দৈনিক সংগ্রাম পত্রিকার অফিস ভাঙচুর, সম্পাদক পুলিশ হেফাজতে

মুক্তিযুদ্ধের সময় হত্যা ও ধর্ষণের দায়ে ফাঁসি কার্যকর হওয়া জামায়াতে ইসলামীর সহকারী সেক্রেটারী জেনারেল আবদুল কাদের মোল্লাকে ‘শহীদ’ উল্লেখ করে প্রতিবেদন প্রকাশ করায় দৈনিক সংগ্রাম পত্রিকার অফিস ঘেরাও করে বিক্ষোভ করছে মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চ। এসময় পত্রিকা অফিসের ভেতরে কম্পিউটার ও আসবাবপত্র ভাঙচুর করে গেটে তালা লাগিয়ে দেন তারা।

শুক্রবার (১৩ ডিসেম্বর) বিকাল সোয়া ৫টার দিকে ঢাকার মগবাজার এলাকায় পত্রিকাটির কার্যালয়ের সামনে অবস্থান নিয়ে বিক্ষোভ শুরু করে সংগঠনের নেতাকর্মীরা।

মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চের সভাপতি আমিনুল ইসলাম বুলবুল বলেন, যুদ্ধাপরাধী কাদের মোল্লাকে শহীদ বলার মাধ্যমে তারা প্রকৃত শহীদদের অবমাননা করেছে। দেশের সার্বভৌমত্বে আঘাত হেনেছে। আমরা চাই সরকারিভাবে পত্রিকাটি বন্ধ করে দেওয়া হোক। আমরা পত্রিকার মেইন গেটে তালা ঝুলিয়ে দিয়েছি।

পত্রিকার সম্পাদক আবুল আসাদকে পুলিশের হাতে তুলে দেওয়া হয়েছে বলেও জানান তিনি।

অফিসে ভাঙচুরের একপর্যায়ে সম্পাদক আবুল আসাদকে হাতিরঝিল থানা পুলিশ নিজেদের হেফাজতে নিয়ে নেয়।

মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শাখার সভাপতি মাহমুদ বলেন, বিজয়ের মাসে একজন রাজাকার, দেশদ্রোহীকে সংগ্রাম পত্রিকা শহীদ অভিহিত করেছে। আমরা এই ঘটনার প্রতিবাদ জানাতে এখানে এসেছি। আমরা অফিসের ভেতরে জামায়াত ও শিবির পরিচালনার নানা কাগজ পেয়েছি। এসব দেখে নিয়মতান্ত্রিকভাবে পত্রিকার সম্পাদককে আমরা পুলিশে দিয়েছি।

মুক্তিযোদ্ধা মঞ্চের সভাপতি আমিনুল ইসলাম বুলবুল বলেন, ‘স্বাধীনতাবিরোধী জামায়াত শিবিরের মুখপাত্র দৈনিক সংগ্রাম গতকাল (১২ ডিসেম্বর) কুখ্যাত যুদ্ধাপরাধী কসাই কাদের মোল্লাকে শহীদ আখ্যা দিয়ে প্রথম পাতায় সংবাদ পরিবেশন করেছে। মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চ এমন ঘটনার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানায়। যুদ্ধাপরাধ মামলায় ফাঁসির সাজাপ্রাপ্ত রাজাকার কাদের মোল্লার পক্ষে অবস্থান নেওয়ার অপরাধে সম্পাদক আবুল আসাদের দ্রুত গ্রেফতার ও দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি করছি।’

দৈনিক সংগ্রামের এক কর্মকর্তা বলেন, কিছু মানুষ এসে অফিসের সামনে অবস্থান নিয়ে স্লোগান দিচ্ছে। শুরুতে আমাদের সাংবাদিকদের ভেতরে প্রবেশ করতে বাধা দিয়েছিল। এখন গেট বন্ধ করে বসে আছি। তারা কাউকে প্রবেশ বা বাইরে বের হতে বাধা দিচ্ছে না।

ডিএমপির তেজগাঁও জোনের অতিরিক্ত উপকমিশনার হাফিজ আল ফারুক বলেন, আমরা ঘটনাস্থলে রয়েছি। কারা এই কাজ করেছে তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে।

(পূর্বপশ্চিম, ঘাটাইলডটকম)/-