ঘাটাইলে মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডারের সনদ যাচাই করতে নোটিশ রসুলপুর ইউপি চেয়ারম্যানের

নিজেকে রাজা দাবি করা টাঙ্গাইল জেলার ঘাটাইল উপজেলার রসুলপুর ইউনিয়নের সেই চেয়ারম্যান এমদাদুল হক এবার তার ইউনিয়ন মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার মনিরুল ইসলামের সনদ নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন। তিনি কমান্ডারের মুক্তিযোদ্ধা সনদ যাচাই করবেন- এ মর্মে তাকে গত ৫ নভেম্বর নোটিশ করেছেন এবং আগামীকাল ১১ নভেম্বর গ্রাম আদালতে হাজির হতে বলেছেন।

চেয়ারম্যান তার স্বাক্ষরিত নোটিশে উল্লেখ করেন, জেসমিন আক্তার নামে এক নারী কমান্ডার মনিরুলের বিরুদ্ধে ভূমি দখলের অভিযোগ তার গ্রাম আদালতে দায়ের করেন। অভিযোগের ভিত্তিতে মনিরুলকে তিনি গ্রাম আদালতে তিনবার হাজির হওয়ার জন্য নোটিশ করেন। কিন্তু তিনি একবারও হাজির হননি। কমান্ডার গ্রাম আদালত অবমাননা করেছেন। অন্যের জমি দখল করায় জনমনে মনিরুলের মুক্তিযোদ্ধার সনদ নিয়ে সন্দেহ দেখা দিয়েছে। তাই তাকে মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহণের যাবতীয় প্রমাণসহ ১১ নভেম্বর গ্রাম আদালতে হাজির হতে নির্দেশক্রমে অনুরোধ করা হয়েছে।

এ বিষয়ে রসুলপুর ইউনিয়ন মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার মো. মনিরুল ইসলাম বলেন, ওই নারীকে চেয়ারম্যান আমার পেছনে লেলিয়ে দিয়েছেন। মুক্তিযুদ্ধের সনদ যাচাই করার তার কোনো অধিকার নেই। আমরা যারা আওয়ামী লীগের রাজনীতির সঙ্গে জড়িত, মুক্তিযোদ্ধা তারা আজ এই চেয়ারম্যানের হাতে নির্যাতিত।

ঘাটাইল উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার মো. তোফাজ্জল হোসেন বলেন, নোটিশের কাগজ আমি দেখেছি। কোনো চেয়ারম্যানেরই আইনি বৈধতা নেই একজন মুক্তিযোদ্ধার সনদ যাচাই-বাছাই করার। আমরা জেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডারের সঙ্গে আলোচনা করে এর একটা বিহিত করব।

উল্লেখ্য, ৩ ও ৮ নভেম্বর চেয়ারম্যান এমদাদুলের বিভিন্ন কার্যকলাপ নিয়ে ‘ঘাটাইলে ইউপি চেয়ারম্যান এমদাদুলের সব সম্ভবের রসুলপুর‘ ও ‘ঘাটাইলে রসুলপুর ইউপি চেয়ারম্যানের হাত থেকে ছেলের জীবনের নিরাপত্তা চেয়ে বাবার জিডি‘ শিরোনামে ঘাটাইলডটকমে দুটি সংবাদ প্রকাশিত হয়।

(মাসুম মিয়া, ঘাটাইলডটকম)/-