ঘাটাইলে পাকুটিয়া সৎসঙ্গ আশ্রমে অনুকূল চন্দ্রের জন্ম বার্ষিকীর ৬ দিন ব্যাপি সম্মেলন

টাংগাইলের ঘাটাইল উপজেলার সৎসঙ্গ আশ্রম পাকুটিয়াতে ৬ দিন ব্যাপি শ্রী শ্রী ঠাকুর অনুকূল চন্দ্রের শুভ ১৩২তম জন্মবার্ষিকী ও মাঘী পূর্ণিমা উপলক্ষে ২৪২তম ঋত্বিক সম্মেলন। দেশ বিদেশ থেকে যুগ পুরুষোত্তম পরম প্রেমময় ঠাকুর অনুকূল চন্দ্রের শত শত ভক্ত, অনুসারী ও জাতী, ধর্ম, বর্ণ নির্বিশেষে সকল শ্রেণী পেশার মানুষের মিলন মেলায় পরিণত সৎসঙ্গ আশ্রম প্রাঙ্গণ। দেশের হিন্দু সম্পদ্রায়ের তীর্থস্থান পাকুটিয়া সৎসঙ্গ আশ্রম দিবসটি পালন উপলক্ষে ৬ ফেব্রুয়ারি থেকে আজ ১১ ফেব্রুয়ারি মঙ্গলবার পর্যন্ত ৬ দিন ব্যাপি বিভিন্ন কর্মসূচী গ্রহণ করে।

সম্মেলনের শুরুতে ৬ ফেব্রুয়ারী বৃহস্পতিবার ছিল সমবেত বিনতী প্রার্থনান্তে যুগপুরুষোত্তম পরম প্রেমময় শ্রী শ্রী ঠাকুর অনুকূল চন্দ্রের ১৩২তম জন্ম মহোৎসবের শুভ অধিবাস।

৭ ফেব্রুয়ারী শুক্রবার ছিল উষা কীর্তনান্তে ষোল প্রহর ব্যাপি তারকব্রহ্ম নামযজ্ঞের শুভারম্ভ, নাট মন্দিরে সমবেত বিনতি প্রার্থনা ও প্রনাম সহ শ্রী শ্রী ঠাকুরের অমিয় গ্রন্থাদি পাঠ, পরমারাধ্যা শ্রী শ্রী বড়মা ও পরম পূজ্যপাদ, শ্রী শ্রী বড়দার ভোগ নিবেদন ও মহাপ্রসাদ বিতরণ।

৮ ফেব্রুয়ারী শনিবার ছিল সমবেত বিনতি প্রার্থনা ও প্রনাম তৎপর শ্রী শ্রী ঠাকুরের অমিয় গন্থাদি পাঠ, নামজপ, ভোগ নিবেদেন ও মহাপ্রসাদ বিতরণ।

৯ ফেব্রুয়ারী রবিবার ছিল ঊষা কীর্তনান্তে অষ্ট প্রহরব্যাপী লীলা কীর্তনের শুভারম্ভ, সমবেত বিনতি প্রার্থনান্তে পরম প্রেমময় শ্রী শ্রী ঠাকুরের আর্শীর্বাণী পাঠ, অর্ঘ্যাঞ্জলী সহ প্রনাম। বার্ষিকী ও মাঘী পূর্ণিমা পুরুষোত্তম পূর্ণ্যপাদপীঠ বার্ষিক মহাযজ্ঞের শুভ উদ্ভোধন, ভোগ নিবেদন, মহাপ্রসাদ বিতরণ। আয়োজনে ছিলেন বরিশাল বিভাগ। এই দিন বিকালে ছিল বিনতি প্রার্থনা আরতি কীর্তন ও ধর্ম গ্রন্থাদি পাঠ তৎপর: কল্কি অবতার পরমপ্রেমময় শ্রী শ্রী ঠাকুর অনুকূল চন্দ্রের আদি, মধ্য ও অন্তলীলার তিনটি ঘৃত প্রদীপ প্রজ্জলন পূর্বক বিশ্ব শান্তি কামনায় প্রার্থনা, আঞ্চলিক কর্মী সম্মেলন ও মহাপ্রসাদ বিতরণ।

গতকাল ১০ ফেব্রুয়ারী সোমবার ছিল নহবৎ ও ঊষা কীর্তণ, সমবেত প্রার্থনা, নামজপ-বিবিধ ধর্মগ্রন্থাদি পাঠ। নাট মন্দিরে সুদুর ভারত সহ উপ-মহাদেশের চিকিৎসকদের সমন্বয়ে চিকিৎসক সম্মেলন, বিনামূলো দিনব্যাপি চিকিৎসা সেবা প্রদান, বিভিন্ন ধরনের পরীক্ষা নিরিক্ষা সহ ঔষধ বিতরণ করা হয়। পরে ২৪২তম ঋত্বিক অধিবেশন, মাতৃ সম্মেলন, পরম প্রেমময় শ্রী শ্রী ঠাকুর অনুকূল চন্দ্রের দিব্যজীবন ও ভাবাদর্শের অনুসরনই মানবজাতির কল্যাণের পথ শীর্ষক সাধারণ সভা ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। পরে দেশের খ্যাতিমান শিল্পিদের সমন্নয়ে সমবেত সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়।

আজ ১১ ফেব্রুয়ারী মঙ্গলবার সম্মেলনের শেষ দিনে বিশেষ কর্মসূচির মধ্যে ছিল মহবৎ, তৎপর ঊষা কীর্তন, শ্রী শ্রী ঠাকুরে দিব্যজীবন ও অমিয় বানীর উপর লীলা কীর্তন, ভক্তিমুলক গানের অনুষ্ঠান, সৎসঙ্গ শিক্ষাবৃত্তি প্রদান, নগদ অর্থ ও সনদ পত্র বিতরণী অনুষ্ঠান।

অনুষ্ঠানের শেষ দিনে গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের মন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্যদের উপস্থিতিতে উৎসবের সমাপ্তি ঘটবে বলে জানিয়েছেন সৎসঙ্গ বাংলাদেশের সম্পাদক শ্রী ধৃতব্রত আদিত্য।  শ্রী শ্রী অনুকূল চন্দ্রের অমিয় বাণী হৃদয়ে ধারণ ও পৌছে দেয়ার জন্য সৎসঙ্গ আশ্রম পাকুটিয়া শাখার সমন্বয়ক শ্রী সুব্রুত চন্দ্র আদিত্য অনুষ্ঠানকে স্বার্থক ও সাবলীল করেছেন বলে জানিয়েছেন সংশিষ্টরা।

(আতিকুর রহমান, ঘাটাইলডটকম)/-