টাঙ্গাইলে মহাসড়কে যানজট নিরসনে মাঠে ৬১২ পুলিশ

ক’দিন পরই ঈদুল আজহা। ঈদ সামনে রেখে রাজধানী ঢাকা সহ বিভিন্ন জেলার ঘরমুখো মানুষ ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়ক দিয়ে তাদের গন্তব্যে ফিরবেন। এসময় যানবাহনের চাপ থাকায় বিগত বছরগুলোতে এই মহাসড়কে যানজটের সৃষ্টি হওয়ায় যাত্রীদের ভোগান্তি পোহাতে হয়েছে। মানুষকে ঘণ্টার পর ঘণ্টা মহাসড়কে থাকতে হয়েছে। তাই আসন্ন ঈদুল আজহা উপলক্ষে যানজট নিরসনে ঢাকা-টাঙ্গাইল-বঙ্গবন্ধু সেতু মহাসড়কের মির্জাপুরের ধেরুয়া থেকে বঙ্গবন্ধু সেতুর গোলচত্বর পর্যন্ত ৬১২ জন পুলিশ সদস্য মাঠে থাকবে।

মঙ্গলবার (২৮ জুলাই) দুপুর দুইটা থেকে ঈদের দিন পর্যন্ত পুলিশ সদস্যরা দায়িত্ব পালন করবেন।

পুলিশ সুপারের কার্যালয় সূত্র জানায়, ঢাকা-টাঙ্গাইল-বঙ্গবন্ধু সেতু মহাসড়কের মির্জাপুরের ধেরুয়া থেকে বঙ্গবন্ধু সেতুর গোলচত্বর পর্যন্ত এলাকাকে পাঁচটি সেক্টরে ভাগ করা হয়েছে। এর মধ্যে মির্জাপুরের ধেরুয়া ওভার ব্রিজ থেকে নাটিপাড়া পর্যন্ত এক নম্বর সেক্টর, নাটিয়াপাড়া থেকে ঘারিন্দা ওভারব্রিজ পর্যন্ত দুই নম্বর সেক্টর, ঘারিন্দা ওভারব্রিজ থেকে এলেঙ্গা ব্রিজ পর্যন্ত তিন নম্বর সেক্টর, এলেঙ্গা ব্রিজ থেকে বঙ্গবন্ধু সেতু পর্যন্ত চার নম্বর সেক্টর ও ময়মনসিংহ লিংক রোড থেকে মধুপুরের অরণখোলা পর্যন্ত পাঁচ নম্বর সেক্টরে ভাগ করা হয়েছে। চার নম্বর সেক্টরকে আবার তিনটি সাব সেক্টরে ভাগ করা হয়েছে।

এলেঙ্গা ব্রিজ থেকে বঙ্গবন্ধু সেতু মহাসড়কের সাত নম্বর ব্রিজ পর্যন্ত এক নম্বর সাব সেক্টর সাত নম্বর ব্রিজ থেকে ১৫ নম্বর ব্রিজ পর্যন্ত দুই নম্বর সাব সেক্টর ও ১৫ নম্বর ব্রিজ থেকে বঙ্গবন্ধু সেতুর গোলচত্বর পর্যন্ত তিন নম্বর সাব সেক্টরে ভাগ করা হয়েছে।

প্রতিটি সেক্টরে একজন করে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার সেক্টর ইনচার্জ, একজন সহকারী পুলিশ সুপার সহযোগী ইনচার্জ, সহযোগী ইনচার্জ হিসেবে দুই জন পুলিশ পরিদর্শক, সার্বিক সহযোগিতায় দুইজন টিআই ও দুইজন সার্জেন্ট ও টিএসআই দায়িত্ব পালন করবেন।

এছাড়াও ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়কে বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ পয়েন্টে ৩৫টি পিকেট ডিউটি মোতায়েন করা হয়েছে। অপরদিকে প্রতি দুই কিলোমিটারে একটি করে মোট ৩৪টি মোটরসাইকেল টিম মোতায়েন এবং গুরুত্বপূর্ণ লিংক রোডের মাথায় ১৫টি অস্থায়ী বাঁশকল স্থাপন করা হয়েছে।

টাঙ্গাইলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. শফিকুল ইসলাম বাংলানিউজকে জানান, মহাসড়কের টাঙ্গাইলের অংশে যানজট নিরসনে ৬১২ পুলিশ সদস্য তৎপর রয়েছে। যত্রতত্র গাড়ি পার্কিং করে যাতে যানজটের সৃষ্টি না করে সে লক্ষ্যে পরিবহন নেতাদের সঙ্গে কথা হয়েছে।

অপরদিকে ঈদ উপলক্ষে যানবাহন থেকে যাতে চাঁদাবাজি করতে না পারে সেদিকে নজর রয়েছে।

তিনি আরো বলেন, করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে প্রতিটি পুলিশ সদস্যকে মাস্ক, হ্যান্ড স্যানিটাইজারসহ করোনা প্রতিরোধক সামগ্রী দেওয়া হয়েছে।

(টাঙ্গাইল সংবাদদাতা, ঘাটাইল ডট কম)/-