দেলদুয়ারে শ্লীলতাহানির প্রতিবাদ করায় বাবাকে পিটিয়েছে বখাটেরা

টাঙ্গাইলের দেলদুয়ার উপজেলার ফাজিলহাটি ইউনিয়নের লালহাড়া গ্রামের ১০ম শ্রেণির ছাত্রী শারমিন আক্তারকে শ্লীলতাহানির চেষ্টায় বাধা দেয়ায় বাবা আজম খাঁনকে (৫০) পিটিয়েছে একই গ্রামের বখাটে ৫ যুবক। শুক্রবার (৩০ মার্চ) সকালে এ ঘটনাটি ঘটে।

হামলায় গুরুতর আহত আজম খাঁন এখন টাঙ্গাইল জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি রয়েছেন।

বখাটেদের হামলার শিকার আজম খাঁন জানান, কিছুদিন আগে তার ছেলের একটি কম্পিউটার চুরি করে নিয়ে যায় ওই বখাটে যুবকরা। এ কারণে তিনি দেলদুয়ার থানায় একটা জিডি (সাধারণ ডায়েরি) করে রাখেন। এর প্রতিশোধ নিতে শুক্রবার সকালে তার মেয়ে ও নাল্লাপাড়া বেলায়েত হোসেন উচ্চ বিদ্যালয়ের ১০ম শ্রেণির ছাত্রী শারমিন আক্তারকে (১৭) শ্লীলতাহানির চেষ্টা চালায় আশরাফ নামের এক যুবক। এ সময় শারমিনের ডাক-চিৎকারে তিনি এগিয়ে গেলে ওই বখাটে যুবকদের দলনেতা আশরাফ দৌঁড়ে পালিয়ে যায়। তিনি শ্লীলতাহানির ঘটনায় জড়িত আশরাফের বাবা-মায়ের কাছে এর বিচার দাবি করি। এ কারণে শুক্রবার সকাল সাড়ে ১১টার দিকে বাজার থেকে ফেরার পথে রাস্তার মধ্যে বখাটে আশরাফের নেতৃত্বে ৫ যুবক রড, সিএনজির চেইন ও স্প্রিং নিয়ে তাকে ঘেরাও করে এলোপাতাড়ি মারধর করে।

তিনি জানান, মারধরের ঘটনায় জড়িত ছিলেন, উপজেলার ফাজিলহাটি ইউনিয়নের লালহাড়া গ্রামের আজমত আলীর ছেলে আশরাফ (২৭), তার ভাই আবু বকর (২০), হযরত আলীর ছেলে আল-আমীন (২২), ময়নাল মিয়ার ছেলে রাব্বি (১৭), সাহেব আলীর ছেলে রবিন (১৭)।

অভিযুক্ত আশরাফের ব্যবহৃত মুঠোফোন ০১৬২১-০২৩১০৫ মোবাইল নম্বরে একাধিকবার চেষ্টা করলেও তিনি ফোন রিসিভ করেননি। এ ঘটনায় নির্যাতিতা ছাত্রীর ভাই রাকিবুল খাঁন বাদী হয়ে শুক্রবার (৩০ মার্চ) রাতে দেলদুয়ার থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেছেন।

এ প্রসঙ্গে দেলদুয়ার থানার অফিসার ইনচার্জ(ওসি) মো. জহিরুল ইসলাম ১০ম শ্রেণির ছাত্রীর শ্লীলতাহানি ও বাবা আজম খানকে পিটিয়ে আহত করার অভিযোগে পেয়েছেন বলে জানান। তিনি জানান, ঘটনার সত্যতা প্রমাণ হলে মামলাসহ প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

(দৃষ্টি, ঘাটাইল.কম)/-