নাগরপুরে মাসুদকে পিটিয়ে হত্যার ঘটনায় বড় ভাই আটক

টাঙ্গাইলের নাগরপুরে মো. মাসুদ মিয়া (২০) নামের মাদকাসক্ত ছেলেকে পিটিয়ে হত্যার অভিযোগ উঠে তারই পিতা ও সহোদর বড় ভাইয়ের বিরুদ্ধে। এ ঘটনায় মুল ঘাতক পলাতক বড় ভাই মতিয়ার রহমানকে (৩৫) গ্রেফতার করেছে নাগরপুর থানা পুলিশ। নাগরপুর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) আলম চাঁদ গ্রেফতারের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। গতকাল মঙ্গলবার (৭ আগস্ট) সকালে টাঙ্গাইলের মির্জাপুর উপজেলার বানাইল ইউনিয়ন এলাকা থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়।

নাগরপুর থানার উপ-পরিদর্শক এস আই মো. ইদ্রিস আলী জানান, নাগরপুর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) আলম চাঁদের নিদের্শে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে সঙ্গীয় ফোর্স নিয়ে মির্জাপুর উপজেলার বানাইল ইউনিয়নের টেগুরী গ্রামের মোতালেফের বাড়ীর সামনে কাচা রাস্তা থেকে ঘাতক মতিয়ার রহমানকে গ্রেফতার করা হয়।

আজ বুধবার (৭ আগস্ট) সকালে ঘাতক মতিয়ার রহমানকে রিমান্ড চেয়ে টাঙ্গাইল কোর্টে প্রেরণ করা হয়। বিজ্ঞ আদালত হত্যার বিষয়টি আমলে নিয়ে তার এক দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

নাগরপুর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) আলম চাঁদ জানান, এস আই ইদ্রিস আলী একজন চৌকশ পুলিশ অফিসার। তিনি দুঃসাহসী ভুমিকা রাখায় হত্যায় জড়িত থাকার মুল আসামী মতিয়ার রহমানকে গ্রেফতার করতে সক্ষম হওয়া সম্ভব হয়েছে।

উল্লেখ্যঃ- উপজেলার কাশাদহ গ্রামের সাবেক ইউপি সদস্য মফিজ উদ্দিনের মাদকাসক্ত ছেলে মাসুদ শুক্রবার সকালে তার বাবার কাছে এক লক্ষ টাকা দাবী করলে মফিজ উদ্দিন তা দিতে অস্বীকার করে। এ নিয়ে পিতা পূত্রের মধ্যে কথা কাটাকাটি হয়। এক পর্যায়ে মাদকাসক্ত মাসুদ উত্তেজিত হয়ে বাড়ির ফ্রিজ ও আসবাবপত্র ভাংচুর করে। এ সময় পিতা মফিজ উদ্দিন ছেলেকে নিবৃত করতে চড় থাপ্পড় মারে। এতে সে আরও ক্ষিপ্ত হয়ে উঠে। পরবর্তীতে বড় ভাই মতিয়ার কোদালের ঘাড়া দিয়ে মাদকাসক্ত মাসুদকে উপর্যপুরি পেটালে সে মাটিতে লুটিয়ে পড়ে। স্বজনরা অচেতন অবস্থায় তাকে উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যায়। সেখানে অবস্থার অবনতি হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে টাঙ্গাইল শেখ হাসিনা মেডিকেল কলেজ এন্ড হাসপাতালে রেফার্ড করেন। হাসপাতালে নেওয়ার সময় পথিমধ্যে তার মৃত্যু হয়।

(মাসুদ রানা, ঘাটাইলডটকম)/-