদিবাসী নেতৃবৃন্দরা দাবি করেন, অবিলম্বে বন বিভাগের সহকারী কমিশনারকে প্রত্যাহার করতে হবে এবং ক্ষতিগ্রস্থ বাসন্তী রেমাকে যথাযথ ক্ষতিপূরণসহ যারা এই কাজে যুক্ত তাদের সকলকে শাস্তির আওতায় আনতে হবে। অন্যথায় বাংলাদেশ গারো ছাত্র সংগঠনসহ (বাগাছাস) সমমনা বিভিন্ন সংগঠন ও স্থানীয় আদিবাসী জনতাকে সাথে নিয়ে কঠোর কর্মসূচি ঘোষণা করা হবে বলে জানিয়েছেন।

(মধুপুর সংবাদদাতা, ঘাটাইল ডট কম)/-