কালিহাতীতে মামলা তুলে নিতে হুমকি, বাদীর সংবাদ সম্মেলন

টাঙ্গাইলের কালিহাতী উপজেলার গান্ধিনা জান্নাতুল ফেরদাউস মাদ্রাসা’র আবাসিক ভবনের চাঁদা না দিয়ে মামলা করায় ওই মাদ্রাসা বন্ধের এবং মামলা তুলে নেয়ার জন্য বাদি পক্ষকে আসামীরা বিভিন্ন হুমকী দিয়ে আসছে বলে অভিযোগ উঠেছে। রোববার (২৮ জুলাই) উপজেলার এলেঙ্গা বাসস্ট্যান্ডে এক সংবাদ সম্মেলনে মামলার বাদি আন্তাজ আলী এসব কথা বলেন।

লিখিত বক্তব্যে আন্তাজ আলী জানান, কালিহাতী উপজেলার গান্ধিনা গ্রামে ২৩ শতাংশ জমি ক্রয় করে গান্ধিনা ফেরদৌস আলম ফিরোজ উচ্চ বিদ্যালয় সংলগ্ন ২০০৪ সালে একটি ছাত্রাবাস নির্মাণ করে পরিচালনা করে আসতেছি। স্থানীয় কতিপয় সন্ত্রাসী, চাঁদাবাজ মৃত জলিল হোসেনের ছেলে মফিজ উদ্দিন (৫০), আবুল হোসেনের ছেলে কামাল হোসেন (৪০), মৃত আব্দুল খালেকের ছেলে ফজলু (৫০), বছির উদ্দিন (৪৬), লোকমানের ছেলে রিপন (২৮), রহিমের ছেলে মুন্না (৩০), কায়েম উদ্দিনের ছেলে সুরুজ (৩০) আমার কাছ থেকে ৩ লাখ টাকা চাঁদা দাবি করে।

তাদের দাবিকৃত চাঁদা না দেয়ায় আমার সহযোগি ফারুককে লোহার রড দিয়ে এলোপাথারি ভাবে শরীরের বিভিন্ন স্থানে নিলাফুলা জখম করে এবং আটক করে রাখে। অতঃপর আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী ঘটনাস্থলে গিয়ে মারাত্মক আহত অবস্থায় ফারুককে উদ্ধার করে হাসপাতালে নেয়। এ বিষয়ে আমি টাঙ্গাইলের সিনিঃ জুডিঃ ম্যাজিঃ আমলী আদালতে (কালিহাতী) মামলা দায়ের করি।

ওই মামলা করার পরপরই ওই সন্ত্রাসী বাহিনীরা আরও ক্ষিপ্ত হয়ে এবং মামলা তুলে নেয়ার জন্য আমাকে নানা ভাবে হুমকি প্রদান করে আসতেছে। এতে করে আমি পরিবার-পরিজন নিয়ে চরম নিরাপত্তাহীনাতায় ভূগিতেছি।

সংবাদ সম্মেলনে এ সময় উপস্থিত ছিলেন, গান্ধিনা গ্রামের ইমান আলী, এস এম সানোয়ার হোসেন ও সাবেক ইউপি সদস্য ফরহাদ আলী প্রমুখ।

(কালিহাতী সংবাদদাতা, ঘাটাইলডটকম)/-