নাগরপুরে পোল্ট্রি ফার্ম ভস্মীভূতর ঘটনায় নিঃস্ব দৃষ্টি প্রতিবন্ধী পরিবার

টাঙ্গাইলের নাগরপুরে সলিমাবাদ মধ্য পাড়ার দৃষ্টি প্রতিবন্ধী রাকিব মিয়ার পোল্ট্রি ফার্ম বৈদ্যুতিক শর্ট সার্কিটের কারনে পুরে ছাই হয়েছে। সোমবার (১১ জানুয়ারি) বিকেল ৫ টার সময় এ দূঘর্টনা ঘটে।

এ সময় পোল্ট্রি ফার্মে প্রায় ১৫ শত মুরগী, দেড় টন খাবার ও ফার্মে আনুষাঙ্গিক সব কিছু মিলে আট লক্ষাধিক টাকার ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে বলে ধারনা করা হচ্ছে।

আগুন লাগার বিষয়টি জানতে পেরে স্থানীয়রা মসজিদের মাইকে ঘোষণা দিলে শত শত মানুষ আগুন নেভাতে ছুটে আসলেও পাট শোলার সিলিং থাকায় তা দ্রুত পুড়ে যায়। ফায়ার সার্ভিস ঘটনা স্থলে পৌঁছানোর আগেই সব পুড়ে ছাই হয়ে যায়।

দৃষ্টি প্রতিবন্ধী রাকিব মিয়া জানান, তিল তিল করে গড়া এ পোল্ট্রি ফার্মটি পুড়ে যাওয়ায় তিনি এখন নিঃস্ব। তার যা কিছু ছিলো সবই আগুনে পুড়ে গেল। তিনি সহ আরো তিনজন একই পরিবারের দৃষ্টি প্রতিবন্ধী। সন্তানদের নিয়ে তারা কিভাবে বাঁচবে?

দিশেহারা রাকিব মিয়া বলেন, ‘শুনেছি মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তাঁর বাবার মতো দয়ালু। জানি না আমার এ হাহাকার তাঁর কান পর্যন্ত পৌঁছবে কিনা। তবে তাঁর সহায়তা পেলে নিশ্চয়ই আবার আমরা চারটে ডালভাত খেয়ে বাঁচতে পারবো।’

এ বিষয়ে মহিলা ইউপি সদস্য রোজী বেগম বলেন, রাকিব মিয়ারা একই পরিবারের চারজন প্রতিবন্ধী। তাদের শেষ সম্বল এই পোল্ট্রি ফার্মটি। এখন তারা ভীষণ অসহায়। তাদের কে সহযোগিতা করতে সরকার ও সমাজের বৃত্তবানদের নিকট আকুল আবেদন জানান তিনি।

নাগরপুর ফায়ার সার্ভিস সিভিলি ডিফেন্স স্টেশন লিডার মোঃ শামসুল আলম জানান, তারা ঘটনা স্থলে পৌছানোর পূর্বেই স্থানীয় জনতা আগুন নিভিয়ে ফেলে।বৈদ্যুতিক শর্ট সার্কিট থেকে আগুনের সূত্রপাত। তবে ঘরের সিলিং পাটশোলার তৈরী হওয়ায় দ্রুত আগুন লেগেছে। ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ আনুমানিক ছয় লক্ষ টাকা।

(স্টাফ রিপোর্টার, ঘাটাইল ডট কম)/-

Print Friendly, PDF & Email