সরকারী খরচে অস্বচ্ছল বিচারপ্রার্থীদের ৬৪,৫৪৬টি মামলা নিষ্পত্তি

২০১২ সাল থেকে ২০১৬ সালের মধ্যে সরকারী খরচে অস্বচ্ছল বিচারপ্রার্থীদের ৬৪ হাজার ৫শ’ ৪৬টি মামলা নিষ্পত্তি হয়েছে।
টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা (এসডিজি) বাস্তবায়নে চলতি বছর থেকে এ সেবার মাধ্যমে মামলা নিষ্পত্তির একটি লক্ষ্যমাত্রা স্থির করা হয়েছে। এই লক্ষ্য অনুযায়ী ২০২০ সালের মধ্যে প্রতি বছর ৩৭ হাজার করে মামলা নিষ্পত্তির করা হবে।
এ সেবা কার্যক্রমকে আরো জোড়দার করতে গত ২৮ এপ্রিল দেশব্যাপী ৫ম বারের মত জাতীয় আইনগত সহায়তা দিবস পালন করা হয়। সরকারের এই আইনি সেবা প্রদানের বিষয়ে ব্যাপকভাবে জনসচেতনতা গড়ে তোলার লক্ষ্যে ২০১৩ সালে মন্ত্রীসভার বৈঠকে ২৮ এপ্রিলকে ‘জাতীয় আইনগত সহায়তা দিবস’ ঘোষণা করা হয় এবং ওই বছর থেকেই ২৮ এপ্রিল জাতীয়ভাবে আইনগত সহায়তা দিবস পালন করা হচ্ছে। এবার এ দিবসের প্রতিপাদ্য বিষয় ছিল ‘বিরোধ হলে শুধু মামলা নয়-লিগ্যাল এইড অফিসে আপোষও হয়’।
জাতীয় আইনগত সহায়তা প্রদান সংস্থা সূত্র জানায়, ২০০৯ থেকে ২০১৬ সালের মার্চ পর্যন্ত মোট ২ লাখ ৩১ হাজার ৬২৬ জনকে সরকারিভাবে আইনি সেবা প্রদান করা হয়েছে। ২০১২-২০১৬ পর্যন্ত ৬৪ হাজার ৫৪৬টি মামলা নিষ্পত্তি করা হয়েছে। ১ লাখ ৬৬ হাজার ৩৩৯ জনকে মামলায় আর্থিক সহায়তা, কারাগারে আটককৃত ৪০ হাজার ৭১৫ জনকে আইনগত সহায়তা প্রদান করা হয়েছে।
এ আইনি সেবা সফল বাস্তবায়নে সরকার অসহায় ও দরিদ্র জনগোষ্ঠীকে অবহিতকরণসহ জনসচেতনতামূলক কর্মসূচি অব্যাহত রয়েছে। এ আইনি সহায়তা কার্যক্রমকে গতিশীল ও সেবা-বান্ধব করার লক্ষ্যে জাতীয় আইনগত সহায়তা প্রদান সংস্থার আওতায় প্রত্যেক জেলায় জেলা লিগ্যাল এইড অফিস স্থাপনসহ বাংলাদেশ সুপ্রিমকোর্ট, চৌকি আদালত এবং শ্রম আদালতে লিগ্যাল এইডের কার্যক্রম চালু করা হয়। জেলা লিগ্যাল এইড অফিসগুলোকে এখন শুধু আইনি সহায়তা প্রদানের কেন্দ্র হিসেবে সীমাবদ্ধ রাখা হয়নি। মামলা জট কমানোর লক্ষ্যে এ অফিসগুলোকে ‘এডিআর কর্ণার’ বা বিকল্প বিরোধ নিষ্পত্তির কেন্দ্রস্থল’ হিসেবে প্রতিষ্ঠা করা হয়েছে। সরকারি আইনি সেবা প্রদান আরও বিস্তৃত ও সহজ করার লক্ষ্যে ইতোমধ্যে টোল ফ্রি জাতীয় হেল্পলাইন নং ১৬৪৩০ চালু করা হয়েছে। এর মাধ্যমে দেশের যে কোন প্রান্ত থেকে যে কেউ বিনামূল্যে আইনি পরামর্শ ও সহায়তা নিতে পারছেন।
১৯৯৬ সালে নির্বাচিত হওয়ার পর আওয়ামীলীগ নেতৃত্বাধীন সরকার আর্থিকভাবে অস্বচ্ছল, সহায় সম্ভলহীন বিচারপ্রার্থী জনগণকে সরকারি খরচে আইনি সহায়তা প্রদানের লক্ষ্যে “আইনগত সহায়তা প্রদান আইন-২০০০” প্রণয়ন করে। তারপরের সরকারগুলো আইনটি কার্যকরে উল্লেখযোগ্য কোন পদক্ষেপ নেয়নি। ২০০৮ সালের ২৯ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত নির্বাচনে বিজয়ী হয়ে সরকার গঠনের পর আইনটি কার্যকরে বিভিন্ন পদক্ষেপ গ্রহণ করে। ২০০০ সালে প্রণীত আইনটি অনুযায়ি “জাতীয় আইনগত সহায়তা প্রদান সংস্থা” গঠন করা হয়। রাজধানীর ১৪৫, নিউ বেইলী রোডে এ সংস্থার প্রধান কার্যালয় স্থাপন করা হয়।

 

(বাসস/ ঘাটাইল.কম)/-

154total visits,3visits today

Leave a Reply