প্রতীক বরাদ্দের আগেই সখীপুরে আ.লীগ প্রার্থীর বিরুদ্ধে প্রচার চালানোর অভিযোগ

টাঙ্গাইলের সখীপুর পৌরসভার নির্বাচনে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থীর বিরুদ্ধে প্রতীক বরাদ্দের আগেই ভোট প্রার্থনা করার অভিযোগ পাওয়া গেছে। গতকাল বৃহস্পতিবার দুপুরে স্বতন্ত্র প্রার্থী মো. সানোয়ার হোসেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) ও রিটার্নিং কর্মকর্তার কাছে এ অভিযোগ দেন।

জেলা নির্বাচন কর্মকর্তার কার্যালয় সূত্র জানায়, সখীপুরসহ সারা দেশের ৬৪ পৌরসভায় ৩ জানুয়ারি মনোনয়নপত্র বাছাই করা হয়েছে। ১০ জানুয়ারি মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার, ১১ জানুয়ারি প্রতীক বরাদ্দ ও ৩০ জানুয়ারি নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা আতাউল হক বলেন, নির্বাচনী বিধি অনুযায়ী পৌরসভা নির্বাচনে অংশ নেওয়া প্রার্থীদের প্রতীক বরাদ্দের আগে প্রচারণা আইনত দণ্ডনীয় অপরাধ বলে বিবেচিত হবে।

সখীপুর পৌরসভায় মেয়র পদে তিনজন প্রার্থীর মনোনয়নপত্র বাছাই শেষে বৈধ ঘোষণা করা হয়েছে। ওই তিনজন হলেন আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী বীর মুক্তিযোদ্ধা আবুহানিফ আজাদ, বিএনপি মনোনীত প্রার্থী নাসির উদ্দিন ও স্বতন্ত্র প্রার্থী মো. সানোয়ার হোসেন।

স্বতন্ত্র প্রার্থী মো. সানোয়ার হোসেন লিখিত অভিযোগে বলেন, গত ২৭ ডিসেম্বর আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী কয়েক শ মোটরসাইকেল নিয়ে পৌর শহরের প্রাণকেন্দ্র মোখতার ফোয়ারা চত্বরে সমাবেশ করেন। সেখানে তিনি নৌকা প্রতীকের পক্ষে ভোট চান।

৩১ ডিসেম্বর পাঁচ শতাধিক নেতা-কর্মী নিয়ে সহকারী রিটার্নিং কর্মকর্তার কার্যালয়ে মনোনয়নপত্র জমা দেন। ৪ জানুয়ারি ছাত্রলীগের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর অনুষ্ঠানের নামে মোখতার ফোয়ারা চত্বরে এক বিশাল সমাবেশে নৌকা প্রতীকে ভোট প্রার্থনা করেন তিনি।

গত ২৭ ডিসেম্বর আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী কয়েক শ মোটরসাইকেল নিয়ে পৌর শহরের প্রাণকেন্দ্র মোখতার ফোয়ারা চত্বরে সমাবেশ করেন। সেখানে তিনি নৌকা প্রতীকের পক্ষে ভোট চান।

আওয়ামী লীগের প্রার্থী আবুহানিফ আজাদ ৫ জানুয়ারি ৩ নম্বর ওয়ার্ডের বালিকা উচ্চবিদ্যালয় মাঠে আওয়ামী লীগের বিশেষ বর্ধিত সভায় শতাধিক নেতা-কর্মীর কাছে নৌকা প্রতীকে ভোট চান। এ ছাড়া সপ্তাহজুড়ে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে (ফেসবুক) আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থীর ছবিসহ নির্বাচনী পোস্টার ছেপে নৌকা প্রতীকে ভোট চাওয়া হচ্ছে।

এ সবই নির্বাচনী আচরণবিধির সুস্পষ্ট লঙ্ঘন। প্রমাণস্বরূপ ওই লিখিত অভিযোগের সঙ্গে ফেসবুকের পোস্টারের ছবি প্রিন্ট করে সংযুক্ত করে দেওয়া হয়।

এ বিষয়ে সাবেক মেয়র মো. সানোয়ার হোসেন আজ শুক্রবার প্রথম আলোকে বলেন, প্রচারণার আগেই যেভাবে আওয়ামী লীগ প্রার্থী আচরণবিধি লঙ্ঘন করে চলেছেন, তাতে ৩০ জানুয়ারি নির্বাচন সুষ্ঠু হবে না বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে।

টানা তৃতীয়বার আওয়ামী লীগ থেকে মনোনয়ন পাওয়া প্রার্থী বীর মুক্তিযোদ্ধা আবু হানিফ আজাদ স্বতন্ত্র প্রার্থীর করা ভোট চাওয়ার অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, ‘সানোয়ার একসময় ছাত্রলীগ, এরপর কৃষক শ্রমিক জনতা লীগ এবং একসময় বিএনপিও করেছেন। পাঁচ বছর ধরে আওয়ামী লীগে ঢোকার চেষ্টা করে ব্যর্থ হয়ে নির্বাচনে দাঁড়িয়ে পাগলের প্রলাপ বকছেন। মাঠে তাঁর কোনো ভোট নেই। আমার প্রতিদ্বন্দ্বী বিএনপি মনোনীত প্রার্থী নাসির উদ্দিন।’

(স্টাফ রিপোর্টার, ঘাটাইল ডট কম)/-

Print Friendly, PDF & Email