টাঙ্গাইল বিসিকে অবাধে চলছে শিশুশ্রম

‘শিশু শ্রমকে না বলুন’ সরকারের এ নীতির তোয়াক্কা না করে টাঙ্গাইল বিসিক শিল্প নগরীতে অবাধে চলছে শিশুশ্রম। বিসিক শিল্পনগরীর বিস্কুট ও পাউরুটি তৈরির ফ্যাক্টরির ইলেক্ট্রনিক ওভেন পরিস্কারের কাজ করানো হচ্ছে ১০বছরের শিশুকে দিয়ে। এ ছাড়া টাঙ্গাইলের বিভিন্ন ওয়ার্কসপে প্রতিনিয়ত বাংলাদেশ শিশু আইন ২০১৩ লংঘন করে শিশুদের দিয়ে কাজ করানো হচ্ছে।

সরেজমিনে বিসিক শিল্পনগরীর এফএ ফুড পোডাক্ট, নাশনাল ফুড ইন্ডাস্ট্রি, প্রিয়া বিস্কুট লিমিটেডে অবাধে শিশুদের দিয়ে ঝুঁকিপূর্ণ কাজ করানোর চিত্র পাওয়া যায়। একটি ফ্যাক্টরির বাইরে ‘ফ্যাক্টরিতে সংস্কারের কাজ চলছে, উৎপাদন বন্ধ’ নোটিস লাগানো থাকলেও ভেতরে অবাধে শিশুদের দিয়ে কাজ করাতে দেখা যায়।

বিসিক শিল্পনগরীর ৭১ ও ৭২ নং প্লটে এফএ ফুড প্রোডাক্ট লিমিটেডের পাউরুটি, কেক ও বিস্কুট তৈরির কারখানা। সেখানে ১০বছরের শিশু আপন হাসানকে কাজ করতে দেখা যায়। আপনের বাবা গুলজার হোসেন ঢাকার গুলশানে থাকেন। আপন হাসান তার খালা হাসনার সাথে টাঙ্গাইলে বসবাস করে। এখানে ইলেক্ট্রনিক ওভেন পরিস্কারের কাজ করে। দুই উত্তপ্ত ইলেক্টিক ওভেনের মাঝ থেকে ডেকে এনে প্রশ্ন করা হলে জবার দেয়ার আগেই ফ্যাক্টরি কর্তৃপক্ষ এসে হাজির।

তারপরও আপন হাসান জানায়, সে বেশকিছু দিন হলো এখানে কাজ করছে।

একই ফ্যাক্টরির প্যাকিং সেকশনে কাজ করে শেরপুরের নলিতাবাড়ীর হায়দর আলীর ছেলে ইব্রাহিম(১৩)। সে প্রায় দুই বছর যাবত এই সেকশনে কাজ করে।

এ ছাড়া টাঙ্গাইল সদর উপজেলার চর ফতেপুর গ্রামের নুর হোসেনের ছেলে ফরিদুল(১৩) দুই বছর ধরে এখানে কাজ করে। এদের সাথে কথা বলতে বলতেই কর্তৃপক্ষ অন্যশিশুদের সরিয়ে দেয়।

শিশুশ্রম দন্ডনীয় অপরাধ জেনেও কেন শিশুদের দিয়ে এই ফ্যাক্টরিতে কাজ করছে এমন প্রশ্নের জবাবে ব্যবস্থাপক মো. ইকবাল চৌধুরী প্রথমে অস্বীকার করলেও পরে বলেন, তাদের ফ্যাক্টরিতে বেশ কিছুশিশু কাজ করে। তবে এরা একান্তই গরীর ও হতদরিদ্র, তাই তিনি কাজ দিয়েছেন।

বিসিক শিল্পনগরীর প্রিয়া বিস্কুট ফ্যাক্টরিতে শিশু শ্রমিকদের কাজ করতে দেখা যায়।

ন্যাশনাল ফুড ইন্ডাস্ট্রির বাইরে নোটিস টাঙানো আছে ফ্যাক্টরিতে সংস্কারের কাজ চলছে অথচ ভেতরে গিয়ে দেখা যায় শিশুদের দিয়ে কাজ করা হচ্ছে।

এখানে প্যাকিং সেকশনে কাজ করা টাঙ্গাইল সদর উপজেলার কাতুলী ইউনিয়নের মৃত লাল মিঞার ছেলে রাসেল(১৩) জানায়, সে প্রায় দুই বছর যাবত এখানে কাজ করছে।

এছাড়া ফ্যাক্টরির বিভিন্ন সেকশনে বেশ কিছু শিশুকে কাজ করতে দেখা গেলেও তাদের সাথে কথা বলতে দেয়নি কর্তৃপক্ষ। শিশুশ্রম প্রসঙ্গে কোন ধরণের বক্তব্য দিতেও অস্বীকৃতি জানায় ফ্যাক্টরি কর্তৃপক্ষ।

বিসিক শিল্পনগরীতে শিশুশ্রম প্রসঙ্গে বিসিক টাঙ্গাইল এর কর্মকর্তা মো. তোহিদুল হক বলেন, আমি নতুন এসেছি। উল্লেখিত ৩টি ফ্যাক্টরিকে দাপ্তরিক চিঠির মাধ্যমে ব্যাখ্যা চাওয়া হবে। ব্যাখ্যার উত্তর সন্তোষজনক না হলে কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হবে।

টাঙ্গাইল জেলা কলকারখানা ও প্রতিষ্ঠান পরিদর্শন অধিদপ্তরের সহকারী মহাপরিদর্শক (সাধারণ) মো. মোজাম্মেল হোসেন বলেন, বর্তমান সরকারের নীতি শিশুবান্ধব নীতি। এই নীতি অনুযায়ী চারটি সেক্টর যেমন নির্মাণ, প্রকৌশল, রাবার ও কেমিকেল থেকে ২০২১ সালের মধ্যে শিশুশ্রম ও সকল সেক্টর থেকে ২০২৫ সালের মধ্যে শিশুশ্রম মুক্ত করা হবে।

টাঙ্গাইল বিসিক শিল্পনগরীর শিশুশ্রম সম্পর্কে তিনি বলেন, ওই ফ্যাক্টরিগুলোতে এখনই পরিদর্শক পাঠানো হচ্ছে। শিশুশ্রমিক পাওয়া গেলে নিয়মিত মামলা দায়ের করা হবে।

(টাঙ্গাইল সংবাদদাতা, ঘাটাইলডটকম)/-

105total visits,2visits today