ঘাটাইলের বর্ষিয়ান রাজনীতিবিদ শামসুর রহমানের অষ্টম মৃত্যুবার্ষিকী আজ

আজ বৃহস্পতিবার (২রা জানুয়ারী) টাঙ্গাইলের ঘাটাইল উপজেলার বর্ষিয়ান রাজনীতিবিদ, সাবেক এমপি, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সাবেক যুগ্ম সাধারন সম্পাদক ও টাঙ্গাইল জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতি শামসুর রহমান খান শাজাহানের অষ্টম মৃত্যুবার্ষিকী। ২০১২ সালের এইদিনে তিনি টাঙ্গাইলে নিজ বাসভবনে মৃত্যুবরণ করেন।

শামসুর রহমান খান শাহজাহান ১৯৩৩ সালে টাঙ্গাইলের ঘাটাইল উপজেলার বাগুন্তা গ্রামের এক সম্ভ্রান্ত মুসলিম পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন। শাহজাহানের চাচাত ভাই লুৎফর রহমান খান আজাদ বিএনপির মনোনয়নে টাঙ্গাইল-৩ (ঘাটাইল) আসনে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন ও প্রতিমন্ত্রীর দায়িত্ব পালন করেন। তার ভাতিজা আমানুর রহমান খান রানা একই আসন থেকে নবম ও দশম জাতীয় সংসদের স্বতন্ত্র ও আওয়ামী লীগের সদস্য ছিলেন। ২০১৮ সালের একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে শাহজাহানের ভাই, রানার বাবা আতাউর রহমান খান এই আসন থেকে আওয়ামী লীগের মনোনয়নে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন।

২০১২ সালের ২ জানুয়ারি সোমবার ভোরে টাঙ্গাইল শহরের পূর্ব আদালতপাড়ায় নিজ বাসভবনে মুক্তিযোদ্ধা ও কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের সাবেক এই যুগ্ম সম্পাদকের মৃত্যু হয়। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৮১ বছর। দীর্ঘদিন থেকে তিনি বার্ধক্যজনিত রোগে ভুগছিলেন। মৃত্যুকালে স্ত্রী, এক ছেলে ও পাঁচ মেয়েসহ বহু আত্মীয় স্বজন ও গুণগ্রাহী রেখে যান।

ওই দিন বাদ জোহর তার গ্রামের বাড়ি ঘাটাইলে প্রথম নামাজে জানাজা অনুষ্ঠিত হয়। পরে টাঙ্গাইল কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার প্রাঙ্গণে লাশ রাখা হলে আওয়ামী লীগ ও অঙ্গসংগঠনসহ বিভিন্ন রাজনৈতিক ও সংগঠনের পক্ষ থেকে শেষ শ্রদ্ধা জানানো হয়। এরপর টাঙ্গাইল বিন্দুবাসিনী সরকারি বালক উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে তাকে গার্ড অব অনার দেওয়া হয়। পরে পূর্ণ রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় টাঙ্গাইল কেন্দ্রীয় গোরস্থানে তাকে দাফন করা হয়।

শামসুর রহমান খান শাহজাহান মুজিবনগর সরকারের গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব পালন করেন। মুজিবনগর সরকারের পক্ষে দুই নম্বর আঞ্চলিক প্রশাসন পরিচালনা করেন তিনি। ময়মনসিংহ ও টাঙ্গাইল জেলা এ আঞ্চলিক প্রশাসনের অধীনে ছিল এবং এই অঞ্চলের সকল নির্বাচিত জাতীয় ও প্রাদেশিক পরিষদ সদস্য উক্ত দুই নম্বর আঞ্চলিক প্রশাসনিক পরিষদের সদস্য ছিলেন।

শামসুর রহমান খান শাহজাহান মহান মুক্তিযুদ্ধের সময়ে ১১ নং সেক্টরের নর্থ ইস্ট জোনে এবং আঞ্চলিক প্রশাসন কাউন্সিলের সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। মুজিবনগর সরকারের অধীনে ভারতে সামরিক প্রশিক্ষণ কেন্দ্রে মুক্তিযুদ্ধের রাজনৈতিক প্রশিক্ষণ প্রদানের ক্ষেত্রেও তিনি গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব পালন করেন।

শামসুর রহমান খান শাহজাহান ১৯৫৪ থেকে ৫৬ সালে পর্যন্ত ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সভাপতি, ১৯৬৫ থেকে ৬৬ সাল পর্যন্ত টাঙ্গাইল মহকুমা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করেছেন। তিনি দীর্ঘদিন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির যুগ্ম সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করেন।

তার বর্ণাঢ্য রাজনৈতিক জীবনে ১৯৭০, ১৯৭৩, ১৯৭৯ এবং ১৯৮৬ সালে টাঙ্গাইল-৩ (ঘাটাইল) থেকে জাতীয় সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। মৃত্যুর আগ পর্যন্ত তিনি টাঙ্গাইল জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতির দায়িত্ব পালন করেন।

জীবদ্দশায় রাজনীতির পাশাপাশি তিনি বেশ কয়েকটি বই রচনা করেন। তার মধ্যে ‘মুক্তিযুদ্ধের ডায়েরি, চিঠি ও স্মৃতিচারণ’ এবং ‘কেউ দাবায়ে রাখতে পারবানা’ অন্যতম। তার রচিত ‘কেউ দাবায়ে রাখতে পারবা না’ নামে বঙ্গবন্ধুর জীবনভিত্তিক্ত নাটক রচনা করেছেন যা বহুবার মঞ্চস্থ হয়েছে।

তার অষ্টম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে ঘাটাইল পৌরসভা, হামিদপুর ও টাঙ্গাইলে আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিলের আয়োজন করেছে আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীরা। আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন টাঙ্গাইল-৩ (ঘাটাইল) আসনের সংসদ সদস্য আতাউর রহমান খান, সাবেক এমপি আমানুর রহমান খান সহ দলীয় নেতাকর্মীরা।

(নিজস্ব প্রতিবেদক, ঘাটাইলডটকম)/-