গোপালপুরে যুবদলের কেন্দ্রীয় সম্পাদক টুকু সহ বিএনপির ৩৫০ নেতাকর্মীর বিরুদ্ধে মামলা

জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় খালেদা জিয়ার দণ্ডের বিরুদ্ধে বিএনপির বিক্ষোভে টাঙ্গাইলের গোপালপুরে পুলিশের সঙ্গে বিএনপি নেতাকর্মীদের সংঘর্ষের ঘটনায় মামলা হয়েছে। এতে আসামি করা হয়েছে যুবদলের কেন্দ্রীয় কমিটির সাধারণ সম্পাদক সুলতান সালাউদ্দিন টুকু, সাবেক মেয়র ও উপজেলা বিএনপির সভাপতি জাহাঙ্গীর আলম রুবেল, উপজেলা ছাত্রদলের আহ্বায়ক সাইফুল ইসলাম লেলিনসহ বিএনপির সাড়ে তিনশ নেতাকর্মীকে।

শনিবার সন্ধ্যায় গোপালপুর থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) আব্দুল হাই বাদী হয়ে এই মামলা দায়ের করেন।

খালেদা জিয়াকে দণ্ড দেয়ার প্রতিবাদে গত শুক্রবার বিকালে বিএনপি ও অঙ্গসংগঠনের দুই শতাধিক নেতাকর্মী একটি বিক্ষোভ মিছিল নিয়ে পৌরশহরের আভুঙ্গী মোড়ে সমাবেশ করে। এসময় পুলিশ বাধা দিলে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া শুরু হয়। বিএনপি নেতাকর্মীদের ছত্রভঙ্গ করতে পুলিশ ২২ রাউন্ড ফাঁকা গুলি ছোড়ে। নাশকতার আশঙ্কায় সমাবেশে বাধা দিলে বিএনপির কর্মীরা পুলিশের উপর চড়াও হয়। তাদের হামলা ও ইটপাটকেল নিক্ষেপে এসআই আব্দুল হাইসহ পাঁচ পুলিশ আহত হয়। এদের মধ্যে মাথায় গুরুতর আঘাত পাওয়া কনস্টেবল শাহীন আলমকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। অন্য চারজনকে প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়া হয়। এসময় বিএনপির তিন কর্মীও আহত হন। ঘটনার সঙ্গে জড়িত থাকার অভিযোগে বিএনপিকর্মী লাবলু মিয়া, ইসমাইল হোসেন ও ফিরোজ আহমেদকে ওই দিনই গ্রেপ্তার করা।

এদিকে জেলা বিএনপির সভাপতি কৃষিবিদ শামসুল আলম তোফা বলেন, “শুক্রবার শান্তিপূর্ণভাবে মিছিল করছিলেন দলের নেতাকর্মীরা। মিছিল শেষে ফেরার সময় পুলিশ নেতাকর্মীদের ওপর হামলা করে। বেগম খালেদা জিয়াকে জেলখানায় প্রেরণের পর তৃণমূল পর্যায়ে নেতাকর্মীরা ঐক্যবদ্ধ হয়েছে। এই ঐক্যবদ্ধ ভাঙতে ও নেতাকর্মীদের হয়রানি করতে এই মামলা দেওয়া হয়েছে।”

তিনি আরও বলেন, “যুবদলের কেন্দ্রীয় কমিটির সাধারণ সম্পাদক সুলতান সালাউদ্দিন টুকু ওই দিন ঢাকায় ছিলেন। তারপরও টুকুর বিরুদ্ধে হয়রানিমূলক মামলা দিয়েছে পুলিশ।”

গোপালপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) হাসান আল মামুন বলেন, “শুক্রবার দুপুরে পুলিশ-বিএনপির নেতাকর্মীদের সংঘর্ষে পুলিশসহ বেশ কয়কেজন আহত হন। পুলিশের ওপর হামলার জের ধরেই গোপালপুর থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) আব্দুল হাই বাদী হয়ে এই মামলা দায়ের করেন।”

ওসি বলেন, “মামলার পর দুই আসামিকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। বাকিদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে।”

(গোপালপুর প্রতিনিধি, ঘাটাইল ডট কম, ১১ফেব্রুয়ারি)/-

100total visits,1visits today