ভুয়া ডাক্তারদের অপিচিকিৎসায় হুমকিতে ঘাটাইলবাসীর মুখ ও দাঁতের স্বাস্থ্য

টাঙ্গাইল জেলার ঘাটাইল উপজেলা একটি গুরুত্বপূর্ণ শহর হিসেবে নানা কারনেই এই জেলার মানুষের কাছে পরিচিত। সেনাবাহিনীর অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ ও বড় ক্যান্টনমেন্ট, সরকারী বেসরকারী জেলার শীর্ষস্থানীয় স্কুল কলেজ মাদ্রাসা, শিক্ষার হার, কৃষ্টি কালচার, ক্রীড়া-সংস্কৃতি আধুনিক পৌরসভা সহ বিভিন্ন দিক দিয়ে এই উপজেলা এগিয়ে গেলেও, পিছিয়ে যাচ্ছে মানুষের স্বাস্থ্য সেবা. বিশেষ করে এই উপজেলার সাড়ে চার লক্ষ্য মানুষের মুখ ও দাঁতের স্বাস্থ্য সূরক্ষা ভীষণভাবে হুমকির সম্মুখীন।

ক্লাস পাচঁ/আট পাশকরা থেকে শুরু করে কিছু ডেন্টাল টেকনোলজিস্ট (যাদের কোনো ধরনের শিক্ষা নেই এবং চিকিৎসার অনুমতি নেই) নামধারী কোয়াকদের কাছে জিম্মি এই উপজেলার মানুষের দাঁত ও মুখের স্বাস্থ্য সেবা। লাইসেন্স না থাকলেও তারা নিজেদেরকে কখনো ডাক্তার কখনো ডেন্টিস্ট বলে দাবী করে ব্যানার সাইনবোর্ড সহ স্থানীয় ডিশ চ্যানেল গুলিতে নিয়মিত প্রচার ও প্রশাসনের সামনেই চিকিৎসার নামে অপচিকিৎসা করে মানুষের মুখ ও দাঁতের স্বাস্থ্য সুরক্ষা হুমকির দিকে ঠেলে দিচ্ছে।

উপজেলার সরকারী হাসপাতালে ডেন্টাল সার্জনের পোস্টিং থাকলেও সেখানে আসলে মুখ ও দাঁতের চিকিৎসা দেয়ার পর্যাপ্ত ব্যবস্থা না থাকায় এলাকার মানুষকে এই সেবা দেয়া সম্ভব হচ্ছেনা, বরং সেখানে কোনো রুগী সেবা নিতে গেলে সেখানকার ডেন্টাল টেকনোলোজিস্টরা রুগীদেরকে ভুলভাল বুঝিয়ে নিজেদের ডেন্টাল চ্যাম্বারে নিয়ে চিকিৎসার নামে অপচিকিৎসা করে রুগীদের সাথে প্রতারনা করছে।

ঘাটাইলে সপ্তাহে একদিন রুগী দেখার সুবাদে, সরাসরি দেখেছি এবং উপলব্ধি করতে পেরেছি, এই এলাকার মানুষ ভূয়া ডাক্তারদের দ্বারা দাঁতের চিকিৎসার নামে অপচিকিৎসা দ্বারা কতটা প্রতারিত এবং প্রতারণার ফল কতটা ভয়াবহ।

এলাকার রুগীদের সাথে কথাবলে যতটুকু বুঝতে পেরেছি, তারা আসলে জানেনা বুঝেনা কে দন্ত বিষয়ক ডাক্তার আর কে ডাক্তার না। রুগীদের ভাষ্যমতে এইটাতো প্রশাসনের দেখার কথা, আমরা কেমনে বুঝব? আমরা কম টাকায় সামান্য কয়দিনের জন্য ব্যাথা কমাইতে পারি এই আর কি, পরে যখন ঐটা থেকে বড় সমস্যা হয় তখন আবার টাঙ্গাইল যাইয়া বড় ডাক্তার দেখাইয়া মেলা টাকা গুনতে হয়। এই বিষয়ে তারা প্রশাসনের দৃষ্টি আকর্ষণ করেন।

বর্তমানে ঘাটাইল উপজেলায় পুরাতন বাস্ট্যান্ড এ “ডেন্টাল মেডিক,” নামে একটি বিশেষজ্ঞ ডেন্টাল চ্যাম্বার এবং কলেজ মোড়ে ” মা ডেন্টাল কেয়ার” নামে একটি ডেন্টাল কেয়ারে বিডিএস ডিগ্রীধারী এবং বাংলাদেশ মেডিকেল এন্ড ডেন্টাল কাউন্সিল থেকে রেজিস্ট্রেশন কৃত তিনজন ডেন্টাল সার্জন রুগী দেখে থাকেন।

তথ্য অনুযায়ী বাকী সবাই ভূয়া বা হাতুড়ে/ কোয়াক। সত্যিকার অর্থে সাধারণ রুগীরা বুঝেই না কে ডাক্তার কে ডাক্তার না, তাছাড়া রুগীরা মুখ ও দাঁত সম্পর্কে তেমন সচেতনও না এবং তারা কম টাকায় চিকিৎসা খুঁজতে গিয়ে অপচিকিৎসা নিচ্ছে, সেই সাথে দাঁতের চিকিৎসা করতে গিয়ে মুখের ক্যান্সার, মুখের টিউমার, সিষ্টের মতো জটিল রোগ বাঁধানো সহ হেপাটাইটিস ও এইডস এর মতো জটিল রোগ বাঁধানোর হুমকিতে রয়েছেন।

যখন রুগীরা বুঝতে পারে তখন অনেক দেরি হয়ে যায় এবং অপারেশন অনেক খরচে গিয়ে দাঁড়ায়, এবং অপারেশন গুলি রাজধানী ঢাকা ছাড়া করাও সম্ভব হয়না। সে ক্ষেত্রে রুগীরা আর্থিকভাবে ভীষণ ক্ষতিগ্রস্থ হওয়ার সাথে সাথে তাদের স্বাভাবিক জীবনও অনেক সময় হুমকির সম্মুখীন হয়ে থাকে।

বর্তমান স্বাস্থ্য বান্ধব সরকার দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে ভূয়া ডাক্তারদের বিরুদ্ধে মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করলেও এই উপজেলায় তেমনটা দেখা যায়নি।

বর্তমান ডেন্টাল সোসাইটির মহাসচিব প্রফেসর ডাঃ হুমায়ুন হুমায়ুন কবীর বুলবুল কোয়াকদের বিরুদ্ধে বিভিন্ন কার্যক্রম পরিচালনা করে যাচ্ছেন। এর অংশ হিসেবে বিডিএস নয়তো ডেন্টিস্ট নয় বা ডাক্তার নয় কার্যক্রম শুরু হয়েছে, এতে করে রোগীরাও সচেতন হবে এবং কোয়াকদের দৌরত্বও কমবে বলে আশা প্রকাশ করেন তিনি।

তিনি আশা প্রকাশ করেন টাঙ্গাইল জেলার ঘাটাইল উপজেলা প্রশাসন ও দায়িত্বশীল কতৃপক্ষ এই অঞ্চলের রুগীদের কোয়াক ও তাদের অপচিকিৎসা, প্রতারনার হাত থেকে রক্ষা করতে যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহন করবে।

প্রশাসন ও দায়িত্বশীল কতৃপক্ষের দায়িত্বশীল ভূমিকা, রোগীদের সচেতনতা, সাংবাদিক ও গণমাধ্যমের যথাযথ ভূমিকা পালন, স্থানীয় গুতুত্বপূর্ণ সামাজিক ভাবে সর্বজন সম্মানিত ও গ্রহণযোগ্য ব্যক্তিবর্গের সামাজিক প্রতিরোধ এই ধরনের প্রতারনা বন্ধে প্রধান ভূমিকা রাখতে পারে। আশা করবো খুব শীঘ্রই স্থানীয় প্রসাশন বিষয়টি গুরুত্বের সাথে বিবেচনা করে যথাযথ ব্যাবস্থা গ্রহন করবে।

মনে রাখবেন মুখ ও দাঁতের চিকিৎসায় বি.ডি.এস ডিগ্রীধারী নয়তো ডাক্তার নয়, ডেন্টিস্ট নয়. দাঁতের চিকিৎসা নেয়ার আগে নিশ্চিত হয়ে নিন আপনার যিনি চিকিৎসা করবেন সে বিডিএস ডিগ্রীধারী কিনা? সন্দেহ হলে দেশের একমাত্র রাষ্ট্রীয় ভাবে ডাক্তারদের প্র্যাকটিস করার লাইসেন্স প্রদানকারী প্রতিষ্ঠান, বাংলাদেশ মেডিকেল এন্ড ডেন্টাল কাউন্সিল (বিএমএন্ডডিসি) এর রেজিস্ট্রেশন যাচাই করে নিন। ডিজিটাল এই যুগে রুগী নিজেই বিএমএন্ডডিসির ওয়েব সাইটে গিয়ে রেজিস্ট্রেশন নাম্বার দিয়ে যাচাই করে নিতে পারবেন তার যিনি চিকিৎসা করবেন সে সত্যিকারের ডাক্তার কিনা।

Google এ BMDC লিখে সার্চ দিয়ে BMDC এর পেইজে ঢুকে Search Registered Doctor এ ঢুকে ডাক্তারের রেজি: নম্বর লিখে MBBS হলে Medical আর BDS হলে Dental এ Click করে Search দিলেই আপনার ডাক্তারের সকল তথ্য জেনে যাবেন, বুঝে যাবেন আপনার ডাক্তার রেজিস্টার্ড ডাক্তার কিনা।

 BMDC এর সাইটে যেতে এখানে ক্লিক করুন

লেখক: ডাঃ নাহিদ আল নোমান
বিডিএস, পি এইচ ডি (জাপান), পি জি টি ( জাপান), ফেলো ইন্ট:কলেজ অফ ডেন্টিস্ট (আমেরিকা)
সহকারী অধ্যাপক, সাপ্পোরো ডেন্টাল কলেজ ও হাসপাতাল – ঢাকা
বি এম ডি সি রেজি:- 3263
মোবাইল – 01816 313917

চ্যাম্বার
1)  ডেন্টাল মেডিক (ঢাকা) – শনি থেকে বুধবার
2) ডেন্টাল মেডিক (ঘাটাইল)- শুক্রবার (9টা-5টা)
3) কসমিক ডেন্টাল (টাংগাইল)- বৃহস্পতি ও শুক্র (সন্ধ্যা)