টাঙ্গাইল-ভূঞাপুর সড়ক নিম্নমানের সামগ্রীতে নির্মাণের অভিযোগ

টাঙ্গাইল-ভূঞাপুর সড়কে শুরু হয়েছে ব্রিজ নির্মাণ ও সড়ক সম্প্রসারণের কাজ। ফলে এখানে যান চলাচলের জন্য নির্মাণ করা হচ্ছে বিকল্প সড়ক (ডাইভারশন)। বিকল্প সড়ক নির্মাণে নিম্নমানের সামগ্রী দিয়ে দায়সারা কাজ করার অভিযোগ তুলেছেন এলাকাবাসী। প্রতিবাদে বুধবার (৩০ জানুয়ারি) সকালে সড়কে কালিহাতী উপজেলার নারান্দিয়া বাসস্ট্যান্ড এলাকায় বিভোক্ষ করে সিডিউল অনুযায়ী কাজ করার দাবি জানিয়েছেন তারা।

এতে ঠিকাদারের গাফিলতি ও সড়ক বিভাগের অবহেলাকেই দায়ী করছেন এলাকাবাসী। তবে দায়িত্বপ্রাপ্ত উপ-সহকারী প্রকৌশলী বলেছেন, কর্তৃপক্ষের নির্দেশনা মোতাবেক কাজ করা হচ্ছে।

সরেজমিনে দেখা যায়, টাঙ্গাইল-ভূঞাপুর সড়কের ঝুঁকিপূর্ণ ব্রিজগুলো নতুন করে নির্মাণের জন্য ভেঙে ফেলা হচ্ছে। এদিকে যান চলাচল স্বাভাবিক রাখতে সড়কে তৈরি করা হচ্ছে বিকল্প সড়ক। দুই স্তরের ইট দিয়ে বিকল্প সড়ক নির্মাণে কথা থাকলেও ব্যবহার করা হচ্ছে ভাঙা ব্রিজেরই আবর্জনা। আবার একেকটি বিকল্প সড়ক একেকভাবে নির্মাণ করা হচ্ছে। ফলে বিকল্প সড়কে প্রতিনিয়তই দেবে যাচ্ছে যানবাহন।

গতকাল মঙ্গলবারও একটি মালবাহী ট্রাক দেবে গিয়ে ৪ ঘণ্টা যান চলাচল বন্ধ থাকে। এতে হাজার হাজার যাত্রী চরম ভোগান্তির শিকার হন। অত্যন্ত ঝুঁকি নিয়ে চলাচল করছে যানবাহনগুলো। এ সড়কে নির্মাণকৃত  ৫টি বিকল্প সড়কেরই একই অবস্থা।

আমির আলী নামের এক বাসচালক বলেন, ‘এতো নিম্নমানের ডাইভারশন দিয়ে আমরা অত্যন্ত ঝুঁকি নিয়ে চলাচল করি। কখন যে বড় ধরনের দুর্ঘটনা ঘটে?

বাসযাত্রী সোনিয়া আক্তার বলেন, এই বিকল্প সড়ক দিয়ে বাসে চলাচল করতে আমার ভয় লাগে।

এই রুটে কয়েকজন যানবাহন চালক বলেন, যেভাবে ডাইভারশন সড়ক নির্মাণ করা হচ্ছে, একটু বৃষ্টি হলেই যান চলাচলের অযোগ্য হয়ে যাবে। একদিকে সড়কে যেমন ব্যবহার করা হচ্ছে নিম্নমানের সামগ্রী। অন্যদিকে বিকল্প সড়কগুলো অত্যন্ত নিচু।

কালিহাতীর নারান্দিয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যার শুকুর মামুদ বলেন, নারান্দিয়া বাসস্ট্যান্ড ব্রিজের ভাঙা আবর্জনা দিয়েই ডাইভারশন সড়ক তৈরি করা হচ্ছে। তাই এলাকাবাসী প্রতিবাদ জানিয়েছেন। আমরা চাই সিডিউল অনুযায়ী ভালোমানের নির্মাণ সামগ্রী দিয়ে বিকল্প সড়ক নির্মাণ করা হোক।

এই সড়কে দায়িত্বপ্রাপ্ত টাঙ্গাইলের সড়ক ও জনপথ বিভাগের উপ-সহকারী প্রকৌশলী তারেক হোসেন বলেন, ‘আমরা ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের নির্দেশনা অনুযায়ী বিকল্প সড়ক নির্মাণ করছি। তবে ঠিকাদারের সাথে যোগাযোগ করলে তাকে পাওয়া যায়নি।’

(ভুঞাপুর সংবাদদাতা, ঘাটাইলডটকম)/-

544total visits,1visits today