নিম্নমানের ইট ব্যবহার করায় সখীপুরে সড়ক নির্মাণকাজ বন্ধ করলো এলাকাবাসী

টাঙ্গাইলের সখীপুর উপজেলার কচুয়া-আড়াইপাড়া সড়কের নির্মাণ কাজ বন্ধ করে দিয়েছেন এলাকাবাসী। নিম্নমানের ইট ব্যবহার করায় সোমবার (১৮ নভেম্বর) সকাল সাড়ে ১০টার দিকে কচুয়া গ্রামের লোকজন সড়কের নির্মাণ কাজ বন্ধ করে দেন। এলজিইডির উপজেলা প্রকৌশলী আহসান হাবীব নির্মাণ কাজ বন্ধ করার এ তথ্যের সত্যতা নিশ্চিত করেন।

উপজেলা এলজিইডি কার্যালয় সূত্রে জানা যায়, উপজেলার কচুয়া-আড়াইপাড়াবাজার পর্যন্ত দুই কিলো ৯০০মিটার সড়কের নির্মাণ কাজটি পায় রহমান কনস্ট্রাকশন নামের একটি ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান। কচুয়া বাজার থেকে ৩২০মিটার ইটের সলিং (এইচবিবি) ও বাকি ২৫৮০ মিটার কার্পেটিং করার জন্য এক কোটি ১১ লাখ টাকার নির্মাণ কাজ গত ৯ নভেম্বর আনুষ্ঠানিকভাবে শুরু হয়। ইতিমধ্যে কচুয়া বাজার থেকে ইট সলিংয়ের কাজ চলছে।

সোমবার ভোরে নিম্নমানের দুই ট্রাক ইট ওই সড়কের জন্য আনা হয়। সকাল নয়টা থেকে নিম্নমানের ইট দিয়ে কাজ শুরু হওয়ার খবরে কচুয়া বাজার বণিক সমিতি ও গ্রামের লোকজন একত্রিত হয়ে সকাল সাড়ে ১০টার দিকে সড়কের নির্মাণ কাজ বন্ধ করে দেন।

পরে এলজিইডির উপজেলা প্রকৌশলী ঘটনাস্থলে গিয়ে নিম্নমানের ইট দিয়ে নির্মাণ কাজ করার সত্যতা খুঁজে পান।

কচুয়া বাজার বণিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক আবদুল আলীম বলেন, প্রথমে কিছু ভাল ইট দিয়ে সড়কের নির্মাণ কাজ শুরু হয়। সোমবার সকালে নিম্নমানের ইট দিয়ে কাজ শুরু হওয়ার খবর পাওয়ার পর আমরা সবাই একত্রিত হয়ে ঠিকাদারকে কাজটি বন্ধ রাখার জন্য অনুরোধ করি। পরে কাজ বন্ধ করে নির্মাণ শ্রমিকেরা চলে যায়।

কচুয়া গ্রামের বাসিন্দা আবদুর রহিম বলেন, এখন আমরা অনেক সচেতন। এ দেশ আমাদের, সড়ক আমাদের। আমাদের শ্রম-ঘামের ও ট্যাক্সের টাকায় সড়ক নির্মাণ হচ্ছে, অতএব নিম্নমানের কাজ করে ঠিকাদার পার হতে পারবে না।

ওই সড়কের নির্মাণ কাজ দেখভালের দায়িত্বে থাকা এলজিইডির উপসহকারী প্রকৌশলী আবদুল জলিল বলেন, আমি ঢাকায় প্রশিক্ষণে রয়েছি। সোমবার নিম্নমানের ইট দিয়ে কাজ শুরু করায় গ্রামবাসী বাধা দিয়েছে। আমি উপস্থিত থাকলে হয়তো এ কাজ হতো না। আমার কাজটি গ্রামবাসী করায় তাঁদেরকে ধন্যবাদ জানাচ্ছি।

এলজিইডির উপজেলা প্রকৌশলী আহসান হাবীব বলেন, নিম্নমাণের ইট ব্যবহার করার খবর শুনে ঘটনাস্থলে গিয়ে ওই কাজটি বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। নিম্নমানের সামগ্রী দিয়ে কাজ করার অভিযোগে ওই ঠিকাদারের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

রহমান কনস্ট্রাকশনের ঠিকাদার নজরুল ইসলাম বলেন, ভুলবশত সোমবার এক ট্রাক ইট খারাপ এসেছে। এরজন্য ইটভাটার মালিক দায়ী। আমি সঙ্গে সঙ্গে নিম্নমানের ইট ফেরত নেওয়ার জন্য বলেছি।

(সাজ্জাত লতিফ, ঘাটাইলডটকম)/-