ঘাটাইলে আদিবাসী নারীকে নির্যাতন, ঘরে তালা দিয়ে পালিয়েছে আসামিরা

টাঙ্গাইলে ঘাটাইল উপজেলার মালিরচালা গ্রামে আদিবাসী নারীকে গাছে বেঁধে নির্যাতনের ঘটনায় এখনও কেউ গ্রেপ্তার হয়নি। ঘরে তালা ঝুলিয়ে মামলার আসামিরা এলাকাছাড়া হয়েছে বলে জানা গেছে।

নির্যাতনের শিকার সন্ধ্যা রানী এখনও বাড়ি ফিরতে পারেননি। মহানন্দ চন্দ্র বর্মণ নামে তার এক আত্মীয়ের বাড়িতে আশ্রয় নিয়েছেন তিনি।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, ঘটনার পর থেকেই অভিযুক্তরা গা-ঢাকা দিয়েছে। তিনটি ঘরের দুটিতেই তালা ঝুলছে। বাড়িতে একটি ঘরে শুধু মামলার প্রধান আসামি মনিরুলের বৃদ্ধা স্ত্রীর দেখা মেলে। তবে পুলিশের দাবি, আসামি ধরতে অভিযান অব্যাহত রয়েছে।

বাংলাদেশ আদিবাসী ছাত্র সংগ্রাম পরিষদের সহসভাপতি চন্দন কোচ ও বাংলাদেশ আদিবাসী কোচ ইউনিয়নের যুগ্ম আহ্বায়ক রতন চন্দ্র কোচের নেতৃত্বে একটি দল ঘটনাস্থল পরিদর্শন এবং নির্যাতনের শিকার সন্ধ্যা রানীর সঙ্গে দেখা করেছেন।

তারা জানান, আসামিদের দ্রুত গ্রেপ্তার ও শাস্তির দাবিতে বাংলাদেশ আদিবাসী কোচ ইউনিয়ন ১৩ জানুয়ারি ঘাটাইল উপজেলা পরিষদের সামনে মানববন্ধন করবে।

মামলার তদন্ত কর্মকর্তা জাকির হোসেন বলেন, আসামিদের ধরতে অভিযান চলছে। নির্যাতন করার পর ওই রাত থেকে আসামিরা ঘরে তালা ঝুলিয়ে পলাতক রয়েছে। তাদের ধরতে তথ্যপ্রযুক্তি ব্যবহার করা হচ্ছে। আশা করছি দ্রুত ধরা পড়বে।

টাঙ্গাইলের ঘাটাইল উপজেলার মালিরচালা গ্রামে রানী নামে আদিবাসী এক নারীকে গাছের সঙ্গে বেঁধে নির্যাতন করে তারই প্রতিবেশী মনিরুল গং। এ নিয়ে গত মঙ্গলবার ঘাটাইল ডট কমে ‘চোর সন্দেহে ঘাটাইলে আদিবাসী নারীকে গাছের সঙ্গে বেঁধে নির্যাতন’ শিরোনামে প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়।

(মাসুম মিয়া, ঘাটাইল ডট কম)/-

Print Friendly, PDF & Email