বাসাইলে ঠিকাদারের গাফিলতিতে নির্মাণ কাজ শেষ না হওয়ায় দুর্ভোগ

টাঙ্গাইলের বাসাইলে ঠিকাদারের গাফিলতিতে নির্মাণ কাজ শেষ না হওয়ায় দুর্ভোগ পোহাচ্ছে কাঞ্চনপুর-ঢংপাড়া সড়কে চলাচলকারীরা। বাসাইল, সখীপুর ও মির্জাপুরের দেড় লাখ মানুষ ঝুঁকি নিয়ে এ সড়কে চলাচল করছে। তাদের অভিযোগ সড়ক নির্মাণে গাফিলতি করছেন ঠিকাদার। এ বিষয়ে উপজেলা এলজিইডি’র প্রকৌশলী রোজদিদ আহমেদের কাছে লিখিত অভিযোগ দেয়া হয়েছে।

সরেজমিনে দেখা গেছে, কাঞ্চনপুর-ঢংপাড়া সড়কের সংস্কার ও নির্মাণ কাজ শেষ হওয়ার কথা ২০১৯ সালের মে মাসে। কিন্তু ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান মেসার্স বিশাল এন্টারপ্রাইজের গাফিলতিতে নির্ধারিত সময়ের আট মাস পরও কাজ শেষ হয়নি। এতে নিদারুণ দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে তিন উপজেলার মানুষকে।

আরো দেখা গেছে, সড়কের কোথাও বালু আবার কোথাও খোয়া ফেলে রাখা হয়েছে। সড়কের পাশে পড়ে আছে সারি সারি ইট। এতে স্থানীয়দের কষ্ট আগের চেয়ে বেড়েছে। যানবাহন চলাচলের কারণে ধুলোয় মাখামাখি হয়ে পড়ছেন পথচারীরা।

বাসাইল উপজেলা চেয়ারম্যান কাজী অলিদ ইসলাম বলেন, গত বর্ষার আগে সড়কের কাজ শুরু হয়েছে। মাঝে কাজ বন্ধ ছিলো। ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান বারবার কথা দিয়েও কাজ করছে না।

অভিযুক্ত ঠিকাদার মো. হোসেন বলেন, বন্যার কারণে কয়েক মাস সড়কের কাজ ধরতে পারিনি। যত দ্রুত সম্ভব নির্মাণ কাজ শেষ করা হবে। কয়েক মাসের মধ্যে সড়কটি চলাচলের উপযোগী হবে।

প্রকৌশলী রোজদিদ আহম্মেদ জানান, কাঞ্চনপুর-ঢংপাড়া সড়কটি দীর্ঘদিন চলাচলের অযোগ্য ছিলো। ২০১৮ সালের এপ্রিলে সড়কটি পুনরায় নির্মাণের উদ্যোগ নেয়া হয়।

তিনি আরো জানান, পাঁচ কোটি ৫৯ লাখ টাকা ব্যয়ে কাঞ্চনপুর-ঢংপাড়া সড়কের ছয় কিলোমিটারের ২.৪ কিলোমিটার সংস্কার ও ৩.৬ কিলোমিটার পুনরায় নির্মাণ করা হচ্ছে। ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান মেসার্স বিশাল এন্টারপ্রাইজকে দায়িত্ব নিয়ে কাজ শেষ করতে বলা হয়েছে।

(আবু কাওছার আহমেদ, ঘাটাইলডটকম)/-