ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়কে পৃথক দুর্ঘটনায় ঝরল তিন প্রাণ

ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়কে পৃথক সড়ক দুর্ঘটনায় নারী ও শিশুসহ তিন মোটরসাইকেল আরোহী নিহত হয়েছে। আজ শুক্রবার (৯ আগস্ট) সকালে এসব দুর্ঘটনা ঘটে।

নিহতরা হলেন- নাটোরের আটদিঘা এলাকার বাসিন্দা নৌবাহিনী ঢাকা সদর দপ্তরের কর্মরত কর্পোরাল নাজমুল হোসেন (২৭), মির্জাপুর উপজেলার হারিয়া গ্রামের সাবেক চেয়ারম্যান মো. ছবুর মিয়ার স্ত্রী সুফিয়া বেগম (৬০) এবং পার্শ্ববর্তী বাসাইল উপজেলার কাঞ্চনপুর গ্রামের শামীম আল মামুনের মেয়ে সামিয়া আক্তার (১০)।

পুলিশ ও এলাকাবাসী জানায়, শুক্রবার সকাল সাড়ে ছয়টার দিকে মোটরসাইকেলযোগে ঢাকা থেকে নাটোর যাচ্ছিলেন নাজমুল ও তার সহকর্মী কর্পোরাল জাহাঙ্গীর হোসেন। মির্জাপুর উপজেলার গোড়াই এলাকায় আসার পর নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে মোটরসাইকেলটি দুর্ঘটনার কবলে পড়ে। এতে নাজমুল মোটরসাইকেল থেকে পড়ে যায়। এ সময় পেছন থেকে একটি ট্রাক নাজমুলকে চাপা দিলে ঘটনাস্থলেই তার মৃত্যু হয়।

এছাড়া সকাল সাড়ে ১০টার দিকে নানার বাড়ি মির্জাপুর উপজেলার মুশুরিয়াঘোনা থেকে চাচা শাহিন মিয়ার সঙ্গে মোটরসাইকেলযোগে বাড়িতে যাচ্ছিল সামিয়া আক্তার। মহাসড়কের মির্জাপুর উপজেলার কদিমধল্যা বাসস্ট্যান্ডে পেছন থেকে একটি বাস মোটরসাইকেলকে চাপা দেয়। এতে ঘটনাস্থলেই সামিয়া মারা যায়। গুরুতর অবস্থায় আহত চাচা শাহিন মিয়াকে মির্জাপুরের কুমুদিনী হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

অপর দুর্ঘটনাটি ঘটে মহাসড়কের কালিয়াকৈর এলাকায়। সকাল ১০টার দিকে ছেলে সোহাগ মিয়ার সঙ্গে মোটরসাইকেলযোগে বাড়ি ফিরছিলেন সুফিয়া বেগম। পথে ওই এলাকায় নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে মোটরসাইকেল থেকে দুজন রাস্তায় ছিটকে পড়েন। এ সময় উত্তরাঞ্চলগামী বাসের চাপায় ঘটনাস্থলেই সুফিয়া বেগম মারা যান। দুর্ঘটনায় আহত সোহাগ মিয়াকে মির্জাপুরের ন্যাশনাল ক্লিনিকে চিকিৎসা সেবা দেয়া হয়েছে।

মির্জাপুরের গোড়াই হাইওয়ে থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) রাইজুল ইসলাম জানান, নিহতদের মধ্যে দুইজনের মরদেহ হাইওয়ে থানা পুলিশের হেফাজতে রয়েছে। এছাড়া কর্পোরাল নাজমুল হোসেনের মরদেহ ময়না তদন্তের জন্য টাঙ্গাইল জেনারেল হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

(রেজাউল করিম, ঘাটাইলডটকম)/-