সালমান আত্মহত্যা করেননি, তাকে হত্যা করা হয়েছে : রুবি (ভিডিও)

‘সালমান শাহ আত্মহত্যা করে নাই, সালমান শাহ খুন হইছে। আমার হাজব্যান্ড করাইছে এটা আমার ভাইরে দিয়ে, এটা সামিরার (সালমানের স্ত্রী) ফ্যামিলি করাইছে। আর সব ছিল চাইনিজ মানুষ।’—ইউটিউব ভিডিওতে রুবি নামের এক নারীকে কথাগুলো বলতে শোনা যায়। ভিডিওটি আপ করা হয়েছে রোববার।

তিনিই একমাত্র জীবিত ব্যক্তি যার কাছে প্রমাণ আছে— সালমান আত্মহত্যা করেননি, তাকে হত্যা করা হয়েছে। এমন দাবিও করেন রুবি।

রুবির পুরো নাম রাবেয়া সুলতানা রুবি। তিনি দীর্ঘদিন যাবত আমেরিকার পেনসিলভেনিয়ার ফিলাডেলফিয়াতে চাইনিজ স্বামী ও দুই সন্তানসহ বসবাস করছেন।

জানা যায়, অমর নায়ক সালমান শাহ্‌ ওই নারীকে আন্টি ডাকতেন। রুবির বিউটি পার্লার ছিল। সালমান ও সামিরার সাথে তার বেশ ভালো সম্পর্ক ছিল।

সালমান মারা যাওয়া পর অনেকের মতো রুবিকেও পুলিশ সন্দেহ করে। কিন্তু ঘটনার সঙ্গে তার সংশ্লিষ্টতার কোনো প্রমাণ পাওয়া যায়নি। তবে সালমান ভক্তরা বরাবরই বলে আসছিলেন— সালমানের মৃত্যুর ব্যাপারে রুবি কিছু না কিছু জানেন।

সালমান মারা যাওয়ার পর থেকে রুবি বিদেশে আছেন। এর আগে অনেকবার দাবি করেন, সালমানের মৃত্যুর ব্যাপারে কিছু জানেন না তিনি। কিন্তু রোববারের এ ভিডিওতে ভয়ের সাথে বলছেন, সালমানকে খুন করা হয়েছিল। সামিরার ফ্যামিলি আর রুবির স্বামী এই খুনের সাথে জড়িত। রুবির ছোট ভাই রুমিকে নিয়ে খুন করানো হয়। তার ধারণা পরে রুমিকেও মেরে ফেলা হয়েছে।

রুবি জানান, জীবন হারানোর আশঙ্কায় আছেন তিনি। তিনিই নাকি একমাত্র জীবিত মানুষ যার কাছে প্রমাণ আছে সালমানকে খুন করা হয়েছে। তাই তাকেও মেরে ফেলা হতে পারে। কেন খুন করা হতে পারে রুবিকে? তার ভাষ্যে, ‘কারণ আবার (সালমানের মৃত্যুরহস্য) কেস ওপেন হইছে।’

তিনি দাবি করেন, সালমানের অন্য হত্যাকারীদের মধ্যে কয়েকজন চীনা নাগরিক ছিলেন। এর মাধ্যমে তিনি সালমানের শাশুড়ি লুসি ও নিজের স্বামীর দিকে ইঙ্গিত দেন।

বিষয়টি আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীকে জানানোর অনুরোধ করেন রুবি। সালমান শাহর মা নীলা চৌধুরীরও সাহায্য চেয়েছেন তিনি।

ভাই রুমির হত্যার সঙ্গে খালু, খালাতো ভাই ও স্বামী চীনা নাগরিক চ্যান লিং চ্যান ওরফে জন চ্যান (ধানমন্ডির সাংহাই রেস্টুরেন্টের মালিক) জড়িত আছেন বলে সন্দেহ রুবির। এ হত্যারও বিচার চান তিনি।

১৯৯৬ সালের ৬ সেপ্টেম্বর রহস্যজনকভাবে মৃত্যুবরণ করেন এ নায়ক। সালমানের মৃত্যু হত্যা না আত্মহত্যা এ নিয়ে দুই দশক ধরে বিতর্ক চলছে।

 

 

https://www.youtube.com/watch?v=ZAsbVhTcWH0