কোটা সংস্কার নাকি বাতিল, অপেক্ষায় মন্ত্রণালয়

সরকারি চাকুরির ক্ষেত্রে কোটা পদ্ধতি সংস্কার করা হবে নাকি বাতিল হবে সে বিষয়ে এখনও কিছু জানে না জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়। প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনা আসার পর এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে বলে জানিয়েছেন মন্ত্রণালয়ের জ্যেষ্ঠ সচিব ড. মোজাম্মেল হক খান।

১২ এপ্রিল, বৃহস্পতিবার সচিবালয়ের নিজ কার্যালয়ে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে সচিব একথা বলেন। তিনি জানান, প্রধানমন্ত্রীর পেলেই কোটা সংক্রান্ত গেজেট জারি করা হবে। খবর প্রিয়ডটকমের

ড. মোজাম্মেল হক খান বলেন, ‘তাড়াহুড়ার কিছু নেই। এখনই নতুন কোনো নিয়োগ দেওয়া হচ্ছে না।’

কোটা ব্যবস্থার সংস্কার হবে নাকি বাতিল করা হবে এমন প্রশ্নের জবাবে সচিব বলেন, ‘বিষয়টি পরে জানা যাবে। কারণ প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনা আসার পর সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।’

অন্য এক প্রশ্নের জবাবে সচিব বলেন, ‘মানুষ বিভিন্ন মতামত এবং ধারণা নিয়ে আসছে যা বিভ্রান্তি সৃষ্টি করছে। এটি মোটেও সহজ কাজ নয়, বরং বেশ জটিল। তবে প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনা পাওয়ার পর সবকিছুই পরিষ্কার হবে।’

এ সময় উপস্থিত মন্ত্রিপরিষদ সচিব মো. শফিউল আলম বলেন, ‘কোটা পদ্ধতি পরীক্ষা করতে একটি কমিটি গঠন করা হবে। কমিটির সুপারিশ অনুযায়ী পরবর্তী পদক্ষেপ গ্রহণ করা হবে।’

৮ এপ্রিল সরকারি চাকরিতে কোটা সংস্কারের দাবিতে চাকরিপ্রার্থী ও শিক্ষার্থীরা শাহবাগে সড়ক অবরোধ করেন। তাদের সরাতে গিয়ে পুলিশ টিয়ারশেল নিক্ষেপ ও লাঠিপেটা করে। এরপর আন্দোলনকারীদের সঙ্গে দফায় দফায় সংঘর্ষ হয়। পুলিশের সঙ্গে যোগ দেয় ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা। রাতভর ধাওয়া-পাল্টাধাওয়া হয়।

এর জেরে কোটা সংস্কার আন্দোলন দেশব্যাপী কলেজ-বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে ছড়িয়ে পড়ে। পরে পরিস্থিতি বিবেচনায় নিয়ে গত ১১ এপ্রিল বুধবার জাতীয় সংসদে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা কোটা ব্যবস্থা বাতিলের ঘোষণা দেন। প্রধানমন্ত্রীর ওই ঘোষণার পরিপেক্ষিতে চূড়ান্ত নির্দেশনার অপেক্ষার কথা জানিয়েছে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়।

(ঘাটাইল.কম)/-