কালিহাতীতে বসতবাড়ীতে হামলা ভাংচুর লুটপাট, আহত ৫

টাঙ্গাইলের কালিহাতীতে জমি সংক্রান্ত বিরোধে নিরীহ তারা সওদাগরের বসতবাড়ী দখল করতে হামলা করে ভাংচুর করেছে দুর্বৃত্তরা। বসতবাড়ী দখল করতে তারা সওদাগরের পরিবারের লোকজনকে মারপিট করে স্বর্লাংকার ও অর্থ লুটপাট করার অভিযোগ রয়েছে। এসময় হামলায় ৫ জন গুরুত্বর আহত হয়। আহতের স্থানীয়রা উদ্ধার করে উপজেলা হাসপাতালে ভর্তি করেন। শনিবার (৯ নভেম্বর)  এই ঘটনা ঘটে।

আহতরা হলেন, তারা সওদাগর (৭৬) ও তার স্ত্রী বুলবুলি (৭০), ছেলে শাহ আলম (৪২), মেয়ে জায়েদা বানু (৪০) ও বোন জাহানারা বেগম (৫৭)। শনিবার সন্ধ্যায় কালিহাতী পৌর এলাকার উত্তর বেতডোবা গ্রামে এ ঘটনা ঘটে ।

এ বিষয়ে কালিহাতী থানায় বসতবাড়ীর মালিক তারা সওদাগর বাদী হয়ে ঘাটাইল উপজেলার আলু পাকুটিয়া গ্রামের মৃত কোরবান আলীর ছেলে গোলাম মোস্তফা (৪৫) ও মজনু মিয়া (৪০), মৃত মোজাফ্ফর আলীর ছেলে জাহান আলী, চুন্ন মিয়া (৪০) কে আসামী করে রাতেই মামলা দায়ের করেন।

তারা সওদাগরের ছেলে বাচ্চু সওদাগর বলেন, শনিবার (৯ নভেম্বর) সন্ধ্যায় গোলাম মোস্তফা ও মজনুর নেতৃত্বে একদল সন্ত্রাসী বাহিনী রামদা, ফালা, লোহার রড, বাশের লাঠিসহ বিভিন্ন দেশীয় অস্ত্র নিয়ে আমাদের বসত বাড়ি দখল করতে অতর্কিত হামলা চালিয়ে ভাংচুর করে। এতে ৩ লক্ষ টাকার ক্ষতি হয়েছে। এসময় বাঁধা দিতে গেলে আমার বাবা তারা সওদাগরসহ আমাদের পরিবারের লোকজনকে কুপিয়ে এলোপাথারীভাবে কিল, ঘুষি, লাথি মেরে তাদেরকে গুরুত্বর আহত করে সন্ত্রাসীরা।

তারা সওদাগরের বড় ছেলে শাহআলম বলেন, সন্ত্রাসী গোলাম মোস্তফা ও মজনু দলবল নিয়ে অতর্কিতভাবে হামলা চালিয়ে ভাংচুর করে ঘরের ভিতর ঢুকে একটি মোটরসাইকেল ভাংচুর করে নগদ ১৫ হাজার টাকা, সাউন্ড বক্সের মেশিন লোট করে নিয়ে যায়। পরে আমাদের ডাক চিৎকারে আশেপাশের লোকজন এগিয়ে আসলে গোলাম মোস্তফা তার দলবল নিয়ে দ্রুত পালিয়ে যায়।

এবিষয়ে তারা সওদাগর বলেন,কালিহাতী পৌর এলাকার বেতডোবা গ্রামে কালেক্টরের নিকট থেকে দলিল মূলে দীর্ঘ ৩৮ বছর যাবৎ বসতবাড়ী নির্মাণ করে বসবাস করে আসছি। ওই বসতবাড়ীর জমি গোলাম মোস্তফা ও মজনু দাবী করে মামলা করে আমাদের হয়রানী করে। মামলায় আদালত আমাদের পক্ষে রায় দেয়। রায়ের বিরুদ্ধে আপিল করলেও আদালত আপিলেও আমাদের পক্ষে রায় দেয়। মামলায় রায় দেয়ায় গোলাম মোস্তফা গংরা ক্ষিপ্ত হয়ে সন্ত্রাসী বাহিনী নিয়ে আমাদের বসতবাড়ীতে হামলা ও লুটপাট করে।

হামলার ঘটনায় মামলা করায় গোলাম মোস্তফাসহ তার সন্ত্রাসী বাহিনীরা বিভিন্ন প্রকার প্রাণনাশের হুমকি ধামকী দিয়ে আসছে। সন্ত্রাসীদের ভয়ে পরিবার-পরিজন নিয়ে আতংকে রয়েছে। গোলাম মোস্তফা ও মজনুর সন্ত্রাসী বাহিনীরা আবারও হামলা করে জোরপূর্বক জমি দখলের চেষ্টা করতে পারে।

এবিষয়ে অভিযুক্ত গোলাম মোস্তফার নিকট মুঠোফোনে জানতে চাইলে তিনি জানান, জায়গাটি সড়ক ও জনপথ বিভাগের। এ জায়গা নিয়ে আদালতে মামলা রয়েছে। ভাংচুরের বিষয়ে জানতে চাইলে গোলাম মোস্তফা এড়িয়ে যান।

ওই ঘটনার তদন্তকারী কর্মকর্তা কালিহাতী থানার এসআই আশরাফুজ্জামান জানান, এ ঘটনায় মামলা হয়েছে। আসামীদের গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।

(কালিহাতী সংবাদদাতা, ঘাটাইলডটকম)/-