টাঙ্গাইলে ছেলের দেওয়া তালা ভেঙে মা-বোনকে ঘরে তুলে দিলেন ইউএনও

ষাটোর্ধ্ব মা ও ছোট দুই বোনকে বের করে দিয়ে ঘরে তালা দিয়েছিল সৎছেলে আনোয়ার হোসেন কাইয়ুম। এ অভিযোগ কানে যাওয়ার পর বুধবার (২৪ জুলাই) টাঙ্গাইল সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) আতিকুল ইসলাম ওই ঘরের তালা ভেঙে তাদের ঘরে থাকার ব্যবস্থা করে দেন।

ওই মায়ের নাম নুরুন্নাহার। তিনি টাঙ্গাইল পৌরসভার সন্তোষ বাগবাড়ি এলাকার মৃত খন্দকার আবদুল করিমের স্ত্রী। ২০ জুলাই তার সৎছেলে আনোয়ার হোসেন কাইয়ুম ও তার স্ত্রী তাদের ঘর থেকে বের দেয়।

স্থানীয়রা জানান, স্বামী মারা যাওয়ার পর থেকেই মায়ের প্রতি সৎছেলে আনোয়ার হোসেনের শ্রদ্ধাবোধ কমতে শুরু করে। তার স্ত্রীও ওই বৃদ্ধা ও তার মেয়েদের বিভিন্নভাবে নির্যাতন করতো। সম্প্রতি আনোয়ার মেজো বোনের সঙ্গে ষাটোর্ধ্ব এক বৃদ্ধের বিয়ে ঠিক করে। এই বিয়েতে তার বোন ও মা রাজি না হওয়ায় বোনকে শারীরিকভাবে নির্যাতন করা হয়। একপর্যায়ে দুই বোন ও মাকে বের করে দিয়ে ঘরে তালা দেয় আনোয়ার।

নুরুন্নাহার বলেন, ‘আমার মেজো মেয়ে ফরিদার সঙ্গে ৭০ বছরের এক বৃদ্ধের বিয়ে ঠিক করে আনোয়ার। মেয়ে রাজি না থাকায় আনোয়ার তার চাচাতো বোন শিউলির শহরের আকুর-টাকুরপাড়ার বটতলার বাসায় নিয়ে শারীরিক ও মানসিকভাবে নির্যাতন করে তাকে। বিষয়টি নিয়ে প্রতিবাদ করলে দুই মেয়ে ও আমাকে ঘর থেকে বের করে দিয়ে তালা ঝুলিয়ে দেয়। পরে ইউএনও তালা ভেঙে আমাগো থাকার ব্যবস্থা করে দেন।’

ইউএনও আতিকুল ইসলাম বলেন, ‘খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে তালা ভেঙে মা ও দুই মেয়েকে ওই ঘরে থাকার ব্যবস্থা করে দেওয়া হয়। তখন বৃদ্ধার ছেলে ও তার স্ত্রীকে বাড়িতে পাওয়া যায়নি। ’

বৃদ্ধার বরাত দিয়ে ইউএনও আরও বলেন, ‘সৎছেলে আনোয়ার তার বাবার মৃত্যুর পর মায়ের খোঁজ-খবর তেমনটা নেন না। বৃদ্ধার তিন মেয়ে। ছোট মেয়েটি বোবা। বড় মেয়েকে বিয়ে দিয়েছেন। মেজো মেয়েকে এখনও বিয়ে দেননি। আনোয়ারের বাবার মৃত্যুর পর তার একটি বড় ঘরের পাশে টিনের একচালা পুরনো ছোট ঘরে বৃদ্ধা তার দুই মেয়েকে নিয়ে বসবাস করছেন।’

ইউএনও আরও বলেন, ‘ওই বৃদ্ধার স্বামী অসুস্থ থাকা অবস্থায় আনোয়ার হোসেন জালিয়াতি করে জমিজমা নিজের নামে করে নিয়েছে। মা মারা যাওয়ার পর আনোয়ারের বাবা খন্দকার আবদুল করিমের সঙ্গে এই বৃদ্ধার বিয়ে হয়। তখন থেকে তিনি আনোয়ারের দেখাশোনা করতেন।’

বৃদ্ধাকে দ্রুত বয়স্ক ভাতার কার্ড দেওয়া হবে বলে জানান ইউএনও। এছাড়া বৃদ্ধা ও তার মেয়েদের যেন কোনও সমস্যা না হয়, সে ব্যাপারে আনোয়ারকে সতর্ক করা হয়েছে বলে জানান তিনি।

(টাঙ্গাইল সংবাদদাতা, ঘাটাইলডটকম)/-