টাঙ্গাইল জেলা আ’লীগের সাধারণ সম্পাদককে সখীপুরে অবাঞ্ছিত ঘোষণা

টাঙ্গাইলের সখীপুর উপজেলা ছাত্রলীগের কমিটি ঘোষণার প্রতিবাদে বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ করেছে স্থানীয় সংসদ সদস্যের পক্ষের ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা। এ সময় বিক্ষুব্ধ নেতাকর্মীরা মিছিল শেষে স্থানীয় ফোয়ারা চত্বরে টায়ার জ্বালিয়ে ঢাকা-সখীপুর সড়ক অবরোধ করে রাখে।

পরে সমাবেশ থেকে জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক জোয়াহেরুল ইসলামকে অবাঞ্ছিত ঘোষণা করে তাঁর কুশপুত্তলিকায় আগুন ধরিয়ে দেয় বিক্ষুব্ধরা। এ সময় সড়কের দুইপাশে দীর্ঘ যানজটের সৃষ্টি হয়।

রাত নয়টা পর্যন্ত অবরোধ কর্মসূচি অব্যাহত ছিল।

​জানা যায়, বৃহস্পতিবার রাত ৮ টার দিকে জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক জোয়াহেরুল ইসলাম সমর্থিত উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক সজিব আহমেদকে আহ্বায়ক করে ৭১ সদস্যের কমিটি ঘোষণা করে টাঙ্গাইল জেলা ছাত্রলীগ। এ খবর ছড়িয়ে পড়লে স্থানীয় সংসদ সদস্য অনুপম শাহজাহন জয় সমর্থিত ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা ওই কমিটিকে অবৈধ ঘোষণা করে তা বাতিলের দাবিতে বিক্ষোভে ফেটে পড়ে।

পরে তারা লাঠি-সোঁটা নিয়ে বিক্ষোভ মিছিল বের করে। একপর্যায়ে ঢাকা-সখীপুর সড়কের মোখতার চত্বর অবরোধ করে জোয়াহেরুল ইসলামের ছবিতে আগুন দেয়।

এ সময় তারা জোয়াহেরুল ইসলামের সাটানো বিলবোর্ড ভাঙচুর করে।

পরে সমাবেশে বক্তব্য দেন উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি আরিফ সরকার, সাবেক যুগ্ম আহ্বায়ক মির্জা শরীফ, সরকারি মুজিব কলেজ ছাত্র সংসদের জিএস রাসেল আল মামুন, বাবুল আহমেদ প্রমুখ।

সমাবেশে বক্তরা জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক জোয়াহেরুল ইসলামকে সখীপুরে অবাঞ্ছিত ঘোষণা করেন।

মির্জা শরীফ বলেন, জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক প্রভাব খাটিয়ে অছাত্রদের দিয়ে পকেট কমিটি ঘোষণা করিয়েছেন। নিয়মিত ও ত্যাগী নেতাকর্মীদের বাদ দিয়ে যে কমিটি করা হয়েছে তা বাতিল না করা পর্যন্ত আন্দোলন চলবে।

​সদ্যঘোষিত কমিটির আহ্বায়ক সজিব আহমেদ বলেন, নিয়মতান্ত্রিকভাবেই ছাত্রলীগের কর্মীদের দিয়ে কমিটি ঘোষণা করা হয়েছে। যারা মিছিল করছে তারা ছাত্রলীগের কেউ নন।

জেলা ছাত্রলীগের যুগ্ম আহ্বায়ক রনি আহমেদ বলেন, গঠনতন্ত্র অনুসারে নিয়মিত ছাত্র ও ত্যাগী কর্মীদের দিয়েই কমিটি দেওয়া হয়েছে।

জেলা ছাত্রলীগের আহ্বায়ক মোস্তাফিজুর রহমানের কাছে জানতে চাইলে তিনি একটু পরে কথা বলবেন বলে ফোন রেখে দেন।

(সখীপুর, ঘাটাইল ডট কম)/-

 

61total visits,1visits today