নাগরপুরে অবৈধ পার্কিংয়ে বাড়ছে জনদুর্ভোগ

টাঙ্গাইলের নাগরপুর শহরে সিএনজি অটোরিকশার যত্রতত্র পার্কিংয়ের কারণে যানজট বেড়েই চলছে। এতে প্রতিদিন পথচারী ও স্কুল-কলেজগামী ছাত্র-ছাত্রীরা চরম ভোগান্তিতে পড়ছে। সড়কে শৃঙ্খলা ফেরাতে হিমশিম খাচ্ছে থানা পুলিশ।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা যায়, শহরে যানজট নিরসনে উপজেলা প্রশাসন ও থানা পুলিশ বারবার সর্তক করার পরও যানজট নিয়ন্ত্রণে আসছে না। মাঝে মাঝেই যানজট নিরসনে উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে ভ্রাম্যমাণ আদালতও পরিচালনা করা হয়। যানজট নিরসন ও সড়কে শৃঙ্খলা ফেরাতে প্রশাসনের পক্ষ থেকে বারবার উদ্যোগ গ্রহণ করা হলেও যানজট মুক্ত হয়নি এ শহরাঞ্চল।

যানজট নিরসনে ব্যবসায়ী নেতৃবৃন্দ, পরিবহন মালিক ও শ্রমিক নেতাদের সাথে একাধিকবার মতবিনিময় সভা করেন স্থানীয় সংসদ সদস্য আলহাজ্ব আহসানুল ইসলাম টিটু। তিনি টিটু যানজট নিরসনে কয়েকবার সড়কে নামেন। নাগরপুর বাজার সংলগ্ন গরুর হাটে অতিরিক্ত সিএনজি অটোরিকশা পার্কিং এর সুব্যবস্থা করেন। ফুটপাত দখলমুক্ত করতে নিজেই কয়েকবার রাস্তায় নামেন। তবুও সড়কে শৃঙ্খলা ফেরেনি।

এদিকে সিএনজি অটোরিকশা চালাকরা যত্রতত্র পার্কিং ও রাস্তায় যাত্রী ওঠা-নামা করায় ও শহরের বিভিন্ন গুরত্বপূর্ণ স্থানে ইচ্ছেমত পার্কিং পয়েন্ট স্থাপন করে যানজট সৃষ্টি করছে। নাগরপুর বটতলা, গয়হাটা রোড, দুয়াজানী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সম্মুখ অংশ, বাস স্ট্যান্ড, সদর ইউনিয়ন পরিষদের সম্মুখ অংশ ও পুরাতন রিক্সা স্ট্যান্ডে সিএনজি অটোরিক্সা যত্রতত্র পার্কিংয়ের কারণে ভয়াবহ যানজট লেগে থাকে।

সকাল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত সিএনজি ও অটোরিকশা দখলে থাকে সড়ক। ভ্রাম্যমাণ দোকান ও যানজটের কারণে স্কুল-কলেজ পড়ুয়া শিক্ষার্থী ও কর্মমুখী লোকজন ভোগান্তিতে পড়েন।

এ প্রসঙ্গে নাগরপুর রিক্সা ও ইজিবাইক শ্রমিক সমিতির সভাপতি মো. আনোয়ার হোসেন বলেন, আমাদের নির্দিষ্ট গাড়ী পার্কিংয়ের স্থান নাই। প্রয়োজনের তুলনায় রাস্তাও নাই। এ জন্যই যানজট সৃষ্টি হয়। নির্দিষ্ট পার্কিং ও রাস্তা প্রশস্ত হলে এ সমস্যা থাকবে না। তারপরও আমরা সমিতির লাইনম্যান দিয়ে সিরিয়াল মেইনট্রেইন করি ও রাস্তা সুন্দর রাখার চেষ্টা করি।

নাগরপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. আলম চাঁদ জানান, নাগরপুরে ট্রাফিক পুলিশ নেই। তারপরও থানা পুলিশ শহরের গুরত্বপূর্ণ স্থানগুলোতে দায়িত্ব পালন করছে। যানজট নিরসনে আমরা চেষ্টা করে যাচ্ছি।

নাগরপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার সৈয়দ ফয়েজুল ইসলাম জানান, যানজট নিরসনে মাসিক আলোচনা সভায় সংশ্লিষ্টদের অবহিত করণ ও মাঝে মাঝেই মোবাইল কোর্ট পরিচালিত হচ্ছে। আমাদের এ কার্যক্রম অব্যহৃত থাকবে।

(রাইসুল ইসলাম লিটন, ঘাটাইলডটকম)/-