বিচার না পেয়ে টাঙ্গাইলে নিহত মুক্তিযোদ্ধা ফারুক আহমেদের স্ত্রী-কন্যার সংবাদ সম্মেলন

আওয়ামীলীগ নেতা, বীর মুক্তিযোদ্বা, বঙ্গবন্ধু হত্যার সশস্ত্র প্রতিবাদকারী ও সাপ্তাহিক মুলস্রোত পত্রিকার প্রকাশক নিহত ফারুক আহমদের বিধবা পত্নী নাহার আহমদ ন্যায় বিচার না পেয়ে আজ শুক্রবার (৮ নভেম্বর) সকালে টাঙ্গাইল প্রেসক্লাবে এক সংবাদ সন্মেলনে করেন।

সংবাদ সন্মেলনে লিখিত বক্তব্যে নিহত ফারুক আহমেদের কন্যা ফারজানা আহমেদ বলেন, আপনারা সবাই জানেন ২০১৩ সালের ১৮ই জানুয়ারি তারিখে আমার পিতা ফারুক আহমদকে খান পরিবারের গুন্ডারা নির্মমভাবে হত্যা করে। এরপর থেকেই আমি এবং আমার পরিবারের সদস্যরা নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছি। এরপরও আমরা বাংলাদেশের একজন সাধারণ নাগরিকের মত জীবনযাপন করার আপ্রান চেষ্টা করে আসছি। কিন্তু খুনী খান পরিবার এখনও আমাদের পিছু ছাড়েনি।

ফারজানা আহমেদ লিখিত বক্তব্যে বলেন, আমার মা চলতি বছরের আগষ্ট মাস থেকে পৌরসভার নকশা পাশ করে যাবতীয় নিয়ম কানুন মেনে আমাদের বাড়ির কাজ শুরু করে। কাজ শুরু করার পর থেকেই আমাদের উপর আশেপাশের প্রতিবেশি দিয়ে খান পরিবার নানা প্রতিবন্ধকতার সৃষ্টি করছে। খান পরিবার চাচ্ছেনা যে, আমরা স্থায়ীভাবে এ এলাকায় বাস করি। এর আগেও আমি আমার মা এবং আমার পরিবারের সদস্যরা নানা হুমকির মুখে ৭ মাস বাড়ি ছাড়া ছিলাম ।

তিনি দাবি করেন, এখন আমার মা যখন নতুন বাড়ি তৈরি করা শুরু করেছে ঠিক তখনই প্রতিবেশি এডভোকেট বজলু ও তার স্ত্রী মিসেস বজলু ও তার অনুগতরা খান পরিবারের মদদে আমরা যাতে বাড়ি তৈরি করতে না পারি সে চেষ্টা করছে। এক পর্যায়ে তাদের পালিত সন্তান জয় আমাকে মারার উদ্দেশ্যে দা নিয়ে ধাওয়া করে। পরবতীতে আমরা পৌর মেয়রকে এ বিষয় জানালে তিনি কোন ব্যবস্থা নেননি। এরপর আমরা লিখিতভাবে মেয়রের কাছে অভিযোগ করি। কিন্তু এরপরও তিনি কোন ব্যবস্থা নেননি।

এছাড়া আমার বাবার হত্যার প্রতিবাদকারী যারা আজ সমাজে প্রতিষ্ঠিত তাদের কাছে গিয়েও বিচার চেয়ে কোন সাড়া পাইনি বলে উল্লেখ করেন তিনি।

সংবাদ সন্মেলনে উপস্থিত ছিলেন টাঙ্গাইল প্রেস ক্লাবের সভাপতি জাফর আহমেদ, সাধারণ সম্পাদক কে জেড মওলাসহ অন্যান্য প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক মিডিয়ার সাংবাদিকবৃন্দ।

(টাঙ্গাইল সংবাদদাতা, ঘাটাইলডটকম)/-