বিদ্যুৎ বিচ্ছিন্ন অবস্থায় ঢাকাতে চলছে ছাত্রদলের ভোট গ্রহণ, কমিটি ঘোষণা রাতেই

ছাত্রদলের কাউন্সিলদের সঙ্গে বৈঠকে যুক্ত হয়েছেন বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান। বুধবার (১৮ সেপ্টেম্বর) বিকেল সাড়ে পাঁচটার দিকে ঢাকার নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে বৈঠক শুরু হয়। তাকের রহমান বৈঠকে যুক্ত হয়েছেন লন্ডন থেকে। কাউন্সিলরদের সাথে বৈঠক শেষে রাতেই ছাত্রদলের কেন্দ্রীয় কমিটি ঘোষণা হতে পারে বলে গুঞ্জন উঠেছে। সর্বশেষ জানা গেছে জাতীয়তাবাদী ছাত্রদলের ৬ষ্ঠ কাউন্সিলের ভোটগ্রহণ চলছে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য মির্জা আব্বাসের শাহজাহানপুরের বাড়িতে। বুধবার রাত ৮ টা ৫০ মিনিটে এই ভোটগ্রহণ শুরু হয়। তবে ভোট শুরুর কিছুক্ষণ পরেই সেখানে বিদ্যুৎ সংযোগ বিচ্ছিন্ন করে দেয় বিদ্যুৎ বিভাগ। ফলে ঘুটঘুটে অন্ধকারের মধ্যে তীব্র গরমের মধ্যে কাউন্সিলররা ভোট দেন।

এদিকে এর আগে বিকালে সংগঠনের নির্দেশনায় ছাত্রদলের কাউন্সিলররা ঢাকাসহ সারা দেশে থেকে নয়াপল্টনে জড়ো হন। পরে সন্ধ্যায় কাউন্সিলর ও প্রার্থীদের নিয়ে বৈঠকে বসেন কাউন্সিলের দায়িত্বপ্রাপ্ত নেতারা। স্কাইপের মাধ্যমে বৈঠকে অংশ নেন ছাত্রদলের অভিভাবক বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান। তবে দেশের প্রত্যন্ত অঞ্চল থেকে সব কাউন্সিলর ঢাকায় আসতে পারেনি বলে জানা গেছে। এবারের কাউন্সিলে ছাত্রদলের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক পদে মোট প্রার্থী ২৮ জন। এর মধ্যে সভাপতি পদে ৯ জন এবং সাধারণ সম্পাদক ১৯ জন।

নির্বাচন পরিচালনা কমিটির আহ্বায়ক খায়রুল কবির খোকন বলেন, ‘নানা প্রতিবন্ধকতা অতিক্রম করে আমরা গণতান্ত্রিক প্রক্রিয়ায় নেতা নির্বাচনের কাজটি শুরু করেছি। ভোট চলছে। টানা ভোট হবে, কোনও বিরত নেই। ভোটের পর আমরা দ্রুতই গণনার কাজ শুরু করে ফলও ঘোষণা করবো।

সূত্র মতে, ইতোমধ্যে নয়াপল্টন দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে ভোট গ্রহণের সব প্রস্তুতি নেয়া হয়ে। রাতেই হচ্ছে ছাত্রদলের কাউন্সিল। কাউন্সিল নিয়ে নানা জটিলতা থাকার কারণে এমন সিদ্ধান্ত নিয়েছে ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান। কাউন্সিলরদের বৈঠক শেষে ভোটগ্রহণ শুরু হবে। এমনকি রাতেই কমিটি গঠন ঘোষণা হতে পারে।

মাগুরা জেলা ছাত্রদলের সাধারণ সম্পাদক এস এম আবু তাহের সবুজ বলেন, বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী ছাত্রদলের ৬ষ্ঠ জাতীয় কাউন্সিলকে ঘিরে সারা দেশের নেতাকর্মীদের মধ্যে উৎসাহ-উদ্দীপনা তৈরি হয়েছে। তৃণমূল নেতারা চাচ্ছেন, কাউন্সিলদের মাধ্যমে সংগঠনের নেতৃত্ব নির্বাচন হোক। এখন উদ্ভূত পরিস্থিতিতে গতকাল আমরা একটা বৈঠক করেছি। সেখানে তারেক রহমানকে আমরা সিদ্ধান্ত গ্রহণের ক্ষমতা দিয়েছি। এখন আমরা তার বিবেচনার অপেক্ষায় আছি। তিনি যে সিদ্ধান্ত দেবেন সেটাই আমরা মেনে নেব।

সভাপতি পদের এক প্রার্থী বলেন, ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান আজ কাউন্সিলরদের সঙ্গে কথা বলবেন। সেখানে প্রত্যক্ষ ভোট নেয়ার সম্ভাবনা রয়েছে বা কাউন্সিলরদের কাছে কমিটির জন্য নাম জানতেই চাইতে পারেন। অনেক রকমের ধারণাই করা হচ্ছে। মিটিং না হলে বোঝা যাচ্ছে না। ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যানের হাতে সাংগঠনিক সিদ্ধান্ত নেয়ার ক্ষমতা দেয়া হয়েছে। এখন উনি যেভাবে ভালো মনে করবেন সেটাই হবে। এমন হতে পারে যে আজকে মতামত নিতে পারেন, দুই দিন পরে কমিটি দেবেন। আবার আজও হয়ে যেতে পারে। তবে প্রার্থীরা চাচ্ছেন আজ বা দ্রুতই কমিটি হয়ে যাক।

এদিকে একটি সূত্র জানায়, কমিটি গঠনের জন্য ছাত্রদলের প্রভাবশালী কয়েকজনকে দায়িত্ব দিয়েছেন তারেক রহমান। তারেক রহমানের নির্দেশে মঙ্গলবার ঢাকা মহানগর পূর্ব ছাত্রদলের সভাপতি খন্দকার এনামুল হক কাউন্সিলরদের সভায় সভাপতিত্ব করেছেন।

এনামুল হক বলেন, ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান সবাইকে ডেকেছেন। উনি ব্রিফ করবেন। তারপর সিদ্ধান্ত জানাবেন। কোনো সিলেকশন কমিটি না, ব্যালট পেপারে ভোট হবে বলেই তিনি জানান। তিনি আও বলেন, অল্প সময়ের মধ্যেই হবে। আজকে হয়তো আমাদের মধ্য থেকে একটি নির্বাচন কমিশন তৈরি করে দিতে পারেন।

আগের মতো করে হবে কি না— এমন প্রশ্নের জবাবে এনাম বলেন, পরিস্থিতি অনুযায়ী যেভাবে উৎসবমুখর নির্বাচন হওয়ার কথা ছিল, সেভাবে হওয়ার সম্ভাবনা কম। ঘরোয়াভাবেই পার্টি অফিসে হতে পারে।

তবে আজকে কাউন্সিল হবে কি না, সে প্রশ্নের জবাবে এনামুল হক বলেন, সেটা তারেক রহমানের সঙ্গে বৈঠকের পর ছাড়া বোঝা যাবে না।

প্রসঙ্গত, দীর্ঘ ২৭ বছর পর ছাত্রদলের ষষ্ঠ কাউন্সিল হওয়ার কথা ছিল গত ১৪ সেপ্টেম্বর। তবে ১২ সেপ্টেম্বর সংগঠনটির সদ্য বিলুপ্ত কমিটির সহ ধর্মবিষয়ক সম্পাদক আমান উল্লাহর করা মামলায় এই কাউন্সিলের ওপর স্থগিতাদেশ দেয়া হয় এবং বিএনপির নেতাদের জড়িত থাকার বিষয়ে কারণ দর্শানোর নোটিশও দেয়া হয়। ষষ্ঠ কাউন্সিল করার জন্য বিএনপি থেকে একটি কমিটি করা হয়েছিল। তবে আদালতের আদেশের পর এখন ছাত্রদলই নিজেদের বিষয়টি দেখবে বলে জানানো হয় বিএনপি থেকে।

ছাত্রদলের কাউন্সিলে সভাপতি পদের প্রার্থীরা হলেন- কাজী রওনকুল ইসলাম শ্রাবণ, হাফিজুর রহমান, রিয়াদ মো. তানভীর রেজা রুবেল, মো. এরশাদ খান, মো. ফজলুর রহমান খোকন, এসএম সাজিদ হাসান বাবু, এবিএম মাহমুদ আলম সরদার, মাহমুদুল হাসান বাপ্পি,ও মোহাম্মদ মামুন বিল্লাহ।

সাধারণ সম্পাদক পদে- মো. আমিনুর রহমান আমিন, শাহ নাওয়াজ, জাকিরুল ইসলাম জাকির, মোহাম্মদ কারিমুল হাই (নাঈম), মাজেদুল ইসলাম রুমন, ডালিয়া রহমান, শেখ আবু তাহের, সাদিকুর রহমান, কেএম সাখাওয়াত হোসাইন, সিরাজুল ইসলাম, মো. ইকবাল হোসেন শ্যামল, মো. জুয়েল হাওলাদার (সাইফ মাহমুদ জুয়েল), মো. হাসান (তানজিল হাসান), মুন্সি আনিসুর রহমান, মো. মিজানুর রহমান শরিফ, শেখমো. মশিউর রহমান রনি, মোস্তাফিজুর রহমান, সোহেল রানা ও কাজী মাজহারুল ইসলাম।

(অনলাইন ডেস্ক, ঘাটাইলডটকম)/-

Views