ঢাকা সিটি নির্বাচন পেছানোর রিট খারিজ, ৩০শে জানুয়ারিতেই নির্বাচন

বাংলাদেশে সরস্বতী পূজার কারণে ঢাকা সিটি নির্বাচন পেছানোর জন্য আদালতের দাখিল করা রিট খারিজ করে দিয়েছে আদালত। এর আগে সরস্বতী পূজার কারণে নির্বাচন পেছানোর জন্য আদালতের রিট দাখিল করার পর আজ মঙ্গলবার (১৪ জানুয়ারি) সে নিয়ে আদালত রায় দেবার দিন ধার্য করা হয়। রিট হবার প্রেক্ষাপটে আদালতের নির্দেশনা অনুযায়ী সিদ্ধান্ত নেবার কথা জানিয়েছিল নির্বাচন কমিশন।

গত ২২শে ডিসেম্বর প্রধান নির্বাচন কমিশনার কেএম নুরুল হুদা নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করেন। সে অনুযায়ী নির্বাচনের ভোট গ্রহণ করার তারিখ নির্ধারণ করা হয় ৩০ শে জানুয়ারি। তফসিল ঘোষণার পর থেকে হিন্দু-বৌদ্ধ-খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদের পক্ষ থেকে নির্বাচন পেছানোর দাবি জানিয়েছে। এ বিষয়ে তারা নির্বাচন কমিশনকেও চিঠি দিয়েছে।

তবে নির্বাচন কমিশন এর আগে জানিয়েছিলো, সরকারী ক্যালেন্ডার অনুযায়ী ভোটের তারিখ ৩০শে জানুয়ারি নির্ধারণ করেছে ইসি। ২৯শে জানুয়ারি ঐচ্ছিক ছুটি। ৩১ শে জানুয়ারি শুক্রবার। আবার ১লা ফেব্রুয়ারি এসএসসি পরীক্ষা। এসব দিক বিবেচনায় নিয়েই ৩০শে জানুয়ারি ভোটের তারিখ নির্ধারণ করা হয়েছে।

এর আগে সরস্বতী পূজার কারণে ঢাকার দুই সিটিতে ভোটের তারিখ পেছাতে কয়েকটি সংগঠন নির্বাচন কমিশনে আবেদন জানায়।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের জগন্নাথ হলের প্রাধ্যক্ষ ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের রিটার্নিং কর্মকর্তার দফতরে একটি আবেদন করেন। অন্যদিকে, রোববার ভোটের তারিখ পরিবর্তনের দাবিতে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সমাবেশ করেছে বাংলাদেশ হিন্দু, বৌদ্ধ, খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদের ছাত্র সংগঠন সাধারণ শিক্ষার্থী ঐক্য পরিষদ।

আগামী ২৯ ও ৩০ জানুয়ারি সরস্বতী পূজা রয়েছে উল্লেখ করে গত ৫ জানুয়ারি (রোববার) সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী অশোক কুমার ঘোষ এ রিট করেন। পরদিন ৬ জানুয়ারি তিনি বলেন, ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণ সিটি করপোরেশন নির্বাচনের জন্য ৩০ জানুয়ারি নির্ধারণ করা হয়। কিন্তু ২৯ ও ৩০ জানুয়ারি হিন্দু সম্প্রদায়ের সরস্বতী পূজা অনুষ্ঠিত হবে। দেশের সমস্ত বিদ্যালয়, মহাবিদ্যালয় ও বিশ্ববিদ্যালয়ে সরস্বতী পূজা হয়। নির্বাচন উপলক্ষে যেহেতু শিক্ষা-প্রতিষ্ঠানে ভোটকেন্দ্র স্থাপন করা হবে বিধায় এটি সাংঘর্ষিক। এ অবস্থায় পঞ্চমী শেষ না হওয়া পর্যন্ত প্রতিমা বিসর্জন দেওয়া যায় না। তাই নির্বাচনের তারিখ পরিবর্তন করে ফেব্রুয়ারি মাসের প্রথম সপ্তাহে নির্ধারণের জন্য হাইকোর্টে রিট (নম্বর-১৩১/২০২০) করা হয়েছে।

(বিবিসি, ঘাটাইলডটকম)/-