ঘাটাইলে প্রশ্ন ফাঁসে কোচিং সেন্টার মালিক ও বিদ্যালয় ঝাড়ুদারের কারাদণ্ড

টাঙ্গাইলের ঘাটাইলে পরীক্ষা শুরুর ২০ মিনিট আগেই কেন্দ্রের বাইরে ফটোষ্ট্যাটের দোকানে মিলল প্রশ্নপত্র। এ ঘটনায় দুজনকে আটক করে একমাসের কারাদণ্ড দিয়েছেন নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট মো. আল মামুন। শনিবার (৯ ফেব্রুয়ারি) গণিত পরীক্ষার দিনে উপজেলার সাগরদিঘী উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্রে এ ঘটনা ঘটে।

আটককৃত সাজাপ্রাপ্তরা হচ্ছেন- উপজেলার সাগরদিঘী গ্রামের সঞ্জিত সাহার ছেলে কোচিং মাষ্টার শ্যামল বাবু (৪৫) ও সাগরদিঘী উচ্চ বিদ্যালয়ের ঝাড়ুদার আব্দুর রহমান (৫৫)।

পুলিশ জানায়, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে অভিযান চালিয়ে টাঙ্গাইল জেলা থেকে পরীক্ষা পরিদর্শনে আসা নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট মো. আল মামুন কেন্দ্রের পাশে রাকিব লাইব্রেরী থেকে প্রশ্নপত্রসহ হাতে নাতে দুইজনকে আটক করেন। তাদেরকে ভ্রাম্যমান আদালতের মাধ্যমে নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট মো. আল মামুন এক মাসের কারাদন্ড প্রদান করেন।

আটক সাগরদিঘী উচ্চ বিদ্যালয়ের ঝাড়ুদার আব্দুর রহমান বলেন, পরীক্ষা শুরুর ১৫-২০ মিনিট আগে অত্র বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক হুমায়ুন কবীর আমার হাতে প্রশ্নপত্র দিয়ে কেন্দ্রের বাহিরে রাকিব লাইব্রেরীতে নিয়ে যেতে বলেন। আমি তার কথামতো দোকানে দাঁড়িয়ে থাকা কোচিং মাষ্টার শ্যামল বাবুর কাছে প্রশ্নপত্রটি দেই। আমি তার (প্রধান শিক্ষক) অধীনে চাকরি করি। তিনি যা বলবেন আমারতো তাই করতে হয়। এ ঘটনায় আমার কোন দোষ নেই।

(মাসুম মিয়া, ঘাটাইলডটকম)/-