কালিহাতীতে স্ত্রীর চোখ উপড়ে ফেলায় ঘাতক স্বামীর শাস্তির দাবিতে মানববন্ধন

টাঙ্গাইলের কালিহাতীতে স্ত্রী আঁখি আক্তারের চোখ উপড়ে ফেলার ঘটনায় ঘাতক স্বামী ফারুক হোসাইনের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবীতে মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়েছে।

বুধবার (৮ জুলাই) উপজেলার নারান্দিয়া বাসস্ট্যান্ডে এ মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়।

মানববন্ধনে ঘাতক স্বামী ফারুক হোসাইনের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবীতে নারান্দিয়া ইউনিয়নের সহস্রাধিক মানুষ অংশগ্রহণ করেন।

মানববন্ধনে বক্তব্য রাখেন, নারান্দিয়া ইউপি সদস্য আনোয়ার হোসেন, তাসলিমা বেগম, সাবেক ব্যাংক কর্মকর্তা আব্দুল মান্নান তালুকদার, ফারুক চৌধুরী, জাহিদ হোসেন, মিথিলা চৌধুরী প্রমুখ।

এসময় বক্তারা বলেন, আর যেন কোন মেয়ে স্বামী কর্তৃক নির্যাতিত না হয়। এজন্য ঘাতক স্বামী ফারুক হোসাইনের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি ও ফাঁসি দাবী করেন।

উল্লেখ্য, গত ৫ জুলাই উপজেলার নারান্দিয়া ইউনিয়নের মাইস্তা চৌধুরীপাড়া গ্রামের মজিবর রহমানের মেয়ে আঁখি আক্তার মাদক ব্যবসায় রাজি না হওয়ায় রাতের আঁধারে সিঁধ কেটে ঘরে প্রবেশ করে চোখ উপড়ে ফেলে স্বামী ফারুক হোসাইন (২৫)। পরে আহত আঁখি আক্তারকে উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকায় প্রেরণ করা হয়।

আঁখি আক্তারের কাকা মো. খোকন মিয়া জানান, গত সাত বছর আগে মির্জাপুর উপজেলার বুসুন্দী গ্রামের আব্দুল রহমানের ছেলে ফারুক হোসাইনের সাথে তার ভাতিজির বিয়ে হয়। বিয়ের কিছুদিন তাদের ভাল চলছিলো। তাদের সংসারে দুই বছরের একটি কন্যা সন্তানও রয়েছে। ফারুকের বাবা বিদেশ থাকায় ফারুক ও তার মা মাদক ব্যবসা করতে থাকে। পরবর্তীতে ফারুক তার স্ত্রী আখি আক্তারকে মাদক বিক্রি করতে বললে তাদের সাথে কথা কাটাকাটি হয়। এক পর্যায়ে আঁখি তার বাবার বাড়ি চলে আসে।

পরবর্তীতে শালিসী বৈঠকের মাধ্যমে মীমাংশা করে আঁখি আক্তারকে ফারুকের বাড়ি পাঠানো হয়। কিন্তু তারপরও ফারুক তার স্ত্রীকে মাদক বিক্রি করতে বলে। কিন্তু আঁখি আক্তার রাজি না হওয়া একাধিক বার সাথে সাথে ঝগড়া হয় ও একাধিকবার শালিসী বৈঠক হয়।

তিনি আরও জানান, গত এক বছর আগে ফারুকের কাছ থেকে আঁখি চলে এসে গাজীপুরে এক গার্মেন্টসে চাকুরী করতে থাকে। সেখানেও তাকে ফোন করে চোখ উপড়ে ফেলাসহ প্রাণনাশের হুমকি দেয় স্বামী ফারুক। গত রমজান মাসে ফারুক গাজীপুরে আঁখির বাসায় গিয়ে ছুরি দিয়ে এলোপাথারী কুপিয়ে আঁখি আক্তারকে আহত করে। ওই ঘটনায় গাজীপুর সদর থানায় এক সাধারণ ডায়েরী করা হয়েছে।

তারপরেও একাধিকবার মোবাইল ফোনে আঁখি আক্তারসহ তার পরিবারের চার সদস্যকে প্রাণে মেরে ফেলার হুমকি দেয়। রোববার ভোর রাতে সিঁধ কেটে স্ত্রী আঁখির ঘরে প্রবেশ করে মাটিতে নিজের নাম লিখে রেখে কাচি (সিজার) দিয়ে আঁখির চোখে ঘা দিয়ে পালিয়ে যায় স্বামী ফারুক হোসাইন। আঁখির আত্মচিৎকারে আশে পাশের লোকজন এগিয়ে আসলে ফারুক হোসেন পালিয়ে যায়।

(কালিহাতী সংবাদদাতা, ঘাটাইল ডট কম)/-