বুড়িগঙ্গায় লঞ্চডুবির ১৩ ঘণ্টা পর একজনকে জীবিত উদ্ধার!

জুন ৩০, ২০২০

রাজধানী ঢাকার শ্যামবাজরে বুড়িগঙ্গা নদীতে লঞ্চ ডুবিতে ১৩ ঘণ্টা পর একজনকে জীবিত উদ্ধার করা হয়েছে। রোববার (২৯ জুন) রাতে তাকে জীবিত উদ্ধার করে ডুবুরিরা।

ফায়ার সার্ভিসের স্টেশন অফিসার শহিদুল বলেন, ‘আমার জীবনে প্রথম এমন ঘটনা। ১৩ ঘণ্টা পানির নিচে থাকার পর আমি কাউকে জীবিত উদ্ধার করলাম। তিনি হয়ত ইঞ্জিন রুমে ছিলেন। সেখানে কিছু জায়গা ফাঁপা থাকে। বাতাস থাকার সুযোগ আছে।’

ওই ব্যক্তির নাম পরিচয় সম্পর্কে কিছু জানা যায়নি উল্লেখ করে শহিদুল বলেন, ‘দীর্ঘ সময় তিনি পানির নিচে ছিলেন। তিনি কিছু বলার মতো অবস্থায় নেই। আমরা তাকে উদ্ধার করে অ্যাম্বুলেন্সে মিটফোর্ট হাসপাতালে পাঠিয়েছি।’

এর আগে  সকাল নয়টার দিকে মুন্সিগঞ্জ থেকে ছেড়ে আসা মর্নিং বার্ড লঞ্চটি সদরঘাট কাঠপট্টি ঘাটে ভেড়ানোর আগ মুহূর্তে চাঁদপুরগামী ময়ূর-২ লঞ্চটি ধাক্কা দেয়। এতে সঙ্গে সঙ্গে তুলনামূলক ছোট মর্নিং বার্ড লঞ্চটি ডুবে যায়।

তাৎক্ষণিক উদ্ধার অভিযানে নামে ফায়ার সার্ভিস, কোস্টগার্ড, নৌবাহিনীর সদস্যরা। সকাল থেকে বিকেল পর্যন্ত চলা টানা অভিযানে ৩২ জনের মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে।

ডুবে যাওয়া মর্নিং বার্ড লঞ্চটি উদ্ধারের জন্যে জাহাজ প্রত্যয় উদ্ধারের জন্য আসার পথে পোস্তগোলা ব্রিজে আটকে যায়। এতে ব্রিজটির ক্ষতির আশঙ্কা করছে সড়ক ও জনপথ বিভাগ। এ কারণে কারণে ব্রিজটিতে এক পাশের যান চলাচল বন্ধ করে দিয়েছে।

এ ঘটনায় ৭ সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করেছে নৌপরিবহন মন্ত্রণালয়। এছাড়া, মৃত প্রত্যেকের পরিবারকে দেড় লাখ টাকা ও তাৎক্ষণিক ভাবে দাফন করা জন্য ১০ হাজার টাকা দেয়া হবে বলে জানিয়েছেন নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রী।

সোমবার সকাল নয়টার দিকে রাজধানীর বুড়িগঙ্গা নদীতে লঞ্চডুবির ঘটনায় এখন পর্যন্ত ৩৩ জনের মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। ডুবে যাওয়া লঞ্চটি এখনো উঠানো সম্ভব হয়নি। ফলে লঞ্চের ভেতরে কোনো মরদেহ রয়েছে কি না তা এখনো নিশ্চিতভাবে বলতে পারছেন না উদ্ধারকর্মীরা।

প্রসঙ্গত, এর আগে ২০১৩ সালে সাভারের রানা প্লাজা দুর্ঘটনার ১৭ দিন পর ধ্বংসস্তুপের নিচ থেকে রেশমা নামে এক তরুণীকে উদ্ধার করেছিল ফায়ার সার্ভিস। সেই ঘটনাটিও দেশ-বিদেশে আলোড়ন সৃষ্টি করে। অনেকে এর বিশ্বাসযোগ্যতা নিয়েও প্রশ্ন তোলেন।

(ঢাকা টাইমস, ঘাটাইল ডট কম)/-

ফেসবুক (ঘাটাইলডটকম)

বিভাগসমূহ

ঘাটাইলডটকম আর্কাইভ

পঞ্জিকা

July 2020
S S M T W T F
 123
45678910
11121314151617
18192021222324
25262728293031