মধুপুরে আ’লীগের মনোনয়ন প্রত্যাশীর গাড়ী বহরে হামলা-ভাংচুর, আহত ৫

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে টাঙ্গাইল-১ (মধুপুর-ধনবাড়ী) আসন থেকে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের মনোনয়ন প্রত্যাশী কেন্দ্রীয় কৃষক লীগের তথ্য ও গবেষণা সম্পাদক শিল্পপতি আলহাজ্ব মিজানুর রহমানের গাড়ী বহরে হামলা ও মোটর সাইকেল ভাংচুরের অভিযোগ উঠেছে।

এ ঘটনায় কমপক্ষে ৫ কর্মি আহত হয়েছেন বলেও দাবি করেছেন মিজানুর রহমানের কর্মিরা। তবে তাদের নাম প্রকাশ করা হয়নি।

জাতীয় সংসদের ১৩০ নম্বর নির্বাচনী এলাকা মধুপুর ও ধনবাড়ী ২০০১ সাল থেকে দখলে রেখেছেন আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য সাবেক খাদ্যমন্ত্রী ড. আব্দুর রাজ্জাক।

শুক্রবার (২৬ জানুয়ারি) বিকেল সাড়ে চারটার দিকে ঘটনা ঘটে জামালপুর রোডস্থ মধুপুর উপজেলা আওয়ামী লীগ কার্যালয়ের কাছেই। এ ঘটনায় স্থানীয় আওয়ামী লীগকে দায়ি করেছেন মিজানুর রহমান এবং পরবর্তীতে অভিযোগ প্রত্যাহারও করেন তিনি।

প্রত্যক্ষদর্শী একাধিক ব্যক্তি জানান, কেন্দ্রীয় কৃষক লীগ নেতা রাজধানীর প্রাইম এসেটস গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মিজানুর রহমান শুক্রবার নিজ এলাকা ধনবাড়ীর বাঐজানে একটি লাইব্রেরি উদ্বোধন ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে যোগ দিতে মধুপুর হয়ে ধনবাড়ী যাচ্ছিলেন। তাকে বরণ করতে দুই শতাধিক মোটর সাইকেলের একটি বহর মধুপুর শহরে প্রবেশ করে। তিনি মধুপুরে পৌছানোর পর মোটরবাইকের বহরটি তাকে সঙ্গে নিয়ে ধনবাড়ীর দিকে যাচ্ছিল। বহরটি ঘটনাস্থল পাড় হওয়ার সময় নানা শ্লোগান দিতে দিতে আওয়ামী লীগ অফিসের কাছে আসলে স্থানীয় আওয়ামী লীগের কর্মি সমর্থকরা তাদের উপর হামলা ও মোটর সাইকেল ভাংচুর করে। তাদের হাতে লাঞ্ছিত হয়ে আহত হয়েছে অন্তত ৫জন কর্মী।

তবে হামলার আগেই মিজানুর রহমানকে বহন করা গাড়িটি ঘটনাস্থল পাড় হয়ে ধনবাড়ির দিকে চলে যাওয়ায় তার কোন ক্ষয়ক্ষতি হয়নি বলে জানা গেছে।

পুলিশ ঘটনাস্থলে এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনার দাবি করলেও মিজানুর রহমানের সমর্থকদের দাবি, পুলিশই প্রথম বহরটি আটকে দেয়। পুলিশ কালক্ষেপন করার সময়ই অর্তকিত হামলা চালায় আওয়ামী লীগের নেতা কর্মীরা। এসময় বহরের কর্মী সমর্থকরা ছত্রভঙ্গ হয়ে যায়।

এদিকে মধুপুর উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক ইসতিয়াক আহমেদ সজীব হামলার দায় পুরো স্বীকার না করে সাংবাদিকদের কাছে মন্তব্য করেন, ড. রাজ্জাক এ আসনে বিকল্পহীন আ’লীগের প্রার্থী। দল না করে মাঠ পর্যায়ের কর্মিদের সাথে যোগসূত্রহীন বিত্তশালী কেউ এসে হঠাৎ দলের প্রার্থী হতে অর্থ খরচ করে শোডাউন করবে, এতে বাধা আসতেই পারে।

মধুপুর উপজেলা আ’লীগের সভাপতি খন্দকার শফিউদ্দিন মনি জানান, এ আসনে আ’লীগের মিজানুর রহমান নামের কোন প্রার্থীর সাথে আমার পরিচয় নেই। শুনেছি বিকেলে তার ভাড়া করা কর্মিদের একটি মোটর সাইকেলের শোডাউনে হামলা হয়েছে। দলের নেতাকর্মিদের হামলায় এ ঘটনা ঘটেছে এমন অভিযোগ অস্বীকার করে একে স্থানীয় সাধারণদের হামলা বলে অভিহিত করেছেন তিনি।

মধুপুর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি তদন্ত) নজরুল ইসলাম জানিয়েছেন, খবর শুনে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। সেখানে দুই তিনটি মোটর সাইকেল ভাংচুর হওয়ার কথা শুনেছি। কিন্তু ভাড়া করা সে মোটর সাইকেলগুলো কে বা কারা নিয়েছে জানা নেই। এ বিষয়ে কোন অভিযোগ বা মামলা হয়নি বলেও তিনি জানান।

অন্যদিকে ধনবাড়ী উপজেলার বাঐজান বিবিজি উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে সন্ধ্যায় অনুষ্ঠিত মনসুর আলী পাঠাগার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তৃতা করতে গিয়ে মিজানুর রহমান বলেন, হামলা ও ভাংচুর করে আমাদের থামানো যাবে না। এখন সময় এসেছে পরিবর্তনের। সাধারণ মানুষের ভাগ্য উন্নয়নে প্রয়োজনে প্রার্থী পরিবর্তন হবে।

(মধুপুর প্রতিনিধি, ঘাটাইল ডট কম)/-